এবার নীলফামারীর রেললাইনে নাশকতার চেষ্টা

সানশাইন ডেস্ক: এবার নীলফামারীর ডোমারে রেললাইনের ফিসপ্লেট ক্লিপ খুলে নাশকতার চেষ্টা করেছে দুর্বৃত্তরা। পরে এলাকাবাসীর প্রতিরোধে তারা পালিয়ে যায়। এ সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেয়েছে আন্তঃনগর ‘সীমান্ত এক্সপ্রেস’।
বুধবার রাত ১০টার দিকে ডোমার উপজেলার বোড়াগাড়ি ইউনিয়নের বাগডোকরা গ্রামের হীরালাল রেলঘুন্টি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে বলে জানান ডোমার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নাজমুল আলম। এসময় একটি বস্তা থেকে খুলে ফেলা ৭২টি ফিসপ্লেট ক্লিপ উদ্ধার করা হয়। মেরামতের জন্য ডোমার-চিলাহাটি পথে প্রায় দেড় ঘণ্টা সব ধরনের ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকে।
এলাকাবাসীর বরাতে বোড়াগাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম রিমন বলেন, “রাতে ওই এলাকায় রেললাইনের লোহা-লক্কড় খোলার শব্দ শুনতে পায় স্থানীয়রা। এ সময় তারা এগিয়ে গিয়ে দেখেন একদল হরতাল সমর্থক রেললাইনের ফিসপ্লেট ও পিন খুলছেন। “এসময় এলাকাবাসী জোটবদ্ধ হয়ে ধাওয়া করলে পালিয়ে যায় তারা। পরে তাদের ফেলে যাওয়া একটি বস্তা থেকে ৭২ পিস ফিসপ্লেট ক্লিপ উদ্ধার হয়।”
ওই গ্রামের রাজেশ্বর রায় (৩০) বলেন, “ঘটনার পর চিলাহাটি থেকে খুলনাগামী সীমান্ত এক্সপ্রেস ট্রেনটি আসছিল। তখন ঘটনাস্থলে তিন থেকে চারশ লোক উপস্থিত ছিলেন। তারা সবাই বিভিন্নভাবে সংকেত দিতে থাকলে ট্রেনটি থেমে যায়। এতে করে বড় দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পায় ট্রেনটি।” জোড়াবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাখোয়াৎ হোসেন বাবু বলেন, “আমার ইউনিয়নের সীমানায় ঘটনাটি ঘটেছে। আমি গিয়ে রেললাইনের বিভিন্ন স্থানে ফিসপ্লেট ক্লিপ খোলা দেখতে পেয়েছি। এলাকাবাসীর সচেতনতায় দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেয়েছে ট্রেনটি। তা নাহলে ট্রেনটি লাইনচ্যুত হয়ে বড় ধরনের দুর্ঘটনাসহ প্রাণহানির ঘটনা ঘটে যেত।”
স্থানীয়দের ধাওয়ায় দুর্বৃত্তরা পালিয়ে গেলে তাদের ফেলে যাওয়া বস্তা থেকে খুলে ফেলা ৭২টি ফিসপ্লেট ক্লিপ উদ্ধার হয়। আন্তঃনগর সীমান্ত এক্সপ্রেস ট্রেনের পরিচালক মো. হাফিজুর রহমান বলেন, “স্থানীয়রা সংকেত দেওয়ায় ট্রেনটি দ্রুত থামানো হয়। এরপর দেখি লাইনের ফিসপ্লেটের ক্লিপ খোলা রয়েছে। স্থানীয় লোকজন থামানোর ফলে বড় ধরনের দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেয়েছে ট্রেনসহ যাত্রীরা।”
এদিকে খবর পাওয়ার পরপরই দ্রুত ঘটনাস্থলে যান ডোমার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নাজমুল আলম। তিনি বলেন, “কে বা কারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে তা এই মুহূর্তে বলা সম্ভব না। বিষয়টি তদন্ত করবে পুলিশ ও রেলওয়ে গোয়েন্দা বিভাগ “ চিলাহাটি-নীলফামারী রেলপথে নিরাপত্তা জোরদার করতে সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করবেন জানিয়ে তিনি আরও বলেন, “একই সাথে আমরা রেলওয়ের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছি তাদের বক্তব্য শুনে তারা যেভাবে আমাদের সহযোগিতা করতে বলবে, আমরা তাদের সঙ্গে সেভাবে নিরাপত্তার সহযোগিতা দিব।”
নীলফামারী স্টেশন মাস্টার ওবায়দুর রহমান রতন বলেন, “লাইন মেরামতের পর প্রায় দেড় ঘণ্টা পর সীমান্ত এক্সপ্রেস ট্রেনটি সেখান থেকে ছেড়ে আসে। অপরদিকে রাজশাহী থেকে ছেড়ে আসা বরেন্দ্র এক্সপ্রেস ট্রেনটিও দেড় ঘণ্টা আটকা পড়েছিল ডোমার স্টেশনে। “বর্তমানে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে”, বলেও জানান রেলের এই কর্মকর্তা।
এর আগে গাজীপুরে দুর্বৃত্তরা রেললাইন কেটে রাখায় বুধবার ভোরে ৪টার দিকে মোহনগঞ্জ এক্সপ্রেসের ইঞ্জিনসহ সাতটি বগি লাইনচ্যুত হয়। ভাওয়াল ও রাজেন্দ্রপুর রেল স্টেশনের মধ্যবর্তী বনখড়িয়া এলাকায় এই ঘটনায় এক যাত্রী নিহত হন। গুরুতর আহত হন লোকোমাস্টারসহ বেশ কয়েকজন।


প্রকাশিত: ডিসেম্বর ১৫, ২০২৩ | সময়: ৫:৪৫ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ