অবৈধদের যানের চাপে বৈধ যানবাহন কোণঠাসা

স্টাফ রিপোর্টার: যে কেউ একটি অটোরিকশা, সিএনজি কিনছে। ব্যাস পরের দিন থেকেই নেমে পড়ছে মহাসড়কে। রাজশাহীর সড়ক থেকে মহাসড়কে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে সিএনজি, ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা। তিন চাকার এ যানগুলো সংখ্যা দিন দিন বাড়তে থাকায় জেলায় একদিকে যেমন বাড়ছে যানজট, তেমনি ঘটছে দুর্ঘটনা। জানমালের ক্ষতি হচ্ছে প্রতিনিয়ত। এ যেন মহাসড়কের এক মহা যন্ত্রণা। অবৈধদের অত্যাচারে বৈধ যান চলাচলই চরমভাবে বাঁধার মুখে পড়েছে। প্রায় সময় সিএনজি ও অটোচালকদের হাতে মারধরের শিকার হচ্ছে বাস শ্রমিকরা। এ নিয়ে বাস মালিক ও শ্রমিকদের মধ্যে চরম অসন্তোষ বিরাজ করছে।
সোমবার বাস চালককে মারধর করার ঘটনার প্রতিবাদে মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে রাজশাহী সড়ক পরিবহন গ্রুপ ও রাজশাহী জেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ। যৌথ এ সংবাদ সম্মেলন থেকে রাজশাহীর সড়কে সিএনজি, হিউম্যানহলার ও অটোরিক্সার বন্ধের দাবি জানানো হয়।
রাজশাহী শিরোইল বাস টার্মিনালের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সাংবাদ সম্মেলনে রাজশাহী মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মাহাতাব হোসেন জানান, রাজশাহীর সড়কগুলোতে অতিরিক্ত পরিমানে সিএনজি, হিউম্যান হলার ও অটোরিকশা চলাচল করে। প্রতিটি সড়কের ধারণ ক্ষমতা রয়েছে। ধারণ ক্ষমাতার বেশি এই সকল যানবাহনগুলো চলাচল করে। ফলে প্রতিনিয়ত ঘটে দুর্ঘটনা। রাজশাহীর তানোর, বাগমারা, দুর্গাপুরসহ অন্য উপজেলাগুলোর সড়কগুলোর চিত্র একই।
সিএনজির বেশির ভাগই নম্বর প্লেট নেই। তারপরেও তারা সড়কে চলাচল করছে। এসব সিএনজি অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে মহাসড়কগুলোতে চলাচল করছে। বিষয়টি বেআইনি হলেও কেউ কোন কথা বলেনা।
মহাসড়কে তিন চাকার যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নজরদারির অভাবে সর্বত্রই দাপিয়ে বেড়াচ্ছে এসব যান। যত্রতত্র দাঁড়িয়ে যাত্রী নামানো-ওঠানো হয়। এতে প্রায়ই যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে সড়কে। দুর্ঘটনায় ঘটছে প্রাণহানি। অটোরিকশার কারণে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে জনজীবন।
সোমবার (৩ অক্টোবর) সকালে তানোরে ‘এ সাকিব পরিবহন’র বাস চালক মো. বেলালকে সিএনজি চালকরা মারধর করেছে। এতে তিনি আহত হন। পরে বাস চালক ও শ্রমিকরা ক্ষিপ্ত হয়ে মঙ্গলবার সকালে রাজশাহীর উপজেলা পর্যায়ে বাস চলাচল বন্ধ করে দেয়। এসময় শ্রমিক নেতৃবৃন্দের আশ্বাসে আবার পরিবহন চলাচল স্বাভাবিক হয়।
সংবাদ সম্মেলনে নেতৃবৃন্দ জানান, মহাসড়কে অটোরিকশা ও সিএনজি চলাচল নিয়ে বাস মালিক ও শ্রমিকদের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে অসন্তোষ বিরাজ করছে। প্রায় সময় বাস চালক থেকে শুরু করে অন্য শ্রমিকরাও মারধরের শিকার হচ্ছে। মহাসড়কগুলোতে সিএনজি, অটোরিকশা বন্ধ না করা হলে আগামীতে শ্রমিকরা আন্দোলনে নামবে। এ বিষয়ে প্রশাসনকে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন মালিক ও শ্রমিক নেতৃবৃন্দ।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী সড়ক পরিবহন গ্রুপের কার্যনির্বাহী সদস্য মাহাবুবুর আলম মাসুমসহ অন্য শ্রমিক নেতৃবৃন্দ।


প্রকাশিত: অক্টোবর ৫, ২০২২ | সময়: ৬:২০ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ