সিডনিতে বৃষ্টির মাঝে খাজা-লাবুশেনের ঝলক

স্পোর্টস ডেস্ক: মেঘাচ্ছন্ন সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ড, হলো বৃষ্টিও। প্রতিকূল আবহাওয়া অর্ধেক সময় দাপট দেখালো, বাকি সময় মার্নাস লাবুশেন ও উসমান খাজার। দুজনের হাফ সেঞ্চুরিতে নিষ্প্রভ দক্ষিণ আফ্রিকাকে হতাশার দিন উপহার দিলো অস্ট্রেলিয়া।
তৃতীয় টেস্টে শুষ্ক উইকেটে টস জিতে অধিনায়ক প্যাট কামিন্স ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন। শুরুতেই ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নারের বিদায়ের পর শতরানের জুটিতে তার এই সিদ্ধান্তকে যথার্থ করেন লাবুশেন ও খাজা। প্রথম সেশন কোনও বাধাবিঘ্নের মধ্যে পড়েনি। ২৮ ওভারে ১ উইকেটে ৬৮ রানে লাঞ্চের বিরতিতে যায় স্বাগতিকরা। ফিরে এসে আলোকস্বল্পতা ও বৃষ্টির কারণে আর মাত্র ১৫ ওভার খেলতে পারে তারা, যোগ হয় আরও ৭০ রান। ১০২ বলে হাফ সেঞ্চুরি করেন লাবুশেন। ১১৩ বলে ফিফটি হাঁকান খাজা।
ম্যাচের আলোচিত ঘটনা ছিল যখন লাবুশেনে ৭০ রানে খেলছিলেন। মার্কো জানসেনের বলে তার ব্যাটে এজ হয়ে প্রথম স্লিপে সিমন হার্মার নিচু ক্যাচ ধরেন। সফট সিগন্যালে আম্পায়ার আউট দিলেও অজি ব্যাটসম্যান দাঁড়িয়ে থাকেন। রিপ্লেতে হার্মারের হাতে থাকা বল মাটি স্পর্শ করেছিল কি না, তা দুর্বোধ্য ছিল। তবে থার্ড আম্পায়ার রিচার্ড কেটেলবোরো সিদ্ধান্ত বদলে হতাশ করেন দক্ষিণ আফ্রিকাকে। শেষ পর্যন্ত লাবুশেন আউট হতেই শেষ হয় দিনের খেলা। ১৩৫ রানের জুটি ভাঙে আনরিখ নর্কিয়ের বলে তিনি কাইল ভেরেইনের ক্যাচ হলে। ১৫১ বলে ১৩ চারে ৭৯ রান করেন লাবুশেন।
লাঞ্চের পরে ডিআরএস নিয়ে জীবন পান খাজা। দ্বিতীয় সেশনের দ্বিতীয় বলে হার্মারের ডেলিভারিতে এলবিডব্লিউ হন তিনি। তবে রিপ্লেতে বল আগে গ্লাভসে আঘাত করতে দেখা যায়। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এক বছর আগে এই মাঠে জোড়া সেঞ্চুরিতে পুনর্জন্ম হয়েছিল খাজার। সেখানেই হাফ সেঞ্চুরির পথে ৪০০০ টেস্ট রানের মাইলফলক ছোঁন তিনি। এই দুজনের হাফ সেঞ্চুরির পর শুরু হয় প্রতিকূল আবহাওয়ার দাপট। দিন শেষ করেছে তারা ২ উইকেটে ১৪৭ রানে।


প্রকাশিত: জানুয়ারি ৫, ২০২৩ | সময়: ৫:৩৬ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ