বহির্বিশ্ব রাজনীতিতে হস্তক্ষেপ করছে, অভিযোগ বিএনপির

সানশাইন ডেস্ক: বাংলাদেশের রাজনীতিতে বহির্বিশ্বের হস্তক্ষেপ চলছে মনে করে বিএনপি। দলটির নেতারা বলেছেন, বাইরের কোনও শক্তি নয়, বরং দেশের মানুষের সঙ্গে বন্ধুত্বের মধ্য দিয়েই গণতন্ত্র উদ্ধার হবে। পাশাপাশি নেতারা এ-ও দাবি করে বলেন, সরকার ধারণা করছে ক্ষমতা ছাড়লে তাদের ‘মারধর’ করা হবে। তারা সরকারকে ভয় না পাওয়ার আহ্বানও জানান।
শুক্রবার রাজধানীতে অনুষ্ঠিত কালো পতাকা মিছিলের আগে নয়াপল্টনের সমাবেশে এসব কথা বলেন বিএনপির সিনিয়র নেতারা। দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেন, বহির্বিশ্ব আজ দেশের রাজনীতিতে হস্তক্ষেপ করছে। একটি দেশ বলছে এই সরকারকে আবার লাগবে। আমি বলতে চাই, সরকার নয়, দেশের জনগণের সঙ্গে বন্ধুত্ব করুন। আজ এ সরকারের অধীনে নির্বাচন দেশের জনগণ মানে না। বিনা ভোটের নির্বাচনের স্বপ্ন আর বাস্তবায়ন করতে দেওয়া হবে না।
তিনি বলেন, ভোট ও বাকস্বাধীনতার জন্য পাকিস্তানিদের বিরুদ্ধে যখন সংগ্রাম করেছি, তখন তারা বাঙালির ওপর গুলি চালাতো, লাঠিচার্জ করতো। তারা তো ছিল পাকিস্তানি পুলিশ। আজ একই দাবিতে আমরা আন্দোলন করছি। আজও গুলি চালানো হচ্ছে। আপনারা (আইনশৃঙ্খলা বাহিনী) কি বিদেশি পুলিশ? নিজ দেশের জনগণের ওপর গুলি চালাচ্ছেন।
তিনি বলেন, আমরা দীর্ঘদিন ধরে দ্রব্যমূল্য, তেল গ্যাস ও বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদ জানিয়ে আসছি। সরকার কানে শোনে না। আজ ডিমের দাম ১৫ টাকা। এদের দুর্নীতির কারণে টাকার মান কমে গেছে। যারা ব্যাংকে টাকা রেখেছেন, তারা লাভের পরিবর্তে ১৪ শতাংশ টাকা কম পাবেন। আজ বিদ্যুতের কার্ড থেকেও হাজার হাজার কোটি টাকা লুট হচ্ছে। সর্বক্ষেত্রে লুটপাট। এ সরকার বিদায় করতে না পারলে দেশের মানুষ মারা যাবে। স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব হুমকির মুখে পড়বে।
স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, সরকারের ভেতর ধারণা সৃষ্টি হয়েছে তারা ক্ষমতা ছাড়লে তাদের ‘মারধর’ করা হবে, তাদের বাড়িঘরে হামলা হবে। ভয়ের কারণ নেই। বিএনপি গণমানুষের দল। আপনাদের (আওয়ামী লীগ) মতো দানবের দল নয়। আমাদের বিবেক-বুদ্ধি আছে। তবে যে অন্যায়-অত্যাচার করছেন, সে জন্য দেশের ১৮ কোটি মানুষ আপনাদের ক্ষমা করবে কিনা জানি না।’
ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আয়োজিত এই কালো পতাকা মিছিলপূর্ব সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির আহ্বায়ক আব্দুস সালাম। ঢাকা দক্ষিণ বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক লিটন মাহমুদ ও আনম সাইফুল ইসলামের সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য দেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ভাইস চেয়ারম্যান বরকতউল্লাহ বুলু, মোহাম্মদ শাহজাহান, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক রকিবুল ইসলাম বকুল, যুবদল সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল প্রমুখ। বিকাল সাড়ে ৪টায় নয়াপল্টন থেকে এ কালো পতাকা মিছিল শুরু হয়। এটি মতিঝিল, ইত্তেফাক, টিকাটুলী হয়ে দয়াগঞ্জ মোড়ে গিয়ে শেষ হয়।


প্রকাশিত: আগস্ট ২৬, ২০২৩ | সময়: ৪:৫৯ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ