মান্দায় সিএনজিচালিত অটোরিকশার অবাধ চলাচলের দাবিতে মানববন্ধন

মান্দা প্রতিনিধি: নওগাঁ-রাজশাহী আঞ্চলিক মহাসড়কে অবাধে সিএনজিচালিত অটোরিকশা চলাচলের দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে সিএনজি মালিক-শ্রমিক সমিতি। সোমবার দুপুরে নওগাঁর মান্দা উপজেলার সাবাইহাট বাসস্ট্যাণ্ড এলাকায় মানববন্ধনে অংশ নেন শতাধিক সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক ও মালিক।
সিএনজি মালিক সমিতি সাবাইহাট শাখার সভাপতি শফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, নওগাঁ জেলা সিএনজি মালিক সমিতির সহসভাপতি শরিফুল ইসলাম (বাবু), জেলা সিএনজি মালিক সমিতির সাবেক সভাপতি শাহিন আলম, সাবাইহাট শাখার সাধারণ সম্পাদক সোহেল রানা, জেলা সিএনজি মালিক সমিতির সদস্য আমিনুল ইসলাম, এনামুল হক প্রমুখ।
মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, দীর্ঘদিন ধরে জেলা মালিক সমিতি নওগাঁ-রাজশাহী মহাসড়কের ফেরিঘাট ও চৌদ্দমাইল এলাকায় অবৈধ চেকপোস্ট বসিয়ে লাঠিয়াল বাহিনী দিয়ে মহাসড়কে সিএনজিচালিত অটোরিকশা চলাচলে বাধা সৃষ্টি করে আসছে।
গত ২৮ আগস্ট বাস মালিক সমিতি নওগাঁ-রাজশাহী মহাসড়কের মোহাম্মদপুর সাইনবোর্ড এলাকায় নতুন করে চেকপোস্ট বসিয়ে অটোরিকশা চলাচলে বাধা সৃষ্টি করে। গত ২৯ আগস্ট সিএনজি-পিকআপের চালক ও মালিকেরা এ চেকপোস্ট বসানোর প্রতিবাদ করতে গেলে বাস মালিক সমিতির লোকজন তাঁদেরকে মারধর করে। বর্তমানে বাস মালিক সমিতির লোকজন নওগাঁ-রাজশাহী মহাসড়কে কোনো সিএনজি চলাচল করতে দিচ্ছে না।
তাঁরা বলেন, মহাসড়কে সিএনজি অটোরিকশা চালাতে না পেরে গত এক সপ্তাহ ধরে সিএনজির চালক ও মালিকের আয়-উপার্জন বন্ধ হয়ে গেছে। উপার্জন বন্ধ হয়ে যাওয়ায় অনেক চালক ও মালিক কিস্তির টাকা পরিশোধ করতে পারছেন না। এভাবে চলতে থাকলে সিএনজি মালিক ও শ্রমিকদের পথে বসতে হবে। অনেকে ধারদেনা ও ঋণ নিয়ে সিএনজি কিনে সংসার চালায়। কিন্তু বাস মালিকদের একচ্ছত্র আধিপত্যের কারণে তারা সিএনজি চালাতে পারছেন না। পরিবার-পরিজন নিয়ে দুর্বিসহ জীবন কাটাতে হচ্ছে তাদের।
সিএনজি মালিক সমিতি সাবাইহাট শাখার সভাপতি শফিকুল ইসলাম বলেন, নওগাঁ-রাজশাহী মহাসড়কে অবাধে সিএনজি চলাচলের দাবিতে গতকাল রোববার জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, মান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন দপ্তরে সিএনজি মালিক সমিতির পক্ষ থেকে স্মারকলিপি দেওয়া হয়েছে।
বিষয়টি নওগাঁ-৪ (মান্দা) আসনের সংসদ সদস্য ইমাজ উদ্দিন প্রামাণিককেও জানানো হয়েছে। কিন্তু এখন পর্যস্ত কারও পক্ষ থেকে কোনো উদ্যোগ নিতে দেখা যাচ্ছে না। মানবিক দিক বিবেচনা করে মহাসড়কে দ্রুত সিএনজি চলাচলের উদ্যোগ নেওয়ার দাবি জানাচ্ছি।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের সড়ক সম্পাদক দেবাশীষ রায় বলেন, সিএনজি অটোরিকশা অবৈধ যানবাহন। এসব যান মহাসড়কে অবাধে চলাচলের কারণে প্রতিনিয়ত সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানী ঘটছে। এছাড়া ধীরগতির এসব যান মহাসড়কে চলাচলের কারণে বাস চলাচলে ব্যাঘাত ঘটছে। এসব যান চলাচল বন্ধের জন্য আমরা বারবার প্রশাসনকে বলেছি। কিন্তু কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।
দেবাশীষ রায় আরও বলেন, বাসসহ বড় গাড়ির চলাচল নির্বিঘ্ন করতে অবৈধ যানবাহন যাতে চলাচল করতে না পারে সেটি দেখার জন্য বাস পরিবহন মালিক ও শ্রমিকেরা চেকপোস্ট বসিয়েছে। মান্দার মোহাম্মদপুর চেকপোস্টে গত ২৯ আগস্ট হামলা চালিয়ে আমাদের কয়েকজন শ্রমিককে আহত করেছে সিএনজির লোকজন। এ বিষয়ে মান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোজাম্মেল হক কাজী বলেন, বাস মালিক ও সিএনজি-পিকআপ মালিক-শ্রমিকদের মধ্যকার দ্বন্দ্ব নিরসনে উভয়পক্ষের সঙ্গে আলোচনা করা হচ্ছে। আশা করছি, খুব তাড়াতাড়ি চলমান সমস্যার একটা সমাধান হয়ে যাবে।


প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৫, ২০২৩ | সময়: ৬:২৯ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ