সর্বশেষ সংবাদ :

খড়খড়িতে রাতের আঁধারে খাল ভরাট

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহী মহানগরীর খড়খড়ি মোড়ে রাতের আঁধারে সড়ক বিভাগের সরকারী খাল ভরাটের অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার দুপুরে খালটি ভরাট বন্ধের জন্য সড়ক বিভাগ, রাজশাহীর নির্বাহী প্রকৌশলী বরাবর স্থানীয়দের পক্ষ থেকে লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে।
অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, রাজশাহীর পবা উপজেলার খড়খড়ি বাইপাস মোড় সংলগ্ন মাংস পট্টির পূর্ব পাশের খাল সাত শতক (আনুমানিক) জায়গা গত ২৫ মে সকাল ১০ টা থেকে ভরাটের কাজ করে রাবেয়া, তার স্বামী: হারুন আর রশিদ, শামসুল, সোহেল ও আহসান আলীসহ স্থানীয় কয়েকজন ব্যক্তি। দীর্ঘদিন ধরে এই খালে হাটের কিছু ময়লা ও সড়কের পানি এই খালে নামতো। এ কারণে কখনো জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হতোনা।
সড়ক বিভাগে লিখিত আকারে জানানোর পর সংশ্লিষ্ট কর্র্র্তৃপক্ষ ঘটনাস্থলে গিয়ে সরকারী খাল ভরাট বন্ধ করে দেয়। সড়ক বিভাগের এ নির্দেশনার পর কিছুদিন উপরে উল্লেখিত ব্যক্তিরা ভরাটের কাজ বন্ধ রাখে। কিন্ত কিছুদিন থেমে থাকার পর ২৫ জুলাই গভীর রাত থেকে আবারো ট্রাকে করে মাটি নিয়ে এসে ভরাটের কাজ শুরু করে তারা। এ অবস্থায় আবার খালটি ভরাট বন্ধ করা জরুরী। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বাজারের নাইটগার্ড আহসান আলীর সহযোগিতায় ভরাটের কাজ অব্যাহত রেখেছে।
খাল ভরাট হয়ে গেলে স্থানীয় মানুষের চলাফেরা ও বাজারের দোকানীদের সমস্যা হবে। এ ছাড়া সরকারী জায়গা দখল হওয়া থেকে বেঁচে যাবে। সরকারী এই খালটি সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষ অর্থাৎ সড়ক বিভাগের অজান্তেই নিজেরা খালটি অন্য মানুষের কাছে ভাড়া দিয়েছে। এই খালটি ভাড়া দিয়ে তারা কয়েক লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। এতে স্থানীয়দের মাঝে চরম ক্ষোভ ও অসন্তোষ সৃষ্টি হয়েছে। খাল ভরাটকারীরা বখাটে ও মাস্তান প্রকৃতির লোক হওয়ায় ভয়ে কেউ কিছু বলতে পারছে না। খালটি ভরাট করা বন্ধের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানানো হয়।
এ বিষয়ে সড়ক ও জনপথ বিভাগ রাজশাহীর নির্বাহী প্রকৌশলী বলেন, সড়ক বিভাগের জমি কারো ভাড়া দেওয়ার সুযোগ নেই। খোঁজখবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


প্রকাশিত: জুলাই ২৮, ২০২২ | সময়: ৫:৫৯ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ