সর্বশেষ সংবাদ :

বড়াইগ্রামে দুটি দোকানসহ সাতটি বাড়ি ভাংচুর : সাবেক ও বর্তমান চেয়ারম্যানের সমর্থকদের সংঘর্ষে আহত ১২

বড়াইগ্রাম প্রতিনিধি: নাটোরের বড়াইগ্রামে ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দ্বন্দের জের ধরে আওয়ামী লীগ দলীয় সাবেক ও বর্তমান দুই চেয়ারম্যানের সমর্থকদের সংঘর্ষে শিশুসহ ১২ জন আহত হয়েছে। এ ঘটনায় দুটি মুদি দোকানসহ উভয়পক্ষের সাতটি বাড়ি ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। মঙ্গলবার সকালে উপজেলার নগর ইউনিয়নের মকিমপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
সংঘর্ষে আহতদের মধ্যে উপজেলার মকিমপুর গ্রামের রুস্তম আলী মন্ডল (৬০), তার ছেলে হাসান আলী মন্ডল (৩০) ও ভাই এজার উদ্দিন মন্ডল (৪৫) এবং আতাহার আলী প্রামাণিকের স্ত্রী চম্পা খাতুন (৩৮) ও শিশু কন্যা আসফিয়া খাতুন (৭ মাস) কে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং আলতাফ হোসেন প্রামাণিক (৩৮), জমিন আলী প্রামাণিক (৫০), রুস্তম আলী প্রামাণিক (৫৫), রেহেনা বেগম (৪৫), আবু হানিফ প্রামাণিক (৫৮) এবং লালপুর উপজেলার কদিমচিলান গ্রামের জহুরুল ইসলাম প্রামাণিক (৩৫) কে বড়াইগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আহত ও স্থানীয়রা জানান, গত ইউপি নির্বাচনের পর থেকে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান নীলুফার ইয়াসমিন ডালুর সমর্থক আতাহার আলী প্রামাণিক পক্ষের সঙ্গে বিদ্রোহী প্রার্থী ও বিজয়ী চেয়ারম্যান মোস্তফা শামসুজ্জোহা ওরফে সাহেব আলীর সমর্থক নজরুল ইসলাম পক্ষের দ্বন্দ্ব চলছিল। নির্বাচনের পর থেকে এ দুই পক্ষের মধ্যে একাধিকবার সংঘর্ষ ও মামলা-মোকদ্দমার ঘটনাও ঘটেছে।
মঙ্গলবার সকালে এসএসসি পরীক্ষা দিতে যাওয়ার সময় নজরুল ইসলাম পক্ষের মহিবুর নামে এক পরীক্ষার্থীকে আতাহার আলীর লোকেরা রাস্তায় বাধা দেয়। খবর পেয়ে রুস্তম আলী মন্ডলসহ কয়েকজন সেখানে গেলে আতাহার আলীর লোকজন তাদের কুপিয়ে জখম করে। পরে রুস্তম আলীর স্বজনরা এগিয়ে গেলে সংঘর্ষ বাধে। এতে শিশুসহ উভয় পক্ষের ১২ জন আহত হয়।
এ সময় লালন মিয়ার মুদি দোকান ও বাড়ি, দুলাল হোসেনের মুদি দোকান ও বাড়িসহ জামাল উদ্দিন, আতাহার আলী প্রামাণিক, রুস্তম আলী প্রামাণিক, আলতাফ হোসেন ও জয়নাল আবেদীনের বাড়িঘর ও আসবাবপত্র ভাংচুরের ঘটনা ঘটে।
সাবেক চেয়ারম্যান নীলুফার ইয়াসমিন ডালু বলেন, নির্বাচনের পর থেকে আতাহার আলীসহ যারা নৌকার নির্বাচন করেছে তাদের উপর প্রতিপক্ষ বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকরা মারপিটসহ নানাভাবে হুমকি দিয়ে আসছে। এ ব্যাপারে একাধিকবার উদ্যোগ নিয়েও মিমাংসা করা সম্ভব হয়নি।
এ ব্যাপারে কথা বলার জন্য বিদ্রোহী প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান মস্তফা শামসুজ্জোহার মোবাইলে একাধিকবার কল দিলেও সুইচ অফ রাখায় তার সঙ্গে কথা বলা সম্ভব হয়নি।
বড়াইগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ আবু সিদ্দিক বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত ব্যাক্তিদের গ্রেফতারে মাঠে নেমেছে পুলিশ।


প্রকাশিত: মে ১০, ২০২৩ | সময়: ৫:১১ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ

আরও খবর