বর্ষণে ডুবলো বিলকুমারীর ফসল

টিপু সুলতান, তানোর: রাজশাহীর তানোরে ভারী বর্ষণে উপজেলার বিভিন্ন এলাকার পুকুরের মাছ ভেসে গেছে। বিভিন্ন কৌশলে ঘের দিয়েও রক্ষা করা যাচ্ছে না পুকুরের মাছ। সেই সঙ্গে তানোর শিব নদীর পানি বৃদ্ধি হওয়ায় বিলকুমারী বিলের জমির ফসল ডুবে গেছে। কাঁচা ঘরর বাড়ির দেয়াল পড়ে গেছে।
এছাড়াও গ্রামকে গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। অনেক রাস্তাঘাট ডুবে গেছে। এরমধ্যে তানোর পৌর এলাকার নিম্নাঞ্চলে অবস্থিত আমশো তাঁতিয়ালপাড়া, গোকুল মথুরা, তালন্দ, ধানতৈড় ছাড়াও কালিগঞ্জ এবং শিবনা দমদমার বেশ কয়েকটি গ্রামের মানুষ পানি বন্দি হয়ে রয়েছে।
উপজেলা মৎস্য বিভাগের হিসাব মতে, পুরো উপজেলায় পুকুরের সংখ্যা প্রায় ৫ হাজার ৭৭৯টি। গত দুইদিন থেকে ভারী বর্ষণ ও উজান থেকে ঢলের পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় প্রায় ২৫০ টির ওর বেশি পুকুর তলিয়ে যায়। ক্ষতিগ্রস্ত পুকুরের সংখ্যা আরও বাড়বে বলে জানান মৎস্য অফিস। এসব পুকুরে বিভিন্ন জাতের বড় মাছ ও পোনা ছিল। এতে টাকার অঙ্কে ক্ষতির পরিমাণ প্রায় দুই কোটি টাকা ছাড়াবে।
তানোর পৌর এলাকার তালন্দ গ্রামের হেলাল, তাঁতিয়ালপাড়া গ্রামের বাসিন্দা আপেল ও মজিদ জানান, মথুরাপুর মাহাবুর রহমান জানান, ভারী বর্ষণের ফলে শত শত পুকুরের মাছ ভেসে গেছে। বিলকুমারী বিলের জমিতে ফসল ডুবে গেছে।
তানোর উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা বাবুল হোসেন, ভারী বর্ষণে উপজেলার বিভিন্ন এলাকার পুকুরের মাছ ভেসে গেছে বলে খবর পাওয়া গেছে। তানোর উপজেলা কৃষি অফিসার সাইফুল্লাহ আহম্মদ বলেন, শিবনদীর বিলকুমারী বিলে পানি বৃদ্ধির কারণে ধানের চারা ডুবে গেছে। প্রায় ২০৫ হেক্টর জমির ফসল ডুবে গেছে। দ্রুত পানি নেমে গেলে ধানের চারাগুলো নষ্ট হবে না।
তানোর উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা বিল্লাল হোসেন বলেন, ভারী বর্ষণের কারণে পুকুরের মাছ ভেসে গেছে, শিবনদীর পানি বৃদ্ধি হওয়ায় ফসলের ক্ষতি হয়েছে, বিভিন্ন গ্রামের গরীব মানুষের কাঁচা ঘর বাড়ি পড়ে গেছে। আমরা ক্ষতিগ্রস্থদের তালিকা তৈরি করছি। গরীব মানুষদের সহযোগিতা করা হচ্ছে।


প্রকাশিত: অক্টোবর ৭, ২০২৩ | সময়: ৬:৩৮ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ