নওগাঁয় জাল সনদে এক যুগ ধরে এমপিও ভুক্তির টাকা উত্তোলন

নওগাঁ প্রতিনিধি: নওগাঁর আত্রাই উপজেলার চকশিমলা উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক (ইংরেজি) মোজাহারুল ইসলাম জাল শিক্ষক নিবন্ধন সনদ দিয়ে চাকরি নিয়েছিলেন। সেই শিক্ষক নিবন্ধন সনদ যাচাই অন্তে জাল বলে প্রতিষ্ঠান প্রধানকে পত্র প্রেরণ করেছিলেন এনটিআরসিএ’র সহকারী পরিচালক তাজুল ইসলাম। তার প্রেক্ষিতে থানায় মামলা দায়ের করেন বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক প্রাণ বল্লভ মন্ডল।
এজাহার সূত্রে জানা যায়, রাজশাহী জেলার বাগমারা থানার সোনাডাঙ্গা গ্রামের তাহের উদ্দিনের ছেলে মোজাহারুল ইসলাম (৪৪) আত্রাই থানার চক শিমলা উচ্চ বিদ্যালয়ে গত ২০১০ সালের ৩০ জুন যোগদান করেন। একই বছরের ১ সেপ্টেম্বর এমপিওভুক্ত হন। তার ইনডেক্স নাম্বার জ-১০৪৯৯২১। গত ২৮ সেপ্টেম্বর প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক বরাবর বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ) এর ৯৪৭ নং স্মারকে মোজাহারুল ইসলামের শিক্ষক নিবন্ধন সনদের ফটোকপিসহ অন্যান্য কাগজপত্রের ফটোকপি প্রধান শিক্ষক কর্তৃক সত্যায়ন পূর্বক প্রেরণের নির্দেশ প্রদান করে।
গত ১০ নভেম্বর তার কাগজপত্র অনলাইনের বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ এনটিআরসিএ’র দপ্তরে প্রেরণ করেন প্রধান শিক্ষক। যাচাই অন্তে তার শিক্ষক নিবন্ধন সনদ জাল ও ভুয়া বলে প্রমান পাওয়ায় ১১২৩ নং স্মারকে প্রেরিত পত্র মাধ্যমে গত ১৬ নভেম্বর তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশ প্রদান করেন।
নির্দেশ মতে স্কুলের ম্যানেজিং কমিটি না থাকায় গত ১ ডিসেম্বর স্টাফ কমিটির মিটিংএ বিদ্যালয়ে কর্মরত শিক্ষক ও কর্মচারীরা মিলে জাল শিক্ষক নিবন্ধন সনদ দিয়ে প্রতিষ্ঠানে নিযয়োগ নিয়ে যোগদানের পর থেকে এই প্রতিষ্ঠানে অবৈধ ভাবে চাকুরি করায় মোজাহারুল ইসলামের বিরুদ্ধে মামলা দেওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।
বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক প্রাণ বল্লভ মন্ডলের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করা হলেও কল রিসিভ করেননি তিনি।
আত্রাই থানার অফিসার ইনচার্জ তারেকুর রহমান বলেন, চক শিমলা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক প্রাণ বল্লভ মন্ডল বাদী হয়ে গত ১৭ ডিসেম্বর ৪০৬, ৪২০, ৪৬৮, ৪৭১ ধারায় থানায় মামলা দায়ের করেছেন। এ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


প্রকাশিত: ডিসেম্বর ২৬, ২০২২ | সময়: ৬:২৭ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ