আয়ারল্যান্ড শিবিরে খুশির জোয়ার বিদায়ে বিষণ্ণ উইন্ডিজ

স্পোর্টস ডেস্ক: প্রবাদে আছে, ‘কারো পৌষ মাস তো কারো সর্বনাশ।’ আয়ারল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের ম্যাচটি এমন পরিস্থিতিই তৈরি করেছে। দুইবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের হারিয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভে উঠে আনন্দে আত্মহারা আইরিশরা। আর টুর্নামেন্টে থেকে বিদায় নিয়ে ক্যারিবিয়ান শিবিরে এখন রাজ্যের হতাশা, বিষণ্ণতা।
টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাঁচা-মরার ম্যাচে শুক্রবার আয়ারল্যান্ডের কাছে পাত্তাই পায়নি ওয়েস্ট ইন্ডিজ। হোবার্টে প্রাথমিক পর্বে ‘বি’ গ্রুপের ম্যাচে তারা হেরে যায় ৯ উইকেটে। ২০ ওভারের বৈশ্বিক আসরে এবারই প্রথম রাউন্ডে খেলল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। আর এই পরীক্ষায় ব্যর্থ হয়ে বিদায় নিল তারা আগেভাগে।
দলটির অধিনায়ক নিকোলাস পুরান দায় দিচ্ছেন নিজেদেরই। টুর্নামেন্ট জুড়ে তাদের ব্যাটিং ছিল নিষ্প্রভ। প্রথম ম্যাচে হেরে যায় তারা ৪২ রানে। স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ১৬০ রান তাড়ায় গুটিয়ে যায় স্রেফ ১১৮ রানে। দ্বিতীয় ম্যাচেও ব্যাটসম্যানরা ছিলেন ব্যর্থ। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আগে ব্যাটিং করে দলটি রান তোলে ১৫৩। পরে বোলারদের নৈপুণ্যে ওই ম্যাচে পায় ৩১ রানের জয়।
আইরিশদের সঙ্গে টিকে থাকার লড়াইয়ে আবার ব্যর্থ তাদের ব্যাটিং। ব্যাটিং সহায়ক উইকেটে করতে পারে কেবল ১৪৬ রান। এবার আর পল স্টার্লিং, অ্যান্ডি বালবার্নি, লর্কান টাকারদের বিপক্ষে লড়াই-ই করতে পারেননি বোলাররা। বাজে হারের পর পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে ছলছল চোখে পুরান বললেন, নিজেদের ও সমর্থকদের হতাশ করে কষ্ট হচ্ছে তাদের।
“আমরা এই টুর্নামেন্ট জুড়ে ভালো ব্যাটিং করিনি। ভালো ব্যাটিং উইকেটে ১৪৫ রান ডিফেন্ড করা বোলারদের জন্য সত্যিই কঠিন কাজ। আয়ারল্যান্ডকে অভিনন্দন, তারা অসাধারণ ব্যাটিং ও ভালো বোলিং করেছে।” “এটা আমাদের জন্য শিক্ষণীয় ম্যাচ। নিজেদের ও সমর্থকদের হতাশ করেছি আমরা। অবশ্যই কষ্ট হচ্ছে। আমি নিজে খারাপ খেলে ছেলেদের হতাশ করেছি।”
ক্যারিবিয়ানদের যতটা কষ্ট হচ্ছে, ততটাই উচ্ছ্বসিত আয়ারল্যান্ড শিবির। প্রথমবারের মতো যে তারা জায়গা করে নিল টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভে। গত বছর সংযুক্ত আরব আমিরাতের আসরেও প্রাথমিক পর্বে খেলেছিল আয়ারল্যান্ড। কিন্তু সেবার জয় দিয়ে শুরুর পর বিদায় নিতে হয় টানা দুই হারে। আইরিশ অধিনায়ক বালবার্নি বলেছেন, এরপর থেকে নিজেদের মধ্যে অনেক পরিবর্তন এনেছেন তারা। একই মঞ্চে একই পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়ে এবার আর ভুল করতে চাননি।
“এটা (জয়) আমাদের জন্য সব কিছু। গত বছর এই মঞ্চেই (নামিবিয়ার বিপক্ষে) আমরা হতাশাজনকভাবে হেরেছিলাম। এরপর আমরা অনেক ভেবেছি এবং অনেক কিছু পরিবর্তন করেছি। বিশ্বকাপে ফিরে দুইবারের চ্যাম্পিয়নদের হারানো আনন্দদায়ক, এর চেয়ে গর্বের আর কিছু হতে পারে না। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে নিজেদের দিনে যে কোনো কিছুই ঘটতে পারে।”
এ দিন ক্যারিবিয়ান বিস্ফোরক ব্যাটিং লাইনআপকে জ্বলে উঠতেই দেননি আয়ারল্যান্ডের বোলাররা। যেখানে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রাখেন গ্যারেথ ডেলানি। ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে মাত্র ১৬ রান দিয়ে এভিন লুইস, পুরান ও রভম্যান পাওয়েলের উইকেট নেন এই লেগ স্পিনার।
রান তাড়ায় ৩৭ রানের বিস্ফোরক ইনিংসে দলকে ভালো শুরু এনে দেন বালবার্নি। ৬৬ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলে দলের জয় সঙ্গে নিয়ে মাঠ ছাড়েন স্টার্লিং। টাকার খেলেন ৪৫ রানের অপরাজিত ইনিংস। এমন পারফরম্যান্সে সতীর্থদের স্তুতি গাইলেন অধিনায়ক বালবার্নি।
“স্টার্লিং আমাদের সবসময়ের সেরা ব্যাটসম্যানদের একজন। সে যেভাবে খেলেছে আমার জন্য কাজটা সহজ হয়েছে। একই সঙ্গে আমার ব্যাটিংয়ে তার কাজও সহজ হয়ে যায়। লর্কান নেমে যেমন সাবলীলভাবে খেলেছে, তা ছিল দারুণ। এটা অলরাউন্ড পারফরম্যান্স। বোলাররা দুর্দান্ত করেছে, উইকেট ভালো ছিল। আইরিশদের গর্বের একটি দিন।”


প্রকাশিত: অক্টোবর ২২, ২০২২ | সময়: ৫:৩৬ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ

আরও খবর