সর্বশেষ সংবাদ :

রাজশাহী মহানগর জাতীয়তবাদী শ্রমিক দলের মে দিবস পালন

স্টাফ রিপোর্টার:
‘শ্রমিক-মালিক ঐক্য গড়ি, স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তুলি’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে বাংলাদেশ জাতীয়তবাদী শ্রমিক দল রাজশাহী মহানগর শাখার আয়োজনে মে দিবস পালিত হয়। সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় রাজশাহী মহানগরীর মালোপাড়া¯’ বিএনপি দলীয় কার্যালয়ের সামনে এ বিষয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার অন্যতম উপদেষ্টা, সাবেক মেয়র ও সংসদ সদস্য জননেতা মিজানুর রহমান মিনু।

 

 

 

 

 

চাল, ডাল, তেল, গ্যাস, বিদ্যুৎসহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম কমানো, নির্দলীয় ও নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবী, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে মে দিবসের আলোচনা সভায় শ্রমিক দল রাজশাহী মহানগরের সভাপতি রফিকুল ইসলাম পাখির সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক, রাজশাহী মহানগরের সাবেক সভাপতি ও রাসিক সাবেক মেয়র মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল, বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির ত্রান ও পুনর্বাসন বিষয়ক সহ-সম্পাদক ও রাজশাহী মহানগরের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট শফিকুল হক মিলন, রাজশাহী মহানগর বিএনপি’র আহ্বায়ক এডভোকেট এরশাদ আলী ঈশা ও সদস্য সচিব মামুন অর রশিদ।

 

 

 

 

 

 

 

এছাড়াও যুবদল কেন্দ্রীয় কমিটির রাজশাহী বিভাগীয় সহ-সভাপতি ও রাজশাহী মহানগর যুবদলের আহ্বায়ক মাহফুজুর রহমান রিটন ও সদস্য সচিব রফিকুল ইসলাম রবি, রাজশাহী মহানগর শ্রমিক দলের সাধারণ সম্পাদক রফিক উদ্দিন, সহ-সভাপতি বাবর আলী, নুর সালাম, মোস্তাফিজুর রহমান ও মানিক, মহানগর স্বে”ছাসেবক দলের সদস্য সচিব আসাদুজ্জামান জনি এবং ছাত্রদল রাজশাহী মহানগরের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আকবর আলী জ্যাকিসহ শ্রমিক দলের অন্যান্য নেতৃবৃন্দসহ বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের অন্যান্য নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

 

 

 

 

 

প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্যে বলেন, শ্রমিকদের ন্যায্য দাবী ও কর্মঘন্টা কমানোর লক্ষে আমেরিকার সিগাগো শহরে ১৮৮৬ সালে আন্দোলন শুরু করে। সেই আন্দোলনে নিরিহ শ্রমিকদের উপরে পুলিশ গুলি চালিয়ে অনেককে নিহত করে। আবার অনেককে বিচারের নামে প্রহসন করে ফাঁসি দিয়ে হত্যা করে। এত কিছুর পরেও আজও শ্রমিকদের ন্যায্য দাবী পুরণ হয়নি। এখনো পাওনা বেতন ভাতার জন্য রাস্তায় নামতে হয়। রাস্তার নামলে সেই আমলের ন্যায় সরকারী বাহিনী তাদের উপরে নির্যাতন করে।

 

 

 

 

 

 

তিনি আরো বলেন, বর্তমান সরকার কলকারখানা বন্ধ করে দিয়ে শ্রমিকদের বেকার করে ফেলেছে। মধ্যম আয়ের দেশ ঘোষনা দিয়ে বেসরকারী সেক্টরকে ধ্বংশ করে ফেলেছে। বিদেশেী ডোনার না থাকায় এনজিও কর্মীরা চাকরী হারিয়ে পথে পথে ঘুরছে। একদিকে মানুষ কর্মহীন, অন্যদিকে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য মূল্যের লাগামহীন উর্ধ্বগতির কারনে মানুষ দিশেহারা হয়ে পড়েছে। সেইসাথে গণতন্ত্র বিনষ্ট করে দেশে একনায়কতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছে। এই ফ্যাসিস্ট সরকারকে বিতারিত করে দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা ও জনগণের ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠা করেেত হবে।এজন্য বিএনপি আন্দোলন করছে। এই আন্দোলনে সবাইকে রাজপথে থাকার আহ্বান জানান তিনি।

বক্তব্য শেষে র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালি নিয়ে তারা সোনাদিঘীর মোড় হয়ে সাহেব বাজার প্রদক্ষিণ করে বিন্দুর মোড়ে যেয়ে শেষ করেন। সেখানে সংক্ষিপ্ত পথসভা অনুষ্ঠিত হয়।

 

 

সানশাইন/সোহরাব


প্রকাশিত: মে ২, ২০২৩ | সময়: ৬:৩৬ অপরাহ্ণ | Daily Sunshine