জয়পুরহাটে জালিয়াতির মাধ্যমে আসামিকে বাঁচাতে গিয়ে আইনজীবী নিজেই কারাগারে 

জয়পুরহাট প্রতিনিধিঃ

জয়পুরহাটে ব্যাংকের চালান জালিয়াতির মামলায় সোহেল রানা নামে এক আসামিকে বাঁচাতে গিয়ে আইনজীবী অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান নিজেই এখন কারাগারে।

 

 

সোমবার বিকালে জয়পুরহাটের চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক নীশিথ রঞ্জন বিশ্বাসের আদেশে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। ব্যাংকের চেকের মামলার আসামি স্থানীয় ফিড ব্যবসায়ী সোহেল রানার আইনজীবী অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান ব্যাংকে চালান জালিয়াতি করে তার জামিন করাতে অবশেষে নিজেই ফেঁসে গেছেন।

 

 

সংশ্লিষ্ট সূত্র ও ওই মামলার বিবরণে জানা গেছে, আইনজীবী আনিছুর রহমান ও তার মহুরার ২০২১ সালের ১৫নভেম্বর চেক জালিয়াতির মামলার কারাগারে থাকা আসামি স্থানীয় ফিড ব্যবসায়ী সোহেল রানাকে ব্যাংকে চালান জালিয়াতির মাধ্যমে তাকে আদালত থেকে জামিন পাইয়ে দেন। কিš‘ পরবর্তীতে মামলার বিবাদী পক্ষ ব্যাংকে খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন যে, ওই চালানে ব্যাংকে কোনো টাকাই জমা হয়নি। বিষয়টি আদালতের নজরে আসলে এ ব্যাপারে পুলিশকে পুনরায় তদন্তের নির্দেশ দেন।

 

 

এমন অবস্থায় আইনজীবী অ্যাডভোকেট আনিছুর রহমান নিজেকে বাঁচাতে আসামি সোহেল রানার বড় ভাই আবদুল করিম, তার বোন পারুল বেগম ও দালাল নসু বাবুর নামসহ ৪থেকে ৫জনকে অজ্ঞাত আসামি করে চলতি ২০২২ইং সালের ১৯জানুয়ারি জয়পুরহাট সদর থানায় মামলা করেন।

 

 

অপরদিকে এ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা জয়পুরহাট গোয়েন্দা পুলিশের এস আই আমিরুল ইসলাম আদালতের নির্দেশে পুন: তদন্তে এ দুর্নীতির (ব্যাংক চালান জালিয়াতি) ব্যাপারে এ মামলার বাদী আইনজীবী অ্যাডভোকেট আনিছুর রহমান (৪৭), জয়পুরহাট কারাগারের কারারক্ষী আমিনুল ইসলাম(৪৩), দালাল মাহফুজ ইসলাম ওরফে নসু বাবু (৪৫), আইনজীবীর মহুরার আজিজার রহমান (৫৩), সিল তৈরি ব্যবসায়ী নাজমুল হক (৫১) ও পারুল বেগমসহ (৪২) ৬জনের সম্পৃক্ত থাকার বিষয়ে নিশ্চিত হন। পরবর্তী চলতি ২০২২ইং সালের ৮নভেম্বর তিনি এ মামলার বাদী আইনজীবী অ্যাডভোকেট আনিছুর রহমান,কারারক্ষী আমিনুল ইসলাম সহ জালিয়াতির সাথে সম্পৃক্ত ৬ জনের নামে জয়পুরহাট সদর থানায় মামলা করেন।

 

 

 

ওই মামলায় আইনজীবী অ্যাডভোকেট আনিছুর রহমান সোমবার (গতকাল) চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে জামিন নিতে গেলে আদালতের বিচারক নিশীত রঞ্জন বিশ্বাস তার জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে জয়পুরহাটের পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ নূরে আলম সাংবাদিকদের জানান, ফিড ব্যবসায়ী সোহেল রানার নামে আদালতে একটি চেকের মামলা হয়। চেকের মামলায় সোহেল রানার আইনজীবী আনিছুর রহমান চেক জালিয়াতি করে সোহেল রানাকে জামিন করান। পরবর্তীতে আদালতের সন্দেহ হলে জেলা গোয়েন্দা পুলিশকে তদন্তের নির্দেশ দেয়া হয়। ওই তদন্তে একজন আইনজীবীসহ ৬জনের সম্পৃক্ততা খুঁজে পাওয়ায় এ ব্যাপারে (চলতি বছরে ৮নভেম্বর) জয়পুরহাট সদর থানায় মামলা রুজু করা হয়। এ মামলা দায়ের পর ওই আইনজীবী (আনিছুর রহমান) ভারতে পালিয়ে গিয়ে অনেক দিন আত্মগোপনে ছিলেন। সম্প্রতি দেশে ফিরে সোমবার আদালতে জামিন নিতে গেলে আদালতের বিচারক তার জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানো নির্দেশ দেন।

 

 

 

 

 

সানশাইন/টিএ


প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৫, ২০২২ | সময়: ১০:৪৬ অপরাহ্ণ | Daily Sunshine