ফারুক চৌধুরীর প্রতিদ্বন্দ্বি ৩ নারীসহ ১০ প্রার্থী

আব্দুল বাতেন : রাজশাহী-১ (গোদাগাড়ী-তানোর) আসনের হেভিওয়েট প্রার্থী ওমর ফারুক চৌধুরীর সাথে এবার লড়বেন তিন নারীসহ ১০ প্রার্থী। তারা সবাই নতুন মুখ। এদের মধ্যে চারজন স্বতন্ত্র ও বাকিরা দলীয় প্রার্থী। চারজন স্বতন্ত্র প্রার্থীই আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী হিসেবে ভোটের মাঠে নামছেন।
জেলার পশ্চিমাঞ্চলে অবস্থিত রাজশাহীর ভিআইপি আসন নামে পরিচিত এখানে ভোটে লড়তে চান তিনবারের এমপি ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী ওমর ফারুক চৌধুরী, আওয়ামী লীগ নেতা আখতারুজ্জামান আখতার, গোলাম রাব্বানী, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর সহধর্মীনি শাহনেওয়াজ আয়েশা আখতার জাহান ডালিয়া, চিত্রনায়িকা শারমিন আক্তার নিপা মাহিয়া, বিএনএফ দলের প্রার্থী আল-সাআদ, তৃণমূল বিএনপি থেকে জামাল খান দুদু, এনপিপির প্রার্থী নুরুন্নেসা, বাংলাদেশ সাংস্কৃতি মুক্তিজোট প্রার্থী বশির আহমেদ, জাতীয় পার্টি থেকে শামসুদ্দীন মন্ডল ও বিএনএম’র প্রার্থী শামসুজ্জোহা বাবু।
এদের মধ্যে আখতারুজ্জামান আখতার, গোলাম রাব্বানী, শাহনেওয়াজ আয়েশা আখতার জাহান ও চিত্রনায়িকা শারমিন আক্তার নিপা মাহিয়া স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন। তার চারজনই আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে সক্রিয়ভাবে জড়িত ও গুরুত্বপুর্ন পদে দায়িত্ব পালন করছেন।
রাজশাহী-১ ভিআইপি আসন হিসেবে পরিচিতি আছে। এখান থেকে বিএনপি-জামায়াত থেকে হেভিওয়েট প্রার্থীরা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এর আগে বিএনপির সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও টানা তিনমারের মন্ত্রী প্রায়াত ব্যারিষ্টার আমিনুল হক আওয়ামী লীগের হেভিওয়েট প্রার্থী সাবেক শিল্প প্রতিমন্ত্রী ওমর ফারুক চৌধুরীর সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন।
এছাড়াও ব্যারিষ্টার আমিনুল হক সাজাপ্রাপ্ত হয়ে পলাতক থাকায় তার বড় ভাই পুলিশের সাবেক আইজিপি ড. এনামুল হক নির্বাচনে অংশ নিয়ে ওমর ফারুক চৌধুরীর কাছে পরাজিত হন। ব্যারিষ্টার আমিনুল হক মৃত্যুর পর তার ছোট ভাই বিএনপি সরকারের প্রধানমন্ত্রীর সাবেক সামরিক সচিব মেজর জেনারেল (অব:) শরিফ উদ্দীন এবার নির্বাচন করার ঘোষণা দিয়ে মাঠে সরব ছিলো।
এছাড়ও জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত আমিন অধ্যাপক মুজিবুর রহমান এই আসন থেকে নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করে থাকেন। তিনি একবার এমপি নির্বাচিত হয়েছিলেন।
তবে এবার আওয়ামী লীগ থেকে ওমর ফারুক চৌধুরী দলীয় মনোনয়ন পেলেও নিজ দলের চারজন বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ায় তাদের সাথেসহ বিভিন্ন দলের ৬ জন প্রার্থীর সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে হবে। বাকিরা সবাই নতুন মুখ হিসেবে নির্বাচন করতে যাচ্ছে।
আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরা হলেন, জেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক আখতারুজ্জ্মান আখতার। তিনি গেলো রাজশাহী জেলা পরিষদ নির্বাচনেও বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে ভোট করলে সামান্য ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন। এছাড়াও তিনি গোদাগাড়ী উপজেলার দেওপড়া ইউনিয়নের তিনবারের নির্বাচিত চেয়ারম্যনের দায়িত্ব পালন করেছেন।
গোলাম রাব্বানী তানোর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও মুন্ডুমালা পৌরসভার সাবেক মেয়র। তিনি বর্তমানে জেলা কমিটির সদস্য। এলাকায় রাজনৈতিক ও জনপ্রতিনিধি হিসেবে বাপ-দাদার বংশ পরম্বরায় বেশ জনপ্রিয়তা আছে এই আওয়ামী লীগ নেতার। ২০১৮ সালের নির্বাচনেও তিনি দলীয় মনোনয়ন চেয়ে বঞ্চিত হন।
আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর সহধর্মীনি শাহনেওয়াজ আয়েশা আখতার জাহান ডালিয়াও এবার নতুন মুখ। তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে এবার লড়বেন ওমর ফারুক চৌধুরীর সাথে। প্রায় ১০ বছর ধরে এলাকায় নানা ধরণের সামাজিক কর্মকান্ড চালিয় নিজের অবস্থান তৈরী করেছেন। বিশেষ করে গরীব, দু:স্থদের ও ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীদের মাঝে তার বেশ জনপ্রিয়তা রয়েছে।
অপরদিকে, দেশের জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা শারমিন আক্তার নিপা মাহিয়ার বাসা চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল উপজেলার সদরে। তবে তার নানার বাড়ী তানোরের মুন্ডমালায়। নানার বাড়িতেই তিনি বেড়ে উঠেছেন। ছোট বেলা থেকে বিভিন্ন সংস্কৃতিক কর্মকান্ডে অংশ নেয়ার কারণে এলাকায় তিনি আগে থেকেই পরিচিত। তাই তিনি এ এলাকাকেই বেছে নিয়েছেন ভোটে লড়তে। ফলে রাজশাহী-১ আসন থেকে এবার প্রথমবারের মত আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী হিসেবে লড়বেন হেভিওয়েট প্রার্থী ওমর ফারুক চৌধুরীর সঙ্গে।
কাগজে কলমে নাম শারমিন আক্তার নিপা মাহিয়া হলেও তিনি পরিচিত চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি নামে। তিনি বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়াও তিনি বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের রাজশাহী বিভাগের আহ্বায়ক হিসেবেও দায়িত্বে আছেন।


প্রকাশিত: ডিসেম্বর ২, ২০২৩ | সময়: ৫:২২ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ

আরও খবর