সর্বশেষ সংবাদ :

ঋণের চাপে একসাথে স্বামী-স্ত্রীর আত্মহত্যার চেষ্টা, স্ত্রীর মৃত্যু

বড়াইগ্রাম প্রতিনিধি: নাটোরের বড়াইগ্রামে সুদি মহাজনের চাপে বিষের বড়ি খেয়ে এক সঙ্গে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন স্বামী-স্ত্রী। স্ত্রী বিথী আক্তারের (২৩) মৃত্যু হয়েছে। অন্যদিকে মৃত্যুপথযাত্রী স্বামী ওমর ফারুক (৩২)। সঙ্কটাপন্ন অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন তিন।
শুক্রবার উপজেলার বনপাড়া পৌরসভার কালিকাপুর এলাকায় এ মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে। চিকিৎসাধীন ওমর ফারুক কালিকাপুর মহল্লার মফিজ উদ্দিনের ছেলে। নিহত বিথী ওমর ফারুকের ২য় স্ত্রী বলে জানা গেছে।
নিহতের স্বজন ও স্থানীয়রা জানান, প্রায় দেড় বছর আগে ফল ব্যবসায়ী ওমর ফারুক উপজেলার মৌখাড়া এলাকার আবুল বাশারের মেয়ে বিথীকে বিয়ে করে পাশের হালদার পাড়া এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতেন। দ্বিতীয় বিয়ে করা নিয়ে তাদের সংসারে কিছুটা কলহ থাকতে পারে বলে কেউ কেউ জানিয়েছেন।
তবে স্বজনসহ স্থানীয়রা নিশ্চিত করেন, ব্যবসার প্রয়োজনে ফারুক বিভিন্ন এনজিও এবং সুদি মহাজনদের কাছ থেকে চড়া সুদে প্রায় ১০ লাখ টাকা ঋণ নিয়ে তাতের জালে আটকা পড়েছিল। সম্প্রতি ঋণের কিস্তি দিতে না পারায় বেশির ভাগ সময় দোকান বন্ধ রেখে তিনি আত্মগোপনে থাকতেন।
শুক্রবার সকালে তারা একসাথে ইঁদুর মারা বিষের বড়ি খান। পরে তারা হেঁটে ফারুকের পৈত্রিক বাড়িতে যান। সেখানে ফারুকের মায়ের কাছে ক্ষমা চেয়ে কিছুক্ষণের মধ্যেই তারা দুজনই পরপারে চলে যাবেন বলে জানান।
এ সময় স্বজনরা বুঝতে পেরে তাদের প্রথমে স্থানীয় ক্লিনিকে ও পরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে বিথী আক্তার মারা যান। ওমর ফারুক বর্তমানে রাজশাহীর বেসরকারী নিউ লাইফ হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন আছেন। তবে তার অবস্থাও আশঙ্কাজনক বলে জানান স্বজনরা।
ওমর ফারুকের মা ফেরদৌসী বেগম জানান, দ্বিতীয় বিয়ে করায় কিছুটা মান অভিমান থাকলেও সংসারে এ নিয়ে তেমন কোন কলহ ছিল না। মূলত সুদি মহাজন ও বিভিন্ন এনজিও কর্মীদের চাপে তারা এক প্রকার পলাতক জীবন যাপন করছিলেন। তাদের চাপেই আমার ছেলে ও ছেলের বৌ এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
বনপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ পরিদর্শক রাশেদুল ইসলাম জানান, নিহতের লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে। তার অনেক টাকা ঋণ রয়েছে বলে শুনেছি। এছাড়া একাধিক বিয়ে করা নিয়েও পারিবারিক কলহ ছিল বলে জানা গেছে।
এর আগে গত ৪ আগস্ট একই ভাবে সুদি মহাজনদের চাপে বনপাড়া পৌরসভার কালিকাপুর নতুন বাজার মহল্লার মোবাইল ব্যবসায়ী শরীফুল ইসলাম সোহেল (৩৪) ধারালো বটি দিয়ে নিজের গলা কেটে আত্মহত্যা করেন।


প্রকাশিত: আগস্ট ২৭, ২০২২ | সময়: ৪:৪৮ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ