রাজশাহীতে নানা আয়োজনে শেখ রাসেল দিবস উদযাপন

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহীতে বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেল এর জন্মদিন শেখ রাসেল দিবস উদযাপন করা হয়েছে।
দিবসটি উপলক্ষে বুধবার সকাল ১০টায় নগর ভবনে বঙ্গবন্ধু ও শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। এরপর ব্যানার-ফেস্টুন উড়িয়ে দিনব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচির উদ্বোধন করেন সিটি মেয়র। দিবসটি উপলক্ষে নগর ভবন থেকে বর্ণাঢ্য আনন্দ র‌্যালি বের করা হয়। এ সময় সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর, কর্মকর্তা-কর্মচারীর উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে শেখ রাসেল এর জন্মদিন উপলক্ষে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে কুমারপাড়া দলীয় কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধু ও শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। এরপর আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।
আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন।
এ সময় রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী কামাল ও মহানগর আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য ডা. আনিকা ফারিহা জামান অর্ণা উপস্থিত ছিলেন।
দিবসটি উপলক্ষে বুধবার সকাল নয়টায় বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয় হতে এক বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়ে জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে গিয়ে শেষ হয়। সকাল সাড়ে নয়টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমি চত্বরে শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অপর্ণ করা হয়। পরে শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।
এছাড়া রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, রুয়েট, রামেবি, রাকাব, রাজশাহী কলেজে নানা কর্মসূচিতে দিবসটি উদযাপন করা হয়। পৃথক কর্মসূচিতে বাংলাদেশ শিশু একাডেমীর রাজশাহী কার্যালয়, বাংলাদেশ বেতারের রাজশাহী কেন্দ্র, শেখ রাসেল শিশু পুনর্বাসন কেন্দ্র, শিশু পরিবার, গণপূর্ত দফতর, সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন দপ্তর দিবসটি উদ্যাপনে পৃথক পৃথক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। জেলার উপজেলা পর্যাযেও যথাযথ মর্যাদায় দিবসটি উদযাপন করা হয়।
রাবি : যথাযোগ্য মর্যাদায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের ৬০তম জন্মদিবস, ‘শেখ রাসেল দিবস’ উদযাপন করা হয়েছে। বুধবার (১৮ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ৮টায় দিবসটি উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবাস বাংলাদেশ চত্বর থেকে এক আনন্দর‌্যালি ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে শেখ রাসেল মডেল স্কুলে যায়।
আনন্দর‌্যালী শেষে সেখানে শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ, মোনাজাত ও স্কুল প্রাঙ্গণে ফুল গাছের চারা রোপণ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।
এরপর স্কুল প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা। সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাবি উপাচার্য অধ্যাপক গোলাম সাব্বির সাত্তার বলেন, শেখ রাসেল ছিলো এক আদর্শ পিতার সুযোগ্য সন্তান। তিনি বেঁচে থাকলে আজ হয়তো জাতির নেতৃত্ব দিতেন, দেশ ও জাতির উন্নয়ন-অগ্রযাত্রায় নিজেকে নিবেদিত করতেন। জাতির দুর্ভাগ্য ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্টের কালভোরে ১০ বছরের শিশু রাসেলকেও নির্মমভাবে হত্যা করে। ঘাতকদের লক্ষ্য ছিল জাতিকে বঙ্গবন্ধুর উত্তরাধিকারী শুন্য করার। কিন্তু তারা সফল হয়নি। শেখ রাসেল আজ শিশুদের প্রতীক ও এক অম্লান সত্ত্বা হিসেবে বেঁচে আছে।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে রাবি উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক মো. সুলতান-উল-ইসলাম বলেন, শেখ রাসেল ছিল সদা প্রাণচঞ্চল। ১৫ আগস্টের নির্মম হত্যাকাণ্ডে তাকে আমরা হারিয়েছি। শেখ রাসেল আজ আর আমাদের মধ্যে নেই, কিন্তু আছে তার স্মৃতি, সদা হাস্যেজ্জ্বল মুখখানি। রাসেলের চেতনায় শিশুরা যেন গড়ে উঠে আমাদের প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরের শিশুরা বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

স্কুল পরিচালনা পরিষদের সভাপতি শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক দুলাল চন্দ্র বিশ্বাসের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আরেক উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক মো. হুমায়ুন কবীর বলেন, শেখ রাসেল বাংলাদেশের শিশুদের এক অম্লান আদর্শ। সে ছিল সদা দীপ্তিময়, নির্মল। সে বেঁচে থাকলে আজ হয়তো জাতিকে নেতৃত্ব দিতো কিন্তু ১৫ আগস্টের ঘাতকরা তাকেও রেহাই দেয়নি। তাকে হত্যা করে ভবিষ্যত প্রজন্মকে নেতৃত্বশুন্য করতে চেয়েছিল। জাতি ঠিকই ঘুরে দাঁড়িয়েছে কিন্তু শেখ রাসেলের অনুপস্থিতির শুন্যতা রয়ে গেছে। তিনি শিশুদের শেখ রাসেল সম্পর্কে পড়াশোনা করারও পরামর্শ দেন।
অনুষ্ঠানে উপাচার্য শেখ রাসেলের জন্মদিন উপলক্ষে আয়োজিত রচনা, চিত্রাঙ্কন ও বাক্য লেখা প্রতিযোগিতার পুরস্কার প্রদান ও স্কুলের শিক্ষার্থীদের নিয়ে কেক কাটেন। পরবর্তীতে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে অনুষ্ঠানটি শেষ হয়।
রাসিক: নগর ভবন চত্বরে বঙ্গবন্ধু ও শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণ করেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। এ সময় রাসিক মেয়রের উপস্থিতিতে কাউন্সিলর, কর্মকর্তাবৃন্দ ও কর্মচারী ইউনিয়নের পক্ষ থেকে পৃথক পৃথকভাবে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করা হয়। এরপর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, শহীদ শেখ রাসেলসহ ১৫ আগস্টের সকল শহীদ, জাতীয় চার নেতা ও মহান মুক্তিযুদ্ধের শহীদের আত্মার মাগফিরাত কামনায় দোয়া ও মোনাজাত করা হয়।
দিবসটি উপলক্ষ্যে বেলুন-ফেস্টুন ও পায়রা উড়িয়ে রাজশাহী সিটি করপোরেশনের দিনব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূরিচ উদ্বোধন করেন সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। এরপর নগর ভবন থেকে বর্ণাঢ্য আনন্দ র‌্যালী বের করা হয়। র‌্যালিটি বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে পুনরায় নগর ভবনে গিয়ে শেষ হয়। দুপুর ১২টায় সিটি হল সভাকক্ষে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন ও কেক কাটার আয়োজন করা হয়। এছাড়া দিবসটি উপলক্ষ্যে বাদ যোহর শেখ রাসেলের আত্মার মাগফিরাত কামনায় নগর ভবন সহ নগরী সকল মসজিদে বিশেষ মোনাজাত ও দোয়া মাহফিল এবং মন্দির, গির্জা, প্যাগোডা ও অন্যান্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে বিশেষ প্রার্থনা অনুষ্ঠিত হয়। বিকেল ৪টায় নগরীর ছোটবনগ্রাম এলাকায় নির্মিত শেখ রাসেল শিশু পার্ক উন্মুক্তকরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।
অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য ও কেন্দ্রীয় যুব মহিলা লীগের সদস্য ডা. আনিকা ফারিহা জামান অর্ণা, ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রজব আলী, ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম, ৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর কামাল হোসেন, ৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আশরাফুল ইসলাম, ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নূরুজ্জামান, ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর জানে আলম খান, ৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রাসেল জামান, ১০নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্বাস আলী সরদার, ১১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবু বাক্কার কিনু, ১২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সরিফুল ইসলাম বাবু, ১৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আনোয়ার হোসেন, ১৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুস সোবহান, ১৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর বেলাল আহম্মেদ, ১৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শহিদুল ইসলাম, ১৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমন, ২০নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রবিউল ইসলাম, ২১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নিযাম উল আযীম, ২৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আকতারুজ্জামান কোয়েল, ২৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মনিরুজ্জামান, ২৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আশরাফুল হাসান বাচ্চু, ২৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর জাহের হোসেন, সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর তাহেরা খাতুন, শিউলি, সেবুন নেসা, আলতাফুন নেছা, মমতাজ মহল, সুলতানা আহমেদ সাগরিকা, নাদিরা বেগম, ফেরদৌসী, সুলতানা রাজিয়া প্রমুখ।
কর্মসূচিতে রাজশাহী সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. এবিএম শরীফ উদ্দিন, ভারপ্রাপ্ত সচিব আল মাহমুদ রনি, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাদিয়া আফরিন, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা আবু সালেহ মোঃ নূর-ঈ-সাঈদ, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. এফএএম আঞ্জুমান আরা বেগম, প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শেখ মোঃ মামুন, বাজেট কাম হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম খান, কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি দুলাল শেখ, সাধারণ সম্পাদক আজমীর আহম্মেদ মামুন সহ কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
রাবি: সকাল সাড়ে ৮টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবাস বাংলাদেশ চত্বর থেকে এক আনন্দর‌্যালি ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে শেখ রাসেল মডেল স্কুলে যায়। পরবর্তীতে উপাচার্য অধ্যাপক গোলাম সাব্বির সাত্তার, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক সুলতান-উল-ইসলাম, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক হুমায়ুন কবীর শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ, মোনাজাত ও স্কুল প্রাঙ্গণে ফুল গাছের চারা রোপণ করেন। এসময় অন্যদের মধ্যে শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক দুলাল চন্দ্র বিশ্বাস, রেজিস্ট্রার অধ্যাপক আবদুস সালামসহ শেখ রাসেল মডেল স্কুলের অধ্যক্ষ, শিক্ষক ও শিক্ষার্থীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
এরপর স্কুল প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা। এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন উপাচার্য অধ্যাপক গোলাম সাব্বির সাত্তার এবং বিশেষ অতিথি ছিলেন উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক সুলতান-উল-ইসলাম, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক হুমায়ুন কবীর ও রেজিস্ট্রার অধ্যাপক মো. আবদুস সালাম। স্কুল পরিচালনা পরিষদের সভাপতি শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক দুলাল চন্দ্র বিশ্বাস এই আয়োজনে সভাপতিত্ব করেন।
রামেবি: রাজশাহী মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (রামেবি) উদ্যোগে শহীদ শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ, বর্ণাঢ্য র‌্যালি, আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল।
এদিন সকালে রামেবি’র অস্থায়ী কার্যালয়ে শহীদ শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। পরে রামেবি কার্যালয় থেকে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়। র‌্যালিটি রামেবি কার্যালয় থেকে বের হয়ে প্রধান সড়ক হয়ে জিপিওর সামনে দিয়ে ঐতিহ্য চত্বর প্রদক্ষিণ করে আবার রামেবি’তে এসে শেষ হয়। এরপর সকাল ১১টায় রামেবির কোষাধ্যক্ষ প্রফেসর ড. রুস্তম আলী আহমেদের সভাপতিত্বে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। সভায় শহীদ শেখ রাসেলের জীবনী নিয়ে আলোচনা করেন, রামেবির রেজিস্ট্রার (অ.দা) ডা. জাকির হোসেন খোন্দকার, পরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) ইঞ্জিনিয়ার সিরাজুম মুনীর, উপ- কলেজ পরিদর্শক ডা. জোহা মোহাম্মদ মেহেরওয়ার হোসেন, সহকারী রেজিস্ট্রার (চ.দা.) রাসেদুল ইসলাম, সেকশন অফিসার শাকিল আহমেদ প্রমুখ।
সভা সঞ্চালনা করেন জনসংযোগ শাখার সেকশন অফিসার জামাল উদ্দীন। এসময় লিয়াজোঁ ও প্রটোকল অফিসার ইসমাঈল হোসেন, সহকারী কলেজ পরিদর্শক (চ.দা) নাজমুল হোসেন, সহকারি প্রোগ্রামার ফারজানা ফাইজাসহ রামেবির সকল কর্মকর্তা কর্মচারি উপস্থিত ছিলেন। শেষে দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন রামেবির কর্মচারী শরিফুল ইসলাম।
রাজশাহী কলেজ: রাজশাহী কলেজ বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করে। এসব কর্মসূচির মধ্যে ছিল আনন্দ র‌্যালি, চিত্রাঙ্কন ও কুইজ প্রতিযোগিতা, দেয়ালিকা প্রকাশ, আলোচনা সভা এবং বিশেষ দোয়া মাহফিল।
সকাল সাড়ে ৯টায় কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহাঃ আব্দুল খালেক ও উপাধ্যক্ষ প্রফেসর মোহাঃ ওলিউর রহমানের নেতৃত্বে বিভিন্ন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান, শিক্ষকমণ্ডলী, কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ ও শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে একটি আনন্দ র‌্যালি কলেজ ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে।
অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহাঃ আব্দুল খালেকের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন কলেজের সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক কমিটির আহ্বায়ক প্রফেসর ড. ইয়াসমীন আকতার সারমিন। মুখ্য আলোচক ছিলেন ইতিহাস বিভাগের প্রভাষক লিটন কুমার সরকার। এছাড়াও আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন উপাধ্যক্ষ প্রফেসর মোহাঃ ওলিউর রহমান, শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক প্রফেসর আবদুল্লাহ আল মাহমুদ, ইতিহাস বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর শাহ তৈয়বুর রহমান চৌধুরী, বিভিন্ন বিভাগের বিভাগীয় প্রধানগণ, শিক্ষকমণ্ডলী এবং শিক্ষার্থীবৃন্দ।
রাজশাহী চেম্বার: রাজশাহী চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের আয়োজনে বোর্ড রুমে কুরআন খতম ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী চেম্বারের সভাপতি মাসুদুর রহমান রিংকু, সহসভাপতি সুলতান মাহমুদ সুমন, পরিচালক শাহাদাৎ হোসেন বাবু, সাদরুল ইসলাম, রিয়াজ আহমেদ খান, আসাদুজ্জামান রবি, মোস্তাফিজুর রহমানসহ অনেকেই।
বিএমডিএ: বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিএমডিএ) আয়োজনে প্রধান কার্যলয়ে শেখ রাসেল এর প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণ করেন বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের নির্বাহী পরিচালক আব্দুর রশীদ সহ কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দ।
আলোচনা সভা সঞ্চালনা করেন (আইবি) সম্মানী সম্পাদক প্রকৌশলী নাজমুল হুদা। বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের নির্বাহী পরিচালক আব্দুর রশীদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন অতি: প্রধান প্রকৌশলী শামসুল হোদা, অতি: প্রধান প্রকৌশলী ড. আবুল কাসেম, অতি: প্রধান প্রকৌশলী জাহাঙ্গীর আমল খান, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী শরীফুল হক, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আব্দুল লতিফ, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী সমশের আলী, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী সুমন্ত কুমার বসাক, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী শহিদুর রহমান, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী শিবির আহমেদ, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী এ.টি.এম মাহফুজুর রহমান, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী (চঃদাঃ) নাজিরুল ইসলাম, প্রকল্প পরিচালক প্রকৌশলী নুর ইসলাম, নির্বাহী প্রকৌশলী আতিকুর রহমান, নির্বাহী প্রকৌশলী সৈয়দ জিল্লুর বারী, নির্বাহী প্রকৌশলী মোস্তাফিজুর রহমান, নির্বাহী প্রকৌশলী সানজিদা খানম মলি, বঙ্গবন্ধু কৃষিবিদ পরিষদ এর সভাপত্বি প্রকৌশলী মোকতাদিউর রহমান, ইঞ্জিনিয়ার ইন্সটিউট সদস্য শরিফুল ইসলাম, ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার এসোসিয়েসন এর সাধারণ সম্পাদক রাহাত পারভেজ, বিএমডিএ কর্মচারী ইউনিয়ন রাজ-১৫০০ এর সভাপতি আবদুস সাত্তার, রাজ-৩০৪২ সিবিএ সভাপতি মেসবাউল হক সহ বরেন্দ্র উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সদর দপ্তর ও অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী, তত্বাবধায়ক প্রকৌশলী, প্রকল্প পরিচালক, নির্বাহী প্রকৌশলী, উপ-ব্যবস্থাপক (কৃষি), মনিটরিং অফিসার ও সহকারী প্রকৌশলীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের বিভিন্ন জোন অফিস, রিজিওন অফিসএ শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পুষ্প অর্পণ ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়।
রাকাব: রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক (রাকাব) প্রধান কার্যালয়ে দিনব্যাপি কর্মসূচি পালন করা হয়। ব্যাংকের ব্যব¯’াপনা পরিচালক নিরঞ্জন চন্দ্র দেবনাথ এর নেতৃত্বে প্রধান কার্যালয়ের বঙ্গবন্ধু অঙ্গনে শেখ রাসেল-এর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য ও পুষ্পস্তবক অর্পণ করার মাধ্যমে কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়। এসময় উপ¯ি’ত ছিলেন উপ-ব্যব¯’াপনা পরিচালক আঃ রহিম; নিরীক্ষা, হিসাব ও আদায় মহাবিভাগের মহাব্যবস্থাপক মাকসুদা নাসরীন, প্রশাসন মহাবিভাগের মহাব্যবস্থাপক (চলতি দায়িত্ব) শওকত শহীদুল ইসলাম, রাকাব, রাজশাহী বিভাগের মহাব্যবস্থাপক আতিকুল ইসলাম, ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়, বিভাগীয় কার্যালয়, বিভাগীয় নিরীক্ষা কার্যালয়, রাজশাহী; প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট; এসইসিপি, রাজশাহী; স্থানীয় মুখ্য কার্যালয়, রাজশাহী’র সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং রাকাব কর্মচারী সংসদ (সিবিএ) এর নেতৃবৃন্দ।
পরবর্তীতে শিশু-কিশোরদের উপস্থিতিতে ব্যাংকের পক্ষ থেকে কেক কাটার মাধ্যমে জন্মদিন পালন করা হয় এবং শেখ রাসেলের আত্মার মাগফেরাত কামনায় বাদ জোহর প্রধান কার্যালয়ের নামাজঘরে আলোচনা ও বিশেষ মোনাজাত করা হয়।
রাজশাহী শিক্ষাবোর্ড: সকালে মুজিব শতবর্ষ স্মারক জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর ম্যুরালে এবং শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ এবং ০১(এক) মিনিট নীরবতা পালনের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু হয়।
এরপর রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর কামরুল ইসলামের সভাপতিত্বে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় শিক্ষা বোর্ডের সকল কর্মকর্তা/কর্মচারীবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের প্রধান মূল্যায়ন অফিসার (চলতি দায়িত্ব) এস. এম. গোলাম আজম।
‘শেখ রাসেল দিবস ২০২৩’ উপলক্ষে স্বাগত বক্তব্য দেন রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের কলেজ পরিদর্শক ও ‘শেখ রাসেল ২০২৩’ উদ্যাপন কমিটির আহ্বায়ক এনামুল হক। এছাড়াও বক্তব্য রাখেন রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের সচিব হুমায়ূন কবীর, হিসাব রক্ষণ অফিসার হোসনে আরা আরজু ও বাংলাদেশ আন্তঃ শিক্ষাবোর্ড কর্মচারী ফেডারেশনের মহাসচিব ও রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের সভাপতি মোহা. হুমায়ূন কবীর।
বাদ আসর রাজশাহী শিক্ষাবোর্ড জামে মসজিদে মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে শাহাদাৎবরণকারী সকল শহিদ এবং ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টে শাহাদাৎবরণকারী সকল শহিদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া এবং বাদ আসর মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়।
সরকারি মহিলা কলেজ: রাজশাহী সরকারি মহিলা কলেজে বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে কলেজ প্রাঙ্গণ হতে নগরীর গুরুত্বপূর্ণ সড়কসমূহে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অংশগ্রহণের আনন্দ র‌্যালী, শেখ রাসেল-এর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ, শেখ রাসেল দেয়ালিকা উম্মোচন, বৃক্ষ রোপন কর্মসূচি, আলোচনা সভা। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. জুবাইদা আয়েশা সিদ্দীকা, প্রধান সমন্বয়ক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কলেজের উপাধ্যক্ষ প্রফেসর ড. নাজনীন সুলতানা এবং এডুকেশন ক্যাডার্স কাউন্সিলের সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন মোল্লা, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক কমিটির আহ্বায়ক মোজাফফার হোসাইন এবং বিভিন্ন বিভাগের সম্মানিত বিভাগীয় প্রধানসহ শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও কর্মচারিবৃন্দ।


প্রকাশিত: অক্টোবর ১৯, ২০২৩ | সময়: ৬:২৮ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ