গুরুদাসপুর উপজেলা অ’লীগের সম্মেলন : পিতার পরিচয়ে পদ পেতে তৎপর শোভন

স্টাফ রিপোর্টার : নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের পদ পেতে দৌড়ঝাঁপ করছে এক ডজন নেতা। এর মধ্যে যেমন আছেন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি, তেমনি আছে কখনও পদে না থাকা ব্যক্তিরা। এবারের সম্মেলনে পিতার পরিচয়ে পদ পেতে তৎপর নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও স্থানীয় সংসদ সদস্য আবদুল কুদ্দুসের ছেলে আসিফ আব্দুল্লাহ বীন কুদ্দুস শোভন। ইতিমধ্যেই প্রভাব বিস্তার করতে চালাচ্ছেন নানা কর্মকাণ্ড।
জানা যায়, আগামী ১৫ নবেম্বর গুরুদাসপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন। এ সম্মেলনে সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী হিসাবে দৌড়ঝাঁপ চালিয়ে যাচ্ছেন এক ডজন নেতা। সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী হিসাবে আছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আহম্মদ আলী মোল্লা, এমপি পুত্র আসিফ আব্দুল্লাহ, মশিন্দা ইউনিয়নের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান প্রভাষক মোস্তাফিজুর রহমান, বিয়াঘাট ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান প্রভাষক মোজাম্মেল হক। তবে তৃণমূলের জনপ্রিয়তা এবং ত্যাগী নেতা হিসাবে সবার কাছে পরিচিত মুখ আহম্মদ আলী মোল্লা। তাকেই এই পদে দেখতে চায় তৃণমূলের নেতাকর্মীরা।
এদিকে এমপি পূত্র আসিফ আব্দুল্লাহকে নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনে চলছে নানা আলোচনা সমালচনা। ছাত্রলীগ, যুবলীগ এমনকি আওয়ামী লীগের কোন পদে না থেকেও বাবা এমপি হওয়ার সুবাদে প্রভাব বিস্তার করে চলছেন। এছাড়াও আব্দুল কুদ্দুস এমপির বিরুদ্ধে আছে একাধিক অভিযোগ। দলীয় নেতা-কর্মীদের সঙ্গে খারাপ আচরণ, নৌকার বিপক্ষে ভোট চাওয়া, বিদ্রোহী প্রার্থীদের হয়ে দলীয় প্রার্থীকে হয়রানি করাসহ নানা অভিযোগ আছে স্থানীয় সংসদ সদস্য আব্দুল কুদ্দুসের বিরুদ্ধে।
অপরদিকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আহম্মদ আলী মোল্লাকে নিয়েও চলছে রাজনৈতিক অঙ্গনে আলোচনা। ছাত্রজীবন থেকে রাজনীতি করে যোগ্যতার পরিচয় দিয়েছেন। ২০১১-২০১৩ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন। বর্তমানে বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় কৃষি ও সমবায় উপ-কমিটির সদস্য হিসেবেও নির্বাচিত হয়েছেন। প্রায় ৩০ বছরেরও বেশি দীর্ঘায়িত রাজনৈতিক জীবন তার। একটা দিন একটা মুহূর্তও দলের সিদ্ধান্তের বাইরে যাননি তিনি।
গত জাতীয় নির্বাচনে নাটোর-৪ আসন (গুরুদাসপুর-বড়াইগ্রাম) থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন। দলীয় মনোনয়ন দুই দুই বার না পেয়েও নৌকার পক্ষে ভোট প্রার্থনা করেছেন তিনি। ১/১১ শেখ হাসিনার মুক্তির আন্দোলনে সাহসী ভূমিকা রেখেছিলেন। নিজের জীবন বাজি রেখে জামায়াত-বিএনপি ও শিবিরের তাণ্ডবের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছে। আওয়ামী লীগের দুঃসময়ে প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে রাজপথে ভূমিকা রেখেছিলেন। এখনও দলকে সু-সংগঠিত করতে দিন-রাত পরিশ্রম করে চলছেন ছাত্রলীগের এই সাবেক নেতা।
এছাড়াও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থীদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য সাবেক দুই ইউপি চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক ও মোস্তাফিজুর রহমানের নামেও আছে ভোট জালিয়াতি, ভাতা কার্ড আত্মসাত, বিভিন্ন অনিয়ম। চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর করেছেন ব্যাপক অনিয়ম।
গুরুদাসপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনকে কেন্দ্র করে নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শরফিুল ইসলাম রমজান বলেন, দলে অনুপ্রবেশকারী এবং বিদ্রোহী প্রার্থীরা কোন পদ পাবেন না। কারো পরিচয়ে পদ লাভের সুযোগ নেই। যার যার যোগ্যতা এবং তৃণমূলের জনপ্রিয়তার ভিত্তিতে প্রার্থী নির্বাচিত করবেন কেন্দ্রীয় নেতারা।


প্রকাশিত: নভেম্বর ১৩, ২০২২ | সময়: ৫:৩৪ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ