‘ফুটবল বিশ্বকাপ’ ট্রফির আদলে রাজশাহীর পুজামণ্ডপ

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহীতে মন্ডপ তৈরীতে প্রতিবার চলে প্রতিযোগীতা। এ প্রতিযোগীতায় বাহারী সব থিমের আদলে সাজানো হয় মন্ডপ। বিশেষ করে রাজশাহীর টাইগার সঙ্গের পূজামন্ডপ মানেই নতুন কিছু। এবারও তার ব্যতিক্রম হয় নি। সামনে কাতার ফুটবল বিশ্বকাপ ট্রফির আদলে গড়ে তোলা হয়েছে তাদের মন্ডপ।
প্রতিবছরই ভিন্নধর্মী থিম নিয়ে মণ্ডপ সাজিয়ে রাজশাহীতে আলোচনার কেন্দ্রে থাকে ‘টাইগার সংঘ’। এবার আসন্ন কাতার বিশ্বকাপের ট্রফির আদলে মণ্ডপ সাজিয়ে তাক লাগান তারা। রাজশাহী নগরের রাণীবাজার মোড়ে টাইগার সংঘের পূজার মণ্ডপটিতে এবার ২৬ ফুটের একটি বিশ্বকাপ ট্রফির আদল। সঙ্গে রয়েছে বিশ্বকাপে অংশগ্রহণকারী ৩২টি দেশের পতাকা। ঠিক মাঝখানে বাংলাদেশের পতাকা। পাশেই একতাবদ্ধের প্রতীক।
আয়োজকরা জানান, এবার টাইগার সংঘের ৪০তম পূজা অনুষ্ঠিত হবে। গত বছর করোনার সচেতনতায় করোনা ও মাস্ক দিয়ে থিম করা হয়েছিল। এর আগে আইয়ুব বাচ্চুর মৃত্যুকে স্মরণ করে রুপালি গিটারে সেজেছিল মণ্ডপ। এছাড়া বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট, বাহুবলী, ক্রিকেট বিশ্বকাপ চলাকালে রয়েল বেঙ্গল টাইগারের মুখের অবয়ব দিয়ে মণ্ডপ তৈরি করে প্রশংসা কুড়ায় টাইগার সংঘ। এবার টাইগার সংঘের পূজামণ্ডপটি সাজানো হয়েছে দুইভাবে। প্রতিমা ও মঞ্চ উভয়ই পৃথক অর্থ বুঝাবে।
টাইগার সংঘের সাধারণ সম্পাদক পার্থ পাল চৌধুরী এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, বরাবরই শারদীয় দুর্গোৎসবে নতুন আর ব্যতিক্রমী সাজে মণ্ডপ সাজিয়ে থাকে টাইগার সংঘ। এবার আসন্ন কাতার বিশ্বকাপ ফুটবল উন্মাদনার কথা মাথায় রেখে ২৬ ফুটের একটি ট্রফি ও বিভিন্ন দেশের পতাকা এবং বিশ্বকাপ লোগো দিয়েই থিম করা হয়েছে। কাতার ফুটবল বিশ্বকাপের ইভেন্ট পয়েন্টগুলো দিয়ে মণ্ডপ সাজানো হয়েছে। প্যান্ডেলের রঙও ফিফার অফিসিয়াল চারটি রঙে।
তিনি আরও বলেন, থিমের সাইজ হবে ৪২ ফুট ও ৩০ ফুট। মূল ট্রফিটি হবে ২৬ ফুট লম্বা ও ১০ ফুট চওড়া। এটি ৪০ ফুট করার কথা ছিল। কিন্তু সেই প্রযুক্তি না থাকায় কমিয়ে আনা হয়েছে। এছাড়া ৩২টি দেশের পতাকাও থাকবে। আমাদের প্রতিমাও এবার রাজশাহীর মধ্যে সবচেয়ে বড় হবে। এটি লম্বায় হবে ১২ ফুট। প্রতিমা বসানোর স্থানটিও বিশ্বকাপ ট্রফির নিচের আদলে বানানো হয়েছে। ইতিমধ্যে দৃশ্যমান হয়েছে মন্ডপ। মন্ডপের পুরো ভিউ দেখতে আরও কয়েকদিন লাগবে।
এদিকে পিছিয়ে নেই অন্য আয়োজক কমিটিগুলোও। কারণ প্রতিবছরই রাজশাহীর পূজা মণ্ডপগুলোতে সাজ-সজ্জায় এক ধরনের প্রতিযোগিতা চলে। তাদের মধ্যে অন্যতম নগরীর সাগরপাড়া এলাকার শিবালয় মন্দির। তারা রাজশাহীতে সিনেমা হলের অভাব বোঝাতে এবং সেই পুরানো স্মৃতি নিয়ে গত বছর মণ্ডপ সাজিয়ে প্রশংসিত হয়। এবার তারা ভাবছে ভিন্নধারায়। পুরো বিশ্বের যুদ্ধ পরিস্থিতি নিয়েই এবার হবে তাদের থিম। তাদের মূল বার্তা হবে ‘যুদ্ধ নয় শান্তি চাই’।
শিবালয় মন্দিরের সাধারণ সম্পাদক দেবাশিষ প্রামানিক দেবু বলেন, এবার আমরা চেষ্টা করছি যুদ্ধ নয় শান্তি চাই থিম নিয়ে একটি মণ্ডপ সাজাতে। সারা বিশ্বের যে যুদ্ধ পরিস্থিতি তা তুলে ধরতে চাই। এ মুহূর্তে বিশ্বের ১০টি দেশে সম্মুখ যুদ্ধ হচ্ছে। আর ২৭টি দেশে গৃহযুদ্ধ হচ্ছে।
তিনি আরও বলেন, মূলত এবার রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাব এবং তাদের যুদ্ধের কিছু খণ্ডচিত্র দিয়েই এবার মণ্ডপ সাজানো হবে।
রাজশাহীতে এবার ৪৫২টি মণ্ডপে দুর্গোৎসবের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। এরমধ্যে রাজশাহী নগরীতে ৭৫টি ও জেলার নয়টি উপজেলায় ৩৭৭টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা উদযাপিত হবে। ৯টি উপজেলার মধ্যে গোদাগাড়ীতে ৩৯টি, তানোরে ৬০টি, পবায় ১৮টি, মোহনপুরে ২২টি, পুঠিয়ায় ৫১টি, দুর্গাপুরে ১৭টি, চারঘাটে ৪১টি, বাঘায় ৪৬টি, বাগমারায় ৮৩টি মণ্ডপে পূজার আয়োজন করা হয়েছে।


প্রকাশিত: অক্টোবর ২, ২০২২ | সময়: ৬:৫২ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ