বাগমারায় বিয়ের চার দিন পরে হাতের মেহেদী না শুখাতেই স্বামীকে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা !

বাগমারা প্রতিনিধি:
রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার বাসুপাড়া ইউনিয়নে বিয়ের চার দিন পর হাতের মেহেদী না শুখাতেই শাপলা (১৮) নামের এক নববধূ তার স্বামীকে বালিশ চাপা দিয়ে খুন করেছে বলে জানা গেছে। নিহত ওই স্বামীর নাম আব্দুর রাজ্জাক (২২)। পুলিশ মঙ্গলবার (২৯আগষ্ট) সকালে ওই নববধূকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করেছে। এই ঘটনায় বাগমারা থানায় নিহতের মা আফরোজা বাদি হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

 

 

 

বাগমারা থানা পুলিশ ও নিহতের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, গত শুক্রবার উপজেলার বাসুপাড়া ইউনিয়নের সাঁইপাড়া গ্রামের রফিকুল ইসলামের ছেলে আব্দুর রাজ্জাকের সাথে পার্শ্ববর্তি মোহনপুর উপজেলার ধুরইল গ্রামের আব্দুস শুকুরের মেয়ে শাপলার সাথে পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয়। গত শনিবার ঘটা করে নিহতের বাড়িতে বৌ-ভাতের আয়োজনও হয়েছে। এর পরে সোমবার রাতে কোন এক সময় ওই নববধূ স্বামীকে বালিশ চাপা দিয়ে খুন করে। পরে সকালে ছেলেকে না দেখতে পেয়ে ছেলের ঘরের ভিতরে নিহতের মা আফরোজা লাশ দেখে চিৎকার করতে থাকে। পরে লোকজন এসে নববধূকে আটক রেখে থানায় খবর দিলে পুলিশ নববধূ কে গ্রেফতার করে। এদিকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

 

 

 

 

স্থানীয় বাসুপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান জানান, ঘটনার পর পরই গিয়ে নিহতের লাশ সনাক্ত করা হয়েছে। প্রাথমিক ভাবে তাকে বালিশ চাপা দিয়ে খুন করা হয়েছে বলে আলামত পাওয়া গেছে। তবে অনেকের ধারনা প্রথমে পুরুষাঙ্গে আঘাতের পর বালিশ চাপা দিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করেছে পাষন্ড স্ত্রী।এ ব্যাপারে বাগমারা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আমিনুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, পুলিশ খবর পেয়ে সকালে নিহতের লাশ উদ্ধার করেছে। নিহতের শরীরে একাধিক জখম দেখে মনে হচ্ছে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। নিহতের লাশ সুরতহাল প্রতিবেদনপ্রস্তত করে ময়নাতদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে এছাড়া অভিযুক্ত নববধূ কে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

সানশাইন/সোহরাব


প্রকাশিত: আগস্ট ২৯, ২০২৩ | সময়: ৯:৪৯ অপরাহ্ণ | Daily Sunshine