জ্বালানির দাম বাড়ায় ক্ষুব্ধ যাত্রী, বিপাকে চালক

সানশাইন ডেস্ক: ময়মনসিংহে এনা পরিবহন যাত্রীদের কাছে আগের ভাড়া নিলেও, বাড়িয়েছে অভ্যন্তরীণ রুটের শালবন পরিবহন। জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর পর বাসের ভাড়া বেড়ে যাওয়ায় ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন ময়মনসিংহের যাত্রীরা; বিপাকে পড়েছেন চালকরা।
আর পরিবহন নেতারা বলছেন, এ পরিস্থিতিতে ভাড়া বাড়ানোর বিকল্প নেই। শনিবার প্রথম প্রহর থেকে জ্বালানি তেলের বাড়তি দাম কার্যকর হয়েছে। বাসের জ্বালানি ডিজেলের দাম লিটারে ৩৪ টাকা বাড়িয়ে ১১৪ টাকা হয়েছে। ছোট গাড়ি ও মোটর সাইকেলের জ্বালানি পেট্রোল ও অকটেনের দাম যথাক্রমে বেড়েছে ৪৪ ও ৪৬ টাকা।
এ দাম বৃদ্ধির পর শনিবার সকাল থেকে ময়মনসিংহ থেকে ঢাকাগামী অনেক বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। অন্যান্য দিন রাস্তায় যানজটে ঠাসা থাকলেও আজকের চিত্র ছিল ভিন্ন। তবে নগরীর মাসকান্দা বাস টার্মিনাল থেকে পূর্বের ভাড়ায় ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাচ্ছে এনা পরিবহন। এনা কর্তৃপক্ষ বলছে, আজকালের মধ্যেই ভাড়া বাড়নো হবে। অন্যথায় ‘ভর্তুকি’ দিয়ে বাস চালানো সম্ভব নয়।
পরিবহন নেতারা বলছেন, এ পরিস্থিতিতে ভাড়া বাড়ানোর বিকল্প নেই। শহরের মাসকান্দা বাস টার্মিনালে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের কথা হয় এনা পরিবহনের যাত্রী হোসনে আরা বেগমের সঙ্গে। তার গন্তব্য ঢাকা। ভাড়া বাড়ানোর প্রসঙ্গে এ নারী বলেন, “একের পর এক জিনিসের দাম সরকার যেভাবে বাড়াচ্ছে, এতে করে আমাদের সাধারণ মানুষের চলার পথ বন্ধ হচ্ছে। আজকে না হয় আগের ভাড়ায় যাচ্ছি, কিন্তু কাল থেকে হয়তো বেশি ভাড়া দিয়ে যেতে হবে।”
এনা পরিবহনের মাসকান্দা বাস টার্মিনালের ম্যানেজার রতন কুমার পণ্ডিত বলেন, “ময়মনসিংহ থেকে ঢাকাগামী সবচেয়ে ভালো সার্ভিস এনা পরিবহন। জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি পেলেও আমরা আগের মতো ২৬০ টাকা করে ভাড়া নিচ্ছি। তবে ভর্তুকি দিয়ে খুব বেশিদিন বাস চালানো যাবে না।” “সরকার যদি ভাড়া বৃদ্ধি না করে তাহলে আন্দোলনে যাওয়া ছাড়া আর কোনো রাস্তা থাকবে না”, যোগ করেন তিনি।
ঢাকাগামী এনা বাসের আরেক যাত্রী রবিউল আওয়াল বলেন, “ডিজেলের দাম বেড়ে যাওয়ার ফলে বাসে ভাড়া বাড়বে সেটা তো স্বাভাবিক বিষয়। কিছুদিন আগেই সরকার থেকে বলা হয়েছে, জ্বালানি তেলের সঙ্কট দেশে নেই, বিদেশে রপ্তানি করা হয়। বাসের ভাড়া বেড়ে যাওয়ায় ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন ময়মনসিংহের যাত্রীরা।
“তাহলে কোনো কারণ ছাড়াই হঠাৎ কেন জ্বালানি তেলের দাম বাড়লো? আমরা এর কারণ জানতে চাই সরকারের কাছে।” ময়মনসিংহ-ঢাকা রুটের সৌখিন পরিবহন বাসের যাত্রী মোহাম্মদ আলী বলেন, জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর কারণে ৫০ টাকা ভাড়া বৃদ্ধি করা হয়েছে। এদিকে ময়মনসিংহে অভ্যন্তরীণ রুটেও বেশ কিছু বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। তবে সকালে শালবন পরিবহনের চালক ও সহকারীকে বেশি ভাড়ায় যাত্রী উঠাতে দেখা গেছে।
এর কারণ জানতে চাইলে শালবন পরিবহনের একটি বাসের চালকের সহকারী মো. আসলাম বলেন, “ময়মনসিংহ থেকে ত্রিশাল পর্যন্ত আগে ভাড়া ছিল ২০ টাকা। শুক্রবার রাত থেকে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ায় ভাড়া এখন ২৫ টাকা করা হয়েছে।”
জ্বালানির তেলের দাম বৃদ্ধি পাওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়লে শুক্রবার রাত ১০টার পর ময়মনসিংহের বিভিন্ন পেট্রোল পাম্পে আগের দামে তেল কিনতে হিড়িক পড়ে ট্রাক ও বাইক চালকদের। অনেকে অতিরিক্ত লাভের আশায় পাম্প বন্ধ করে আবার রাত ১২টা পর থেকে বিক্রি শুরু করে।
নগরীর মাসকান্দা এলাকার এম এস স্টার ফিলিং স্টেশনের ম্যানেজার শামছুল আলম বলেন, “জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির খবর শোনার পর পরেই শত শত বাইক ও ট্রাক তেল কিনতে আসলে তাদের চাপে পাম্প বন্ধ করা হয়। কিছুক্ষণ পরেই আবার চালু করা হয়। তিনি বলেন, “শনিবার পর্যন্ত আগের তেল বিক্রি করতে পারব। এখন নতুন দামেই বিক্রি করছি। যেহেতু তেল স্টকে রয়েছে; লাভ তো একটু বেশি হবেই।”
ময়মনসিংহ জেলা পরিবহন মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান বলেন, জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় আমাদের গাড়ি চালিয়ে কোনো লাভ হবে না। তাই আমরা কাউকে কিছু বলিনি। যার মন চাইতেছে সে গাড়ি চালাচ্ছে, তবে অনেকে বন্ধ রেখেছে। সরকারের সাথে সমন্বয় ছাড়া গাড়ি ভাড়া বৃদ্ধিও করা যাবে না উল্লেখ করে এ পরিবহন নেতা বলেন, “কেন্দ্রীয় নেতারা যেভাবে সিদ্ধান্ত দেবে আমরা তাই মেনে চলব। তবে এখন ভাড়া বাড়ানো ছাড়া আর কোনো বিকল্প দেখছি না।”


প্রকাশিত: আগস্ট ৭, ২০২২ | সময়: ৫:৫৭ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ

আরও খবর