সর্বশেষ সংবাদ :

বাঘা উপজেলাকে ভূমিহীন মুক্ত ঘোষনা

নুরুজ্জামান,বাঘা : জাতীর পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জীবন দশায় বলে ছিলেন, আমার দেশের প্রতি মানুষ খাদ্য পাবে, আশ্রয় পাবে, শিক্ষা পাবে, উন্নত জীবনের অধিকারী হবে। পিতার এই স্বপ্নকে বাস্তবে রুপ দিতে চলেছেন তাঁরই সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৃহস্পতিবার (২১ জুলাই) সকালে আশ্রয়ন প্রকল্প -২ এর তৃতীয় পর্যায়ের দ্বিতীয় ধাপ প্রকল্প বাস্তবায়নকল্পে গনভবন থেকে দেশবাসির সাথে সরাসরি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে তিনি এ কথা বলেন। একই সাথে দেশের বেশ কিছু এলাকাকে তিনি ভূমিহীন ও গৃহহীন(ক-শ্রেণি) ঘোষনা করেন। এর মধ্যে রয়েছে রাজশাহীর বাঘা, চারঘাট ও মহনপুর উপজেলা।

প্রধানমন্ত্রী এ দেশের মানুষের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে বলেন, আপনারা আমাকে বার-বার নির্বাচিত করার কারণে আমি আমার বাবার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে পারছি। তিনি বলেন, বিএনপি সরকার আমলে একবার দেশে ঘূর্নিঝড়ে অনেক মানুষ মারা যায়। তখন আমার এক প্রশ্নের উত্তরে খালেদা জিয়া বলেন, যে পরিমান মানুষ মারা যাওয়ার কথা ছিলো, সে পরিমান মারা যায়নি। প্রধান মন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশে উৎপাদন বাড়াতে হবে। কোন জমি ফাঁকা রাখা যাবেনা। আমরা যে লক্ষ নিয়ে আগাচ্ছি, মানুষ যদি একটু সাশ্রয়ী হয়ে ঠিক মত ফসল ফলায় তাহলে এ দেশে কোন কিছুর ঘাটতি থাকবে না।

এদিকে সকাল ১১ টায় প্রধানমন্ত্রীর ভার্চুয়াল সভার শেষ প্রান্তে বাঘা উপজেলা পরিষদের সম্মেলন কক্ষে নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তারের সভাপতিত্বে আয়োজিত অনুষ্ঠানে স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয় উপ-পরিচালক শাহানা আক্তার বলেন, দেশ উন্নয়নের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তাঁর পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়নে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। তাঁর বিশেষ কয়েকটি উদ্যোগের মধ্যে অন্যতম আশ্রয়ন প্রকল্প। এই পকল্প বাস্তবায়ন সম্পুর্ণ হলে এ দেশে কেউ গৃহহীন থাকবে না ।

তিনি বলেন, এই প্রকল্পের আওতায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার (২১ জুলই) সারা দেশে ২৬ হাজার ২২৯ টি পরিবারের মাঝে গৃহ হস্তান্তরের শুভ উদ্বোধন ঘোষনা করেন। তাঁর এই ঘোষনা শোনার পর বাঘা উপজেলা প্রশাসনের পক্ষে আমি উপস্থিত থেকে ৩০ টি পরিবারের হাতে জমির কাগজ সহ চাবি হস্তান্তর করি। এতে খুশিতে আবেগ-আপ্লুত হয় ঘর পাওয়া সকল পরিবার।

সভায় বাঘা উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তার বলেন, দেশব্যাপী জমি সহ গৃহ নির্মানের অংশ হিসাবে বাঘার ৭ টি ইউনিয়নে এ পর্যন্ত ১৪৯ টি পরিবারের মাঝে গৃহ হস্তান্তর করা হলো। একই সাথে এই উপজেলাকে ভূমিহীন ও গৃহহীন(ক-শ্রেণি) ঘোষনা করা হলো। তিনি বলেন, সরকার এ সকল পরিবারের মাঝে বিদ্যুৎ এবং সু-প্রিয় পানির ব্যবস্থা সহ তাদেরকে আর্থিক ভাবে সাবলম্বী করার বিষয়েও আমাদের প্রতি দিক নির্ধেশনা দিয়েছেন। আমরা সেই লক্ষে কাজ করে যাচ্ছি।

আয়োজিত ভার্চুয়াল মিটিং-এ অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাঘা উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আব্দুল মোকাউদ্দেস, উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম বাবুল ও বাঘা থানা অফিসার ইনচার্জ(ওসি) সাজ্জাদ হোসেন। উপস্থিত ছিলেন সহকারি কমিশনার ভূমি, সকল ইউপি চেয়ারম্যান, রাজনৈতিক নেত্রীবৃন্দ। উপজেলার সকল দপ্তরের প্রধান কর্মকর্তা , সুশীল সমাজের লোকজন , স্থানীয় গনমাধ্যম কর্মী ও স্বপ্নের ঘর পাওয়া ৩০ জন উপকার ভোগী।


প্রকাশিত: জুলাই ২১, ২০২২ | সময়: ২:৪৪ অপরাহ্ণ | সানশাইন