পুলিশ-বিজিবির অনুপস্থিতিতে বাঘায় আইন শৃংখলাসহ চারটি সভা অনুষ্ঠিত

বাঘা প্রতিনিধিঃ

রাজশাহীর বাঘা উপজেলায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রতিমাসে অনুষ্ঠিত হয় আইন শৃংখলা, মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন, চোরাচালান প্রতিরোধ ও নাশকতা প্রতিরোধ বিষয়ে চারটি মাসিক সভা। এ সভায় সভাপতিত্ব করেন নির্বাহী অফিসার। অপর দিকে সদস্য সচিবের দায়িত্বে থাকেন বাঘা থানা অফিসার ইনচার্জ। তবে তাঁকে কোন মিটিং-এ পাওয়া যায়না। বরাবর অন্য কোন অফিসার প্রতিনিধি হয়ে এলেও এবার অনুপস্থিত পুলিশসহ সীমান্তরক্ষী বিজিবি কম্পানী কমান্ডার। ফলে উপজেলার সার্বিক আইন শৃংখলা এবং অপরাধ বিষয় নিয়ে প্রশ্ন ছুড়েছেন অনেকে।

 

বাঘা উপজেলা পরিষদের সভাকক্ষে সকাল সাড়ে ১০ টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২ টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত এ সভায় বক্তারা বলেন, পূর্বের যে কোন সময়ের চেয়ে বর্তমানে অপরাধ প্রবনতা বৃদ্ধি পেয়েছে। গত একমাসে এ উপজেলায় শুধু ভ্যান ছিনতাই এর উদ্দেশ্যে দু’জন চালকের গলায় ছুরিকাঘাত-সহ একজন চালকে হত্যা করা হয়েছে। এ ছাড়াও গত ৯ তারিখ উপজেলা সদরে অবস্থিত বাঘা বানিজ্যিক কলেজের সামনে সকাল আনুমানিক ১০ টা থেকে ১১ টার মধ্যে চতুর্থ তলা ভবনের তৃতীয় তলায় পাশাপাশি দু’টি ইউনিটে দুর্ধষ চুরি সংঘটিত হয়েছে। এতে বাঘা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের কর্মকর্তা শরিফুল ইসলাম এবং একজন সরকারি কর্মচারী সোহেল আহাম্মেদ এই দু’জনের ঘর থেকে চুরি গেছে দুইভরি স্বর্ণ-সহ প্রায় সাড়ে তিন লক্ষ টাকা। এ সময় দ্বিতীয় তলায় ভাড়া থাকা একজন পুলিশ অফিসার ঘুমাচ্ছিলেন বলে জানান ঐ দুই ভাড়াটিয়া ।

 

 

অপর দিকে সম্প্রতি বাঘা মাজারে ঘুরতে আসা এক নারী সহ গত ১২ তারিখ উপজেলার মনিগ্রাম এলাকার সাজিপাড়ায় বিয়ের অনুষ্ঠান থেকে বাড়ি ফেরার সময় চক-নারায়নপুর গ্রামের শিশু রায়মা’র গলা থেকে চেইন ছিনতাই এর ঘটনা ঘটেছে। এ ছাড়াও বেড়েছে মাদক বিক্রী ও সেবন সহ বিকাশ হ্যাক এর ঘটনা। এমনকি প্রতিনিয়ত চিনি দিয়ে খেজুরের গুড় তৈরী, দ্রব্য মূল্যের বাজার, উন্নয়ন কাজে অনিয়ম এবং রাস্তা -সহ বিভিন্ন গোরস্থানে স্থাপন করা সৌর বিদ্যুতের আলো বন্ধ হয়ে যাওয়ার বিষয় উল্লেখ করে কথা বলেন অনেকে।

 

 

 

বাঘার বাউসা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ তুফান বলেন, ন্যায় নীতি, নৈতিকতা এখন তলানিতে চলে গেছে। আমার গ্রামে প্রতিদিন চিনি গালাই করে ৩০ কেজি খেজুরের গুড় তৈরী করছেন জনৈক এক ব্যক্তি। এর মধ্যে এক ফোটাও খেজুরের রস নেই। অপর একজন মনিগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, শিক্ষকরা সরকারের কাছে বিভিন্ন সময় আন্দোলন করে নানা দাবি-অধিকার আদায় করে চলেছেন। অথচ প্রতিনিয়িত বাল্য বিয়ের ঘটনা ঘটছে,কিন্তু তাঁরা এ বিষয় গুলো আমাদের জানাচ্ছেন না। তিনি আরো বলেন, এখন স্কুলে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি খুবই কম। মানা হচ্ছেনা স্কুলে আসা-যাওয়ার সরকারি সময় সূচি।

 

 

উক্ত সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) জুয়েল আহাম্মেদ, বাঘা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল মোকাদ্দেস, সমাজসেবা অফিসার মোঃ নাফিজ শরিফ, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আ.ফ.ম হাসান, প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মীর মামুনুর রহমান, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা নাসরিন সুলতানা , আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা মিলন কুমার দাস, ও বাঘা প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক নুরুজ্জামান। উপস্থিত ছিলেন, উপজেলার সকল ইউপি চেয়ারম্যান, শিক্ষক মন্ডলী, বিভিন্ন দপ্তরের প্রধান কর্মকর্তা ও সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দ ।

 

 

 

 

সানশাইন/টিএ


প্রকাশিত: নভেম্বর ১৪, ২০২২ | সময়: ৯:৫৩ অপরাহ্ণ | Daily Sunshine