রাবিতে সিলেবাস পুনর্বহালের আন্দোলনে বহিষ্কৃত শিক্ষকের উসকানি

রাবি প্রতিনিধি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) ব্যবসায় প্রশাসন ইনস্টিটিউটের (আইবিএ) শিক্ষার্থীদের সিলেবাস পুনর্বহালের আন্দোলনে ইনিস্টিউটের শিক্ষক শাহেদ পারভেজের উসকানি ও অশোভন আচরণের অভিযোগ ওঠেছে। তিনি ইনিস্টিউট থেকে সাময়িক বহিষ্কৃত। গতকাল বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক জাহাঙ্গীর আলম সাঊদ ও প্রক্টর অধ্যাপক আসাবুল হক এ অভিযোগ তুলেছেন।
তারা জানান, ১৮ ডিসেম্বর ইনস্টিটিউটের কিছু শিক্ষার্থী সিলেবাস পুনর্বহালের দাবি জানিয়েছে। দাবি শোনার পর প্রশাসনের পক্ষ থেকে শিক্ষার্থীদের আশ্বস্ত করার পাশাপাশি ইনস্টিটিউটের পরিচালকের নিকট দাবি জানাতে বলা হয়। এছাড়াও বলা হয়, এটা একটি প্রক্রিয়াগত কাজ। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে বিষয়টি সমাধানের ব্যবস্থা করা হবে। কিন্তু আজকে (২০ ডিসেম্বর) শিক্ষার্থীরা আবার আন্দোলন করে। তখন ইনস্টিটিউটের শিক্ষক শাহেদ পারভেজ সেখানে যুক্ত হন এবং শিক্ষার্থীদের উসকানি দিয়ে মিস গাইড করতে থাকেন। এসময় তিনি আমাদের সঙ্গে অশোভন আচরণ করেছেন। এমনকি ইনস্টিটিউটের পরিচালক সম্পর্কে মন্তব্যে বলেন, তিনি ইনস্টিটিউটে শিক্ষকদের দিয়ে সবজি চাষ করছেন। শিক্ষক হয়ে শিক্ষকের সঙ্গে এমন আচরণ খুবই গর্হিত বলে জানান তারা।
বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫২৭ তম সিন্ডিকেট সভায় সাময়িকভাবে বরখাস্ত শিক্ষক শাহেদ পারভেজ অভিযোগের বিষয়ে বলেন, আমি কোন শিক্ষকের সঙ্গে অশোভন আচরণ কিংবা আন্দোলনে উসকানি দেইনি। শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক দাবির সঙ্গে একাত্মতা পোষণ করে আমি সেখানে গিয়েছি। তাছাড়া বহিষ্কারের আদেশ আমি এখনো হাতে পাইনি।
এদিকে সিলেবাসের ব্যাপারে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক শাখার ডেপুটি রেজিস্ট্রার আসলাম হোসেন জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যান্য বিভাগ সঙ্গে মিল রেখে ব্যবসা প্রশাসন ইনস্টিটিউটের সিলেবাস তৈরির সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এতে একাডেমিক কাউন্সিলেরও সম্মতি ছিল। তাছাড়া এই নিয়ম অনুসারে সংশ্লিষ্ট কোর্স শিক্ষকের পক্ষপাতের সুযোগ খুবই কম। ফলে ফলাফল নিয়ে প্রশ্ন ওঠার সম্ভাবনা থাকে না।
সার্বিক বিষয়ে ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক জিনাত আরা বেগম জানান, এই শিক্ষার্থীরা কেন এভাবে আন্দোলন করছে আমি বুঝতে পারছিনা। তাদের যদি কোন দাবি-দাওয়া থাকে সেটা একটা প্রক্রিয়ার ভেতর দিয়ে সমাধান হবে। তবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সিদ্ধান্তে এ সিলেবাস হয়েছে। এটা এখনি পরিবর্তনের সুযোগ নেই।
শিক্ষকের আন্দোলনে অংশ নেয়ার ব্যাপারে তিনি বলেন, কোন শিক্ষকের এভাবে আন্দোলন করা যথাযথ মনে করি না। তাঁর কথা বলার জায়গা ওটা না।


প্রকাশিত: ডিসেম্বর ২২, ২০২৩ | সময়: ৫:৪৮ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ