জাতিগত সহিংসতায় একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু দেখলো মণিপুর

সানশাইন ডেস্ক: ভারতের জাতিগত দাঙ্গা কবলিত রাজ্য মণিপুরে নতুন করে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়েছে। শনিবার ভোর থেকে গত ২৪ ঘণ্টায় সেখানে ছয় জন নিহত হয়েছেন।
বিষ্ণুপুর-চূড়াচাঁদপুর সীমান্ত এলাকায় শনিবার দিনভর সংঘর্ষে আরো অন্তত ১৬ জন আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভি। সহিংসতা প্রতিরোধে দেশটির সেনাবাহিনী ওই এলাকায় চিরুনি তল্লাশি শুরু করেছে। গুলিতে আহত অন্তত একজন সন্ত্রাসীকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে।
রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি অব্যাহত থাকায় ইম্ফল ইস্ট ও ইম্ফল ওয়েস্ট জেলায় রোববারও কারফিউ বজায় থাকবে বলে জানিয়েছে পুলিশ মণিপুরে সর্বশেষ এই জাতিগত সংঘাত শুরু হওয়ার পর সবচেয়ে প্রাণঘাতী দিন ছিল শনিবার। বিষ্ণুপুর-চূড়াচাঁদপুর সীমান্ত এলাকায় সারাদিন ধরে উভয় পক্ষ মর্টার ও গ্রেনেড হামলা চালিয়েছে। সেইসঙ্গে দিনভর চলেছে ভারি গোলাগুলি।
শনিবার সূর্যোদয়ের আগেই বিষ্ণুপুর জেলার কোয়াকতা এলাকায় একটি গ্রামে বাবা ও ছেলেসহ অজ্ঞাত পরিচয়ের তিন ব্যক্তিকে হত্যা করা হয়। নিহত ব্যক্তিরা একটি শরণার্থী ক্যাম্পে বসবাস করছিলেন। নিজেদের গ্রাম পাহারা দিতে শুক্রবারই তারা ফিরেছিলেন। নিহত তিন জনের মধ্যে দুইজনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কোপানো হয় বলে জানিয়েছেন নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা। পরে খুব কাছ থেকে তাদের গুলি করে হত্যা করা হয়।
ওই হত্যাকাণ্ডের প্রতিশোধ নিতে দ্রুতই পাল্টা আক্রমণ শুরু হয়। তারা কোয়াকতার প্রতিবেশী দুই গ্রাম ফুজাং সংডোতে হামলা চালায়। অস্ত্রধারীরা প্রাকশ্যেই গুলি চালায় এবং মর্টার শেল ছোড়ে। হামলায় দুইজন নিহত এবং বেশ কয়েজন আহত হন। বিষ্ণুপুর জেলার তেরখাংসাংবিতে একযোগে হামলায় আরো একজন নিহত ও তিনজন আহত হন। আহতদের মধ্যে একজন পুলিশ কমান্ডারও রয়েছেন। তার গুলি লেগেছে।
ভারতের উত্তরপূর্বাঞ্চলীয় এ রাজ্যের সংখ্যাগরিষ্ঠ অধিবাসী মেইতেইরা সম্প্রতি জনজাতি সম্প্রদায়ের মর্যাদা দাবি করেছে। এই নিয়ে সংখ্যালঘু জনজাতি সম্প্রদায় কুকিদের সঙ্গে তাদের জাতিগত দাঙ্গা শুরু হয়। গত তিন দিন ধরে মণিপুরে তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে। বৃহস্পতিবার বিষ্ণুপুরে পুলিশের অন্তত দু’টি নিরাপত্তা ফাঁড়িতে হামলা চালিয়ে স্বয়ংক্রিয় বন্দুকসহ অস্ত্রশস্ত্র ও গোলাবারুদ লুট করে নিয়ে যায় উচ্ছৃঙ্খল জনতা। ইম্ফলে ওয়েস্টে আরেক ঘটনায় গোলাগুলিতে এক পুলিশ কর্মকর্তা নিহত হন।
পুলিশ জানিয়েছে, মণিপুরের পাহাড়ি ও উপত্যকার জেলাগুলোতে মোট ১২৯টি চেকপয়েন্ট বসানো হয়েছে। রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে প্রায় ১০৪৭ জনকে আটক করা হয়েছে। মিয়ানমারের সীমান্তবর্তী মণিপুরে ৩ মে থেকে জাতিগত সহিংসতা চলছে। তারপর থেকে ৩২ লাখ অধিবাসীর এই ভারতীয় রাজ্যটিতে ১৮০ জনেরও বেশি মানুষ নিহত ও কয়েক হাজার বাস্তুচ্যুত হয়েছেন।


প্রকাশিত: আগস্ট ৭, ২০২৩ | সময়: ৫:৫৩ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ