সাড়েচার বছর ধরে কবরে অমলিন কাফনে একব্যক্তির অবিকল শরীর

সাপাহার প্রতিনিধি: নওগাঁর সাপাহারে সহিদুল ইসলাম (৪৬) নামে এক ব্যক্তির মৃতদেহ চার বছর সাতমাস পর অবিকল দেখা গেলো। এমনকি তার শরীরে পরানো কাফনের কাপড়ও নষ্ট হয়নি, রয়েছে অমলিন। গতকাল সোমবার সকালে কবরটি আবারো বাঁশ ও মাটি দিয়ে আবারো মেরামত করে দেওয়া হয়েছে।
স্থানীয়রা জানান, সাপাহার উপজেলার গোডউনপাড়া শিমুলতলী গ্রামে মৃত জাফর আলীর ছেলে সহিদুল ইসলাম (৪৬) গত ২০১৮ সালে ২৮ ডিসেম্বর রাতে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পরদিন সকালে তার মৃত্যু হয়। তাকে শিমুলতলী গ্রামের সরকারী কবরস্থানে লাশ দাফন করা হয়।
মৃত ব্যাক্তির ভাই আনসারুল ও নজরুল জানান, প্রায় ৪ বছর ৭ মাস পূর্বে তার ভাই সহিদুল ইসলামকে সমাহিত করা হয়েছিল। কয়েক দিনের বৃষ্টিতে পুরাতন এই কবরটি দেবে গিয়ে সুূড়ঙ্গের সৃষ্টি হয়। সোমবার সকালে ওইপথ দিয়ে হেঁটে যাওয়া কয়েকজন পথিক দেবে যাওয়া কবরের সুড়ঙ্গ দিয়ে ভিতরে থাকা মৃতদেহের কাফনের কাপড় সম্পুর্ণ অক্ষত দেখতে পায় এবং গ্রামে সংবাদ দেয়।
সংবাদ পেয়ে ভাই আনসারুল, নজরুল সহ শতশত মানুষ লাশটি একনজর দেখার জন্য ওই কবরস্থানে ভিড় জমান। সরেজমিনে কবরস্থানে গিয়ে জানা যায় মৃত ব্যক্তির আপনজন ও গ্রামবাসী মিলে পুরনায় কবরটি পূর্বের মতো করে নতুন বাঁশ দিয়ে মেরামত করে দিয়েছেন।
কবর মেরামতকারীরা জানান, প্রায় সাড়ে ৪ বছর কবরে থাকা মৃতদেহটি এতদিনে গলে পচে যাওয়ার কথা, কিন্তু সৃষ্টিকর্তার ইচ্ছায় তা ঝকঝকে তকতকে নতুন কাফন পরিহিত অবস্থায় দেখা যায়। মৃত ব্যক্তির শরীরে পরানো কাফনের কাপড় দেখে মনে হচ্ছিল এখনই হয়তো দাফন করা হয়েছে।
বিষয়টি ইসলাম ধর্মীয় কিছু আলেম ওলামাদের বললে তারা জানান, নিশ্চয় ব্যক্তিটির বিষেশ ভাল আমল ছিল। এতদিন কোন ব্যক্তির লাশ কবরে অক্ষত থাকার কথা নয়, নিশ্চয়ই ওই ব্যক্তি ভাল মানুষ ছিলেন, তার আমলে আল্লাহপাক মানুষকে তা দেখিয়ে দিলেন। সৎ এবং আল্লাওয়ালা মানুুষের মৃতদেহ সহজে মাটি খেতে পারে না, আল্লাহ পাক কবরে তা হেফাজত করেন। এটি তাঁরই এক অনন্য নিদর্শন বলে মতামত ব্যক্ত করেন আলেমরা।


প্রকাশিত: আগস্ট ১, ২০২৩ | সময়: ৬:২৯ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ