সর্বশেষ সংবাদ :

রাজশাহীতে এস কে এন্ড ট্রাইঙ্গেলের ভবনগুলো ছড়াচ্ছে মুগ্ধতা

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহীর অন্যতম আবাসন প্রতিষ্ঠান এস কে এন্ড ট্রাইঙ্গেল। আবাসন মেলায় ঢুকতেই পূর্বদিকে আকর্ষণীয় স্টল সাজিয়েছে এ প্রতিষ্ঠানটি। ২০১৭ সালে প্রতিষ্ঠিত এ প্রতিষ্ঠানটির এ মুহূর্তে ৯ টি প্রজেক্টের কাজ হাতে রয়েছে।
প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক খায়রুল আনাম কানন বলেন, এ প্রতিষ্ঠানটির সর্বোচ্চ উচু ভবন হচ্ছে ১৫ তলা । এছাড়া ৮ তলা ও ১০ তলা বিশিষ্ট আরো কয়েকটি ভবন এ প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে তৈরি করা হচ্ছে। বর্তমানে রাজশাহী মহানগরীর রেলগেট,সাহেব বাজার,লক্ষীপুর,পদ্মা আবাসিক, উপশহর, দোসর মন্ডলের মোড়,সপুরা এলাকায় কাজ চলছে। ১৫০০ থেকে ১৭০০ স্কয়ার ফিটের ফ্লাট রয়েছে এ প্রতিষ্ঠানে। এছাড়া ১২০০ স্কয়ার ফিটের কিছু ফ্লাট রয়েছে। প্রতিটি প্রজেক্টের জন্য সর্বোচ্চ সময় থাকে তিন বছর। তবে নির্ধারিত সময়ের আগেই তারা ফ্লাটগুলো ক্রেতা ও জমির মালিকদের হাতে বুঝিয়ে দেয়ায় অল্প সময়ের মধ্যে সুনাম কুড়িয়েছে অল্প সময়ে। বর্তমানে দুটি প্রজেক্টের কাজ একেবারে শেষ পর্যায়ে আর ৬টি প্রজেক্টের কাজ চলমান রয়েছে। এখন পর্যন্ত দুটি প্রজেক্ট সম্পন্ন হয়েছে পদ্মা আবাসিকে। আরো তিনটি প্রজেক্ট সামনে আসছে।
তিনি বলেন, ৬ মাস আগেই বিভিন্ন শর্ত পূরণের মাধ্যমে আবাসন ব্যবসায়িদের সংগঠন রেডা’র সদস্য ভুক্ত হয়েছে এস কে এন্ড ট্রাইঙ্গেল। তাদের প্রতিষ্ঠানের গুণগত মান ভালো হওয়ায় খুব অল্প সময়ের মধ্যে ভালো সাড়া পেয়েছেন রাজশাহীতে। যারা অল্প দামে ফ্লাট বিক্রির বিজ্ঞাপন দেখে ফ্লাট কিনতে আগ্রহী হচ্ছেন তাদের সতর্ক করে জানান, রেডার বিভিন্ন ব্যবসায়ীরা যে দামে ফ্লাট বিক্রি করছেন তাতে বর্তমান বাজারের সাথে সামঞ্জস্য রেখে কিছুটা লাভ করছেন। এর চেয়ে কেউ যদি কম দামে বিক্রি করে তবে বুঝে নিতে হবে গুণগত মান ভালো না। সাধারন ক্রেতারা অনেকে বুঝতে পারে না কোন ধরণের নির্মাণ সামগ্রী দিয়ে ফ্লাট বানালে কম দামে পাওয়া যাবে। সেই ফ্লাট কিনলে মজবুত ভবনের নিশ্চয়তা সেভাবে পাবে না। ক্রেতাদের কিছুদিন পরপর খরচ লেগেই থাকবে। ফলে যে টাকা বাঁচানোর আশায় কম দামে এসব প্রতিষ্ঠান থেকে ফ্লাট কিনল মেরামত করতে করতে সেই টাকা খরচ হয়ে যাবে।
খায়রুল আনাম আরো বলেন, আমরা ব্যক্তিগত ভাবে এক্সপার্ট ভয়েস নামে একটি অনুষ্ঠান করি যেখানে বিভিন্ন ইঞ্জিনিয়ারদের দিয়ে ক্রেতাদের সচেতন করা হয়। কি ধরনের যোগ্যতা থাকলে একটা আবাসন প্রতিষ্ঠানে ক্রেতারা তাদের জমি দিবে বা ফ্লাট কিনবে সে বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা থাকে সেই অনুষ্ঠানে। কোয়ালিটির বিষয়ে আমাদের ম্যানেজিং ডাইরেক্টর তৌরিদ আল মাসুদ রনি সহ সকল পরিচালক ও কর্মকর্তা এবং কর্মচারিবৃন্দ সব সময় সচেতন থাকেন। আমাদের ফ্লাটগুলোর কোয়ালিটি ভালো হওয়ায় দামটাও বর্তমান বাজার দরের সাথে সামঞ্জস্য করে রাখা হচ্ছে।


প্রকাশিত: মার্চ ২, ২০২৩ | সময়: ৬:০৬ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ