ক্লিন ইমেজের প্রার্থী শাহরিয়ার, যারা বিপক্ষে ছিলো তারা এখনও আছে !

নুরুজ্জামান,বাঘা :

আগামী ৭ জানুয়ারী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। এই নির্বাচন উপলক্ষে রাজশাহী-৬ চারঘাট-বাঘায় নিজ-নিজ প্রার্থীদের পক্ষে শুরু হয়েছে প্রচার-প্রচারনা, বর্ধিত সভা ও গণসংযোগ। এ দিক থেকে ক্লিন ইমেজের প্রার্থী চতুর্থ বারের ন্যায় আ’লীগ দলীয় নৌকার মাঝি শাহরিয়ার আলম। বিগত সময়ে যারা তাঁর বিপক্ষে ছিলো, এবারও তারাই রয়েছে। তবে দৃশ্যমান উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় এসব বিরোধ কোনই কাজে আসবেনা বলে মন্তব্য করেছেন তৃণমূল আ’লীগ-সহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ।

জেলা নির্বাচন অফিসার ও চারঘাট-বাঘা উপজেলা সহকারি রিটার্নিং অফিসার সূত্রে জানা গেছে, গত ৩০ নভেম্বর দ্বাদশ জার্তীয় সংসদ নির্বাচনের মনোনয়ন জমা দেয়ার শেষ দিন ছিলো। ঐ দিন মোট ৯ জন প্রার্থী মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন। এদিক থেকে মনোনয়ন সঠিক হিসাবে বিবেচিত হলে ৩ জন সতন্ত্র এবং ৬ জন দলীয় প্রার্থী হিসাবে ভোট করবেন। এসব প্রার্থীদের মধ্যে দেশের সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক দল আ’লীগের দলীয় প্রার্থী হয়েছেন তিন বারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য ও দুই বারের সফল পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম । তাঁর প্রতীক নৌকা ।

 

 

 

 

এদিকে তাঁর বিপরীতে যারা প্রার্থী হয়েছেন তার মধ্যে একই দল থেকে দলীয় মনোনয়ন বঞ্চিত হওয়ার অভিমানে বিদ্রোহী তথা (সতন্ত্রী প্রার্থীর) ফরম জমাদিয়ে ভোট যুদ্ধে নেমেছেন চারঘাট উপজেলার বাসিন্দা ও ২০০০ সালের উপ-নির্বাচনে জয়ী রায়হানুল হক রায়হান। তার সাথে এবার এলাকায় গণসংযোগ সহ প্রকাশ্যে ভোট চাইছেন বাঘা পৌর মেয়র আক্কাস আলী ও বাঘা উপজেলা চেয়ারম্যান এড: লায়েব উদ্দিন লাভলুর কর্মী-সমর্থকরা। দলীয় লোকজন জানান, এই আক্কাস আলী ২০০১ সালের জাতীয় নির্বাচনে রায়হানুল হক রয়হানের বিপরীতে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে বিএনপির বর্শিয়ান নেতা কবির হোসেনকে পাশ করিয়ে ছিলেন।

 

 

 

 

 

এ বিষয়ে বাঘা উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম বাবুল,আড়ানী পৌর মেয়র মুক্তর আলী এবং চারঘাট উপজেলা আ’লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন,সাধারণ সম্পাদক ফকরুল ইসলাম ও চারঘাট পৌর মেয়র একরামুল হক বলেন, শাহরিয়ার আলম ২০০৮ সাল থেকে চারঘাট-বাঘায় আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রথম (বিজয়ী)নৌকার মাঝি । এর আগে যারা নৌকা প্রতীক নিয়ে অত্র এলাকায় এসছেন তারা কখনোই পাশ করতে পানেনি। কতিপয় ষড়যন্ত্রকারীরা নিজেদের স্বার্থে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দেয়া দলীয় প্রার্থীর বিপক্ষে অবস্থান নেয়া সহ মনোনয়ন বঞ্চত বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে কাজ করছেন। তবে তাতে কোন লাভ হবেনা। শাহরিয়ার আলম পূর্বের যে কোন সময়ের চেয়ে এবার ক্লিন ইমেজে রয়েছে। কারণ বিতন ১৫ বছরে অত্র এলাকায় নিজেস্ব অনুদান সহ সরকারী প্রচেষ্টায় তিনি যে পরিমান দৃশ্যমান উন্নয়ন করেছেন তার ফলোশ্রুতিতে অত্র অঞ্চলের মানুষ আবারও তাঁকেই বিজয়ী করবেন।

এ বিষয়ে রায়হানুল হকের সাথে মোবাইলে যোগাযোগের চেষ্টা করে তাকে পাওয়া যায়নি। তবে তাঁর এক কর্মী জানান, এবার বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি ও জামাতে ইসলামী সংগঠন ভোট বর্জন করছে। তারা যদি ভোট কেন্দ্র আসে তাহলে একটা হিসাব-নিকাশ রয়েছে। এ কারণে আমাদের নেতা আবারও সতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন।

সানশাইন/সোহরাব


প্রকাশিত: ডিসেম্বর ২, ২০২৩ | সময়: ৪:২৯ অপরাহ্ণ | Daily Sunshine