কৃষকরাই দেশের মানুষের খাদ্য যোগান দেন: খাদ্যমন্ত্রী

পোরশা প্রতিনিধি: খাদ্যমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা সাধন চন্দ্র মজুমদার এমপি বলেছেন এদেশের কৃষকরা মানুষের খাদ্যের যোগান দেন। কৃষকরা আমাদের জাতি এবং দেশের উন্নয়নের গুরুত্বপূর্ণ অংশ। এ জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন কৃষক বাঁচলে দেশ বাঁচবে। তিনি শনিবার নওগাঁ জেলার পোরশা উপজেলার মশিদপুর ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে উপজেলা প্রশাসনের সহযোগীতায় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর আয়োজিত কৃষি প্রনোদনা হিসেবে ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে সার ও বীজ বিতরন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
খাদ্যমন্ত্রী বলেন, বিগত সময়ে কৃষকদের ৫ হাজার টাকায় সার কিনতে হয়েছে। সারের জন্য ১৯ জন কৃষককে জীবন দিতে হয়েছিল। বর্তমান সময়ে দেশের প্রান্তিক কৃষকদের বিনা মূল্যে সার দেয়া হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, একটি কুচক্রী মহল দেশে সারের কৃত্তিম সংকট সৃষ্টি করে অস্থিতিশীল করার চেষ্টা চালাচ্ছে। সরকার তা শক্ত হাতে প্রতিরোধ করছে। এখন দেশে সারের আর কোন সংকট নাই। সরকার কৃষি ও কৃষকদের উন্নয়নে কেবলমাত্র সারের ক্ষেত্রে হাজার হাজার কোটি টাকা ভর্তূকী প্রদান করছে। সরকার প্রতি বস্তা সার কিনছে সাড়ে ৬ হাজার টাকায়। আর কৃষক পর্যায়ে বিক্রি করছে ৮শ টাকা থেকে ১১০০ টাকায়।
তিনি আরও বলেন, রাশিয়া ও ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাবে ইংল্যান্ডে সাধারন নাগরিকদের দিনে দুইবেলা খাওয়ার রেশনিং করে দেয়া হয়েছে। অথচ বাংলাদেশের মানুষ তিন বেলা পেট ভরে ভাত খেতে পারছেন। এটা বর্তমান সরকারের বড় স্বার্থকতা। সরকারের সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচীর উল্লেখ করে তিনি বলেন, দেশে এমন কোন পরিবার নাই যে পরিবার সরকারের কোন না কোন সহযোগিতা পায়না। এ ক্ষেত্রে তিনি বিধবা ভাতা, বয়স্ক ভাতা, মুক্তিযোদ্ধা ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, শিক্ষা ভাতা, হিজড়া ভাতা, ভিজিডি এবং ভিজিএফ-এর কথা উল্লেখ করেন। খাদ্যমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়া এ দেশ নিরাপদ নয়। বিএনপি জামাতের আগুন সন্ত্রাস এ দেশের মানুষকে এখনো শিহরিত করে। মানুষ সেই ভয়াহতা আজও ভুলতে পারেনি। তারপরেও সরকার সকলকে সহযোগীতা করে যাচ্ছে এবং সহযোগীতা করে যাবে।
বক্তব্য শেষে তিনি ২০২২ – ২০২৩ রবি মৌসুমে কৃষি প্রনোদনা কর্মসূচীর আওতায় উপজেলার ৫ হাজার ১০ জন ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকের মাঝে গম, ভূট্টা, সরিষা, সূর্যমুখী, মসুর, খেসারী, চিনা বাদাম, মুগডাল, পেঁয়াজ বীজ এবং রাসায়নিক সার বিতরনের উদ্বোধন করেন।
উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল হাইয়ের উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ইউএনও (ভারপ্রাপ্ত) মো. জাকির হোসেন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন কৃষি কর্মকর্তা সঞ্জয় কুমার সরকার। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ শাহ্ মঞ্জুর মোরশেদ চৌধুরী। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মশিদপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হারূন অর রশিদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন এবং উপকারভোগি কৃষক মোদাচ্ছের হোসেন। খাদ্যমন্ত্রী পরে শিশা উচ্চ বিদ্যালয় চত্বরে আয়োজিত মশিদপুর ইউনিয়ন মহিলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে শরিফা বেগমকে সভাপতি এবং রীনা বেগমকে সাধারন সম্পাদক ঘোষনা করেন। অপরদিকে তিনি বিকালে গাঙ্গুরিয়া কেজি স্কুলে গাঙ্গুরিয়া ইউনিয়ন মহিলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন।


প্রকাশিত: নভেম্বর ১৩, ২০২২ | সময়: ৫:৩২ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ