সর্বশেষ সংবাদ :

তৃতীয় প্রয়াণ দিবসে শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় প্লেব্যাক সম্রাট এন্ড্রু কিশোরকে স্মরণ

স্টাফ রিপোর্টার : তৃতীয় প্রয়াণ দিবসে রাজশাহীতে দেশের প্লেব্যাক সম্রাট এন্ড্রু কিশোরকে স্মরণ করা হয়েছে। প্রয়াণ দিবসে এই গুণী শিল্পীকে স্ম§রণ করে রাখতে বৃহস্পতিবার ওস্তাদ আব্দুল আজিজ স্মৃতি সংসদের আয়োজনে তাঁর সমাধিস্থলে স্মৃতিচারণ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সভার আগে ওস্তাদ আব্দুল আজিজ স্মৃতি সংসদ এবং নৃবাগী সংগীত বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধাঞ্জলী জানানো হয়। সেসঙ্গে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।
কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন ওস্তাদ আব্দুল আজিজ স্মৃতি সংসদের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মঈনুল ইসলাম খোকন, সহ-সভাপতি কাজী সুলতান মাহমুদ ও সাবিনা আঞ্জুম শাপলা, সাংস্কৃতিকবিষয়ক সম্পাদক শফি মাহমুদ লেলিন, প্রচার সম্পাদক সঞ্জু আহম্মেদ, অর্থ সম্পাদক শফিকুল আলম বাবু। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন এন্ড্রু কিশোরের সহধর্মিণী লিপিকা এন্ড্রু, শিল্পি আব্দুল্লা ফিরোজসহ আরো অনেকে।
এন্ড্রু কিশোরের সহধর্মিণী লিপিকা এন্ড্রু বলেন, তার স্বামীর স্মৃতি রক্ষায় দেশে একটি স্টার গ্যালারি করা প্রয়োজন। একইসঙ্গে তার গানগুলো যেন হারিয়ে না যায় তার ব্যবস্থা করার কথাও উল্লেখ করেন তিনি।
এদিকে কণ্ঠশিল্পি আব্দুল্লাহ আল ফিরোজ বলেন, কালজয়ী এই শিল্পির স্মৃতি রক্ষার্থে রাজশাহীতে সড়ক কিংবা যেকোনো প্রতিষ্ঠানের নামকরণ ও তার একটি প্রতিকৃতি করা প্রয়োজন। এগুলো করার জন্য রাসিক মেয়রকে অনুরোধ করেন তিনি।
প্রসঙ্গত, বাংলা গানের কিংবদন্তি শিল্পী এন্ড্রু কিশোরের তৃতীয় প্রয়াণ দিবস ছিলো বৃহস্পতিবার। ১৯৫৫ সালের ৪ নভেম্বরে রাজশাহীতে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। চার দশকেরও বেশি সময় ধরে সুরের জাদুতে সংগীতপ্রেমীদের মাতিয়ে রেখে না ফেরার দেশে চলে যান ২০২০ সালের ৬ জুলাই। মৃত্যুবার্ষিকীতে পারিবারিকভাবেও প্রার্থনাসহ বিভিন্ন আয়োজনে স্মরণ করা হয়।
মানুষের সুখ-দুঃখ, হাসি-আনন্দ, প্রেম-বিরহ সব অনুভূতির গানই তার কণ্ঠে পেয়েছে অনন্য মাত্রা। তার শত শত কালজয়ী গান এখনো মানুষের মুখে মুখে।
এন্ড্রু কিশোরের বাবা ক্ষীতিশ চন্দ্র বাড়ৈ এবং মাতা মিনু বাড়ৈ রাজশাহী মহানগরীর বুলনপুর মিশন গার্লস হাই স্কুলের শিক্ষক ছিলেন। মায়ের কাছেই তার পড়াশোনার হাতেখড়ি। তার মা ছিলেন সংগীত অনুরাগী, তার প্রিয় শিল্পী ছিলেন কিশোর কুমার। প্রিয় শিল্পীর নামানুসারে সন্তানের নাম রাখেন কিশোর। মায়ের স্বপ্নপূরণ করতেই সংগীতাঙ্গনে পা রাখেন এন্ড্রু কিশোর।
রাজশাহীর ওস্তাদ আব্দুল আজিজ বাচ্চুর অধীনে প্রাথমিকভাবে সংগীতে পাঠ গ্রহণ শুরু করেন এন্ড্রু কিশোর। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের পর নজরুল সংগীত, রবীন্দ্র সংগীত, আধুনিক, লোকসংগীত ও দেশাত্মবোধক গানের শিল্পী হিসেবে রাজশাহী বেতারে তালিকাভুক্ত হন।
এন্ড্রু কিশোর চলচ্চিত্রে প্লেব্যাক শুরু করেন ১৯৭৭ সালে আলম খান সুরারোপিত ‘মেইল ট্রেন’ চলচ্চিত্রের ‘অচিনপুরের রাজকুমারী নেই যে তার কেউ’ গানের মধ্য দিয়ে। তার রেকর্ডকৃত দ্বিতীয় গান বাদল রহমান পরিচালিত ‘এমিলের গোয়েন্দা বাহিনী’ চলচ্চিত্রের ‘ধুম ধাড়াক্কা’। তবে এ জে মিন্টু পরিচালিত ১৯৭৯ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘প্রতিজ্ঞা’ চলচ্চিত্রের ‘এক চোর যায় চলে’ গানটি গেয়ে শ্রোতাপ্রিয়তা লাভ করেন।
রাজশাহী প্রেসক্লাবে সভা : এদিকে রাজশাহীর কৃতি সন্তান আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন প্লেব্যাক সম্রাট এন্ড্রু কিশোরের ৩য় মৃত্যুবার্ষিকী যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করেছে রাজশাহী প্রেসক্লাব ও জননেতা আতাউর রহমান স্মৃতি পরিষদ। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেল ৫ টায় রাজশাহী প্রেসক্লাব মিলনায়তনে স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় এন্ড্রু কিশোরের নামে সঙ্গীত বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠাসহ যাঁরা রাজশাহী অঞ্চলকে জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে পরিচিত করেছেন তাঁদের স্মৃতি সংরক্ষণের উদ্যোগ গ্রহণের আহ্বান জানানো হয়। শাহ্ মখদুমের পূণ্যভূমিতে অনেকে সূর্যসন্তান জন্মগ্রহণ করেছেন। যাঁদের জীবনসংগ্রাম, আদর্শকে নতুন প্রজন্মের মাঝে ছড়িয়ে দিতে তাঁদের নামে নগরীর গুরুত্বপূর্ণ স্থানের নামকরণ এখন সময়ের দাবি। এ ব্যাপারে আমরা সারাদেশকে পথ দেখাতে চাই। প্রয়োজনে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার হবে বলে জানান বক্তারা।
স্মরণ সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন- রাজশাহী প্রেসক্লাবের আজীবন সদস্য বীরমুক্তিযোদ্ধা কলামিস্ট প্রশান্ত কুমার সাহা।
রাজশাহী প্রেসক্লাব ও জননেতা আতাউর রহমান স্মৃতি পরিষদের সভাপতি সাইদুর রহমানের সভাপতিত্ব এবং সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট মো. আসলাম-উদ-দৌলার পরিচালনায় স্মরণ সভায় আরো বক্তব্য রাখেন- রাজশাহী প্রেসক্লাবের আজীবন সদস্য গোলাম সারওয়ার, জননেতা আতাউর রহমান স্মৃতি পরিষদ সহ-সভাপতি ও রাজশাহী বারের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট সিরাজী শওকত সালেহিন এলেন, জননেতা আতাউর রহমান স্মৃতি পরিষদ সহ-সভাপতি সালাউদ্দিন মিন্টু, রাজশাহী প্রেসক্লাবের যুগ্ম-সম্পাদক জামাল উদ্দিন, রাজশাহী প্রেসক্লাব সদস্য মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি সংগ্রাহক ওয়ালিউর রহমান বাবু, রাজশাহী প্রেসক্লাব সদস্য সিনিয়র সাংবাদিক সুব্রত দাস, দৈনিক বাংলাদেশ সমাচারের আল আমিন, জননেতা আতাউর রহমান স্মৃতি পরিষদের সিনিয়র সদস্য মোহাম্মদ মাজেদ, রাতুল সরকার, সাগর নোমানি, সাজেদুল হক টিটু, আরিফুল ইসলাম, ফুটপাত ব্যবসায়ী সমিতির নেতা আইয়ুব আলী তালুকদার প্রমুখ।


প্রকাশিত: জুলাই ৭, ২০২৩ | সময়: ৫:৪০ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ