মেক্সিকোয় ‘এল চাপোর’ ছেলেকে গ্রেপ্তারের জেরে নিহত ২৯

সানশাইন ডেস্ক: মেক্সিকোর মাদক চক্রের প্রধান ওভিদিও গুজম্যান লোপেজের গ্রেপ্তারকে কেন্দ্র করে উত্তরাঞ্চলীয় রাজ্য সিনালোয়ায় শুরু হওয়া সহিংসতায় অন্তত ২৯ জন নিহত হয়েছেন। এদের মধ্যে ১৯ জন অপরাধী দলের ও ১০ জন সামরিক বাহিনীর সদস্য।
শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে মেক্সিকোর প্রতিরক্ষামন্ত্রী লুয়িস ক্রেসেনসিও সান্দোভাল এসব তথ্য জানান। বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় ভোর সকালে মেক্সিকোর কুখ্যাত কারাবন্দি মাদক সম্রাট হুয়াকিন ‘এল চাপো’ গুজম্যানের ছেলে গুজম্যান লোপেজকে (৩২) আটক করে দেশটির নিরাপত্তা বাহিনী, এর জেরে কয়েক ঘণ্টা ধরে অস্থিরতা ও অপরাধী দলের সদস্যদের সঙ্গে গোলাগুলি চলে বলে সান্দোভাল জানিয়েছেন।
তিনি আরও জানান, গ্রেপ্তারের পর যে বাড়ি থেকে লোপেজকে আটক করা হয়েছে সেখান থেকে হেলিকপ্টার যোগে তাকে রাজধানী মেক্সিকো সিটিতে উড়িয়ে নেওয়া হয়, তারপর তাকে একটি সর্বোচ্চ নিরাপত্তা কারাগারে রাখা হয়। এই গ্রেপ্তারের জেরে প্রভাবশালী সিনালোয়া কার্টেল (মাদক অপরাধীদের চক্র) ব্যাপক তাণ্ডব শুরু করে। চক্রটির সদস্যরা যানবাহনে আগুন ধরিয়ে দেয়, রাস্তা অবরোধ করে এবং সিনালোয়ার প্রধান শহর কুলিয়াকানে ও এর আশপাশে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে লড়াই শুরু করে।
বৃহস্পতিবারের অভিযানে লোপেজের পাশাপাশি আরও ২১ জনকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে সান্দোভাল জানিয়েছেন। দু’পক্ষের লড়াইয়ে মোট ২৯ জন নিহত হলেও কোনো বেসামরিকের মৃত্যু হয়নি বলে নিশ্চিত করেছেন তিনি। মেক্সিকোর প্রেসিডেন্ট আন্দ্রেস ম্যানুয়েল লোপেজ ওব্রাদর জানিয়েছেন, গুজম্যান লোপেজকে যুক্তরাষ্ট্রে প্রত্যপর্ণের আশু কোনো পরিকল্পনা নেই। লোপেজকে আটকের সময় যুক্তরাষ্ট্রের কোনো বাহিনীর সহায়তা নেওয়া হয়নি।
লোপেজের বাবা সিনালোয়া কার্টেলের সাবেক প্রধান ‘এল চাপো’ গুজম্যানকে ২০১৭ সালে যুক্তরাষ্ট্রের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছিল। সেখানে বিচারের পর এখন যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ভোগ করছেন তিনি। কয়েক বছর ধরে লোপেজকেও তাদের হাতে তুলে দেওয়া জন্য বলছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ২০২১ সালে ‘কেউ তথ্য দিয়ে’ গুজম্যান লোপেজকে গ্রেপ্তারে সহায়তা করলে ৫০ লাখ ডলার পুরস্কার দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিল।
মন্ত্রী সান্দোভাল জানিয়েছেন, সর্বসাধারণের নিরাপত্তার জন্য সিনালোয়াতে বর্ধিত নিরাপত্তা পরিস্থিতি বজায় রাখা হবে এবং সেখানে অতিরিক্ত আরও এক হাজার সামরিক সদস্যকে পাঠানো হবে। বৃহস্পতিবার কুলিয়াকানে দাঙ্গা চলার সময় একটি বিমানবন্দরেও হামলা চালানো হয়। এ সময় সেখানে থাকা দুটি উড়োজাহাজে গুলি লাগে, এর মধ্যে একটি উড্ডয়নের প্রস্তুতি নিচ্ছিল; তবে কেউ হতাহত হয়নি। এ ঘটনার পর সিনালোয়ার তিনটি বিমানবন্দরের শতাধিক ফ্লাইট বাতিল হয়।
সহিংসতার পর বেশ কয়েক ঘণ্টা বিমানবন্দরটির কার্যক্রম বন্ধ রাখা হয়েছিল। মেক্সিকোর নিরাপত্তা বাহিনীগুলো এর আগে ২০১৯ সালে গুজম্যান লোপেজকে গ্রেপ্তার করেছিল, কিন্তু তার সমর্থকদের সহিংসতার হুমকি এড়াতে কিছুক্ষণের মধ্যেই তাকে ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়েছিল। চলতি সপ্তাহে মেক্সিকোয় একটি শীর্ষ সম্মেলনে উত্তর আমেরিকার নেতাদের যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে। এই সম্মেলনে যোগ দিতে রোববার যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন দেশটিতে যাবেন। এর আগেই কুখ্যাত মাদক অপরাধী গুজম্যান লোপেজকে গ্রেপ্তার করা হল।


প্রকাশিত: জানুয়ারি ৮, ২০২৩ | সময়: ৫:০১ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ

আরও খবর