লেভেল ক্রসিংয়ে ৩৪০ দিনে ঝরল ২৬১ জনের প্রাণ

সানশাইন ডেস্ক: ৩৪০ দিনে ১ হাজার ৫৩৫টি দুর্ঘটনায় নিহত ২৬১ জন এবং আহত হয়েছেন ১ হাজার ৭১৩ জন। দেশের সড়ক ও রেলপথ নিয়ে কাজ করা বেসরকারি সংগঠন ‘সেভ দ্যা রোড’ প্রেরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।
অবৈধ লেভেল ক্রসিং সমস্যা সমাধান না করায় সর্বশেষ কুমিল্লার দক্ষিণ খিলা তুগুরিয়ায় রেলপথে চারজন নিহত হন। অধিকাংশ দুর্ঘটনাই অবৈধ লেভেল ক্রসিং, গেট কিপারদের দায়িত্বে অবহেলা এবং অসাবধানতার কারণে বলে জানিয়েছেন ‘সেভ দ্য রোড’র মহাসচিব শান্তা ফারজানা।
রেলের ২ হাজার ৮৫৬টি লেভেল ক্রসিংয়ের মধ্যে অবৈধ ১ হাজার ৩৬১টির সমস্যা সমাধানে কার্যত কোনো উদ্যোগ না নেওয়া প্রায় ৪৮ শতাংশ অবৈধ লেভেল ক্রসিংয়ে প্রতিনিয়ত মৃত্যুরমিছিল বড় হচ্ছে, যা জাতীয় জীবনে নির্মমতা তৈরি করছে বলেও জানান তিনি। ‘সেভ দ্য রোড’র গবেষণা সেলের তথ্য মতে, বৈধ লেভেল ক্রসিংগুলোর মধ্যে ৬৩২টিতে গেটকিপার নেই। অবৈধ লেভেল ক্রসিংগুলোয় যেমন গেটকিপার নেই, নেই কোনো সুরক্ষা সরঞ্জামও। রেল কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা দায়িত্বে অবহেলার কারণে চলতি বছরের জানুয়ারিতে রেলপথ দুর্ঘটনা ঘটেছে ২৬টি, আহত হয়েছে ৫২, নিহত হয়েছে ১৪ জন, ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত রেলপথ দুর্ঘটনা ঘটেছে ৪১টি, আহত হয়েছে ১১১ জন, নিহত হয়েছেন ২৭ জন।
মার্চ পর্যন্ত রেলপথে দুর্ঘটনা ঘটেছে ২২২ টি, আহত হয়েছে ১৮৬ জন, নিহত হয়েছে ৩১ জন, এপ্রিল পর্যন্ত রেলপথ দুর্ঘটনা ঘটেছে ১১২ টি, আহত হয়েছে ১৬৬ জন, নিহত হয়েছে ৪২ জন, মে মাসে আহত ২২১ জন, নিহত হয়েছেন ২৩ জন, দুর্ঘটনা ঘটেছে ২১২ টি। জুন মাসে দুর্ঘটনা ঘটেছে ১৯৭টি, আহত হয়েছেন ১৭২ জন, নিহত হয়েছেন ১৭ জন এবং জুলাই মাসে দুর্ঘটনা ঘটেছে ১৪২টি, আহত হয়েছে ২৩২ জন, নিহত হয়েছে ২৪ জন, আগস্টে ১৬৬টি দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন ১৭৪ জন এবং নিহত হয়েছেন ১৯ জন।
সেপ্টেম্বরে ১৭৮টি দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন ১৭৪ জন এবং নিহত হয়েছেস ১৪ জন, অক্টোবরে ৯৯টি দুর্ঘটনায় ১১১ জন আহত এবং ২৬ জন নিহত হয়েছেন। নভেম্বরে ১১১টি দুর্ঘটনায় ৯৮ জন আহত এবং ১৯ জন নিহত হয়েছেন এবং ১ ডিসেম্বর থেকে ৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত ১৮টি দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন ৬ জন, নিহত ৫ জন।
২৪টি জাতীয় দৈনিক, ১৮টি ইলেকট্রনিক্স গণমাধ্যম, ২২টি নিউজ পোর্টাল এবং সারাদেশে ‘সেভ দ্য রোড’র বিভিন্ন শাখার স্বেচ্ছাসেবীদের তথ্যের ভিত্তিতে এ প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে। এ পর্যন্ত সব রেলপথ দুর্ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত, ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির পাশাপাশি নিহতদের পরিবারকে কমপক্ষে ১০ লাখ এবং আহতদের সরকারি অর্থায়নে চিকিৎসার দাবি জানিয়েছেন ‘সেভ দ্য রোড’ নেতারা। একই সঙ্গে রেলের বর্তমান পরিস্থিতির উত্তরণে ‘সেভ দ্য রোড’র পক্ষ থেকে ৭টি সুপারিশ দেওয়া হয়েছে। সুপারিশগুলো হলো- অবৈধ ক্রসিংগুলোর সমাধান ও অবৈধ দখল থেকে রেলের সব সম্পত্তি মুক্ত করা। সেবা সপ্তাহসহ বিভিন্ন ইস্যুতে অপচয়-দুর্নীতি বন্ধের লক্ষ্যে দুর্নীতিবাজ রেল কর্মকর্তা কর্মচারীদেরকে চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া।
সরকারি লেজুরভিত্তিক সংগঠন ‘বাংলাদেশ রেলওয়ে শ্রমিক লীগ’র নেতাকর্মীদের দৌরাত্ম্য বন্ধ করে রেলকে গণমুখী বাহন হিসেবে প্রতিষ্ঠা করা। যত দ্রুত সম্ভব বাংলাদেশ রেলকে বেসরকারি খাত থেকে মুক্ত করে রাষ্ট্রীয় তত্ত্বাবধায়নে পরিচালনার সুপরিকল্পিত উদ্যেগ গ্রহণ করা। সচিব-কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সব রকম আরাম-আয়েশ বাতিল করে সারাদেশে রেলের উন্নয়নে জনসাধারণের সেবার নিমিত্তে নিবেদিত রাখা।
টিকিট কালোবাজারি বন্ধ করে যাত্রী সেবার মান উন্নয়নে সব কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উপর নজরদারি বাড়ানো এবং সারাদেশের সব স্থানে কার্যকর সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন করা। কিলোমিটার অন্তর অন্তর রেলওয়ে পুলিশের বিশেষ পর্যবেক্ষণ বুথ স্থাপন করা।


প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৮, ২০২২ | সময়: ৬:৩৭ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ