গোদাগাড়ীর ইউএনও’র বিরুদ্ধে আদালতে দুর্নীতির মামলা

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো. জানে আলমের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। সোমবার বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে রাজশাহী জেলা স্পেশাল ট্রাইবুনাল ও সিনিয়র দায়রা জজ আদালয়ে মামলাটি করেন আইনজীবি সালাহ উদ্দিন বিশ্বাস।
মামলাটি আদালতে উত্থপিত হলে বিচারক আব্দুর রহিম শুনানি শেষে রাজশাহী জেলা সমন্বিত দুদককে তদন্তের দির্দেশ দিয়েছেন বলে বলে জানিয়েছেন মামলা দাখিলকারী বাদী পক্ষের অ্যাডভোকেট রায়হান কবির জানান। এর আগেও গত ২৬ জানুয়ারী ওই আইনজীবী গোদাগাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বিরুদ্ধে রাজশাহী পরিবেশ আদালতে মামলা দায়ের করেন।
মামলার বাদী মামলায় উল্লেখ করেন, গোদাগাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে মো. জানে আলম ২০২০ সালের ৩ ডিসেম্বর যোগদান করেন। এরপর থেকে তিনি ঘুষ ও দূর্নীতির মাধ্যমে অবৈধভাবে প্রায় ৫ কোটি টাকা উপার্জন করেছেন।
উপার্জনকৃত অর্থ দিয়ে তিনি তার গ্রামের বাড়ীতে বিলাস বহুল বাড়ী, জায়গা জমি ও গবাদী পশু পালনের খামার তৈরি করেছেন। এছাড়াও নামে বে-নামে জমি ক্রয় করেছেন। মামলার সঙ্গে এসবের ভিডিও সংযুক্ত করা হয়েছে।
মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, দুর্নীতির মাধ্যমে উপার্জিত অর্থের সিংহভাগ টাকা, আশ্রয়ন প্রকল্পের বাড়ী নির্মাণের জন্য বিভিন্ন ইটভাটা থেকে ইট ও বালুমহাল থেকে বিনামূল্যে বালু নেয়া এবং ঘর-বাড়ী নির্মাণে ব্যবহার করা হয়েছে অতি নিম্নমানের সরঞ্জাম দিয়ে। আশ্রয়ণ প্রকল্পের সব ঘর নির্মাণ সম্পন্ন না হলেও তিনি সরকারীভাবে প্রকল্পের অগ্রগতি শতভাগ দেখিয়েছেন।
এছাড়া বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের বিল-ভাউচার স্বাক্ষর করার জন্য ৯টি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানদের নিকট থেকে অর্থ আদায় করেন। টিআর-কাবিখাতে উন্নয়নমূলক কাজে ১০% কমিশন গ্রহন করেন। এডিপির টাকায় ভাগ-বাটোয়ারায় অংশ নিয়ে কমিশন গ্রহণ করেন।
অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, আদিবাসীদের জমিতে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর নির্মাণ করা হলেও আদিবাসীদের ঘর দেওয়া হচ্ছে না। বরং ইউএনও টাকার বিনিময়ে আশ্রয়ণ প্রকল্পে ঘর দিয়েছেন। যার ফলে অনেক আদিবাসী টাকা না দিতে পারায় তারা ঘর পাননি। মামলায় আরো উল্লেখ করা হয়, উপজেলা নির্বাহী অফিসার দুর্নীতির এক পর্যায়ে ঘুষ না পেয়ে বিএমডিএর কাজেও বাধা প্রদান করেন।
মামলায় উপজেলা ক্যাম্পাসের আম বাগানের আম ট্রেন্ডার ছাড়াই আত্মসাৎ, বিভিন্ন গাছ নাম মাত্রই দামে বিক্রি ও মহামান্য হাইকোর্টের ৬ মাসের স্থিগিত আদেশ উপেক্ষা করে উপজেলার পাকড়ী এলাকায় হাজি মানিক উল্লাহ ওয়াকফ স্টেট সম্পত্তিতে গুচ্ছগ্রাম নির্মাণে করেন।
মোবাইল কোর্ট আইনের ৮ ও ৯ ধারা লঙ্ঘন বিভিন্ন আসামীকে সাজার সঙ্গে ১০ হাজার টাকার উর্দ্ধে জরিমানা করেন। কিন্তু আইনের এই ধারা মোতাবেক মোবাইল কোর্টে সর্বোচ্চ ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত অর্থদন্ড দেওয়ার ক্ষমতা আছে। কিন্তু ইউএনও অবৈধ ভাবে জরিমানার টাকা আদায় করেন বলেও অভিযোগ করা হয়।
এসব কারণে মামলার বাদী উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বিরুদ্ধে উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষকে লিখিত নালিশও করেছিলেন। এ কারণে তার প্রাইভেট কার চালক সাইফুল ইসলাম দুরুলকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ভ্রাম্যমান আদালত করে গাড়ী চালক সাইফুল ইসলাম দুরুলকে ৭ দিনের সাজা প্রদান করেন।
এছাড়াও সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দাফতরিক নিয়োগে দুর্নীতি করেন উল্লেখ করে এজাহারে বলা হয় ইউএনও’র ভয়ে কেউ তার অন্যায়ের প্রতিবাদ করিতে পারেন না।
এসব বিষয়ে গোদাগাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার জানে আলমের সঙেঙ্গ যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, মামলার বিষয়ে আমি জানি না। অফিসের কাজে বাইরে আছি অফিসে গিয়ে বিস্তারিত জেনে জানাবো।


প্রকাশিত: মার্চ ৭, ২০২৩ | সময়: ৬:৩৯ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ

আরও খবর