সর্বশেষ সংবাদ :

স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধনকে কেন্দ্র করে উচ্ছাসিত রাজশাহী 

স্টাফ রিপোর্টার
দীর্ঘ অপেক্ষা আর ক্ষণ গণনা শেষে শনিবার সকাল থেকেই মুক্তিযুদ্ধ স্টেডিয়ামসহ আশেপাশের এলাকায় সাজসাজ রব। এ অনুষ্ঠানকে ঘিরে কয়েক স্তরের নিরপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে। দলবেঁধে খোশগল্পে আনন্দে বাঁধ ভাঙ্গা উচ্ছাস নিয়ে সকাল আটটার পর থেকেই হাজির হতে থাকেন কয়েকহাজার মানুষ। রাজশাহী মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি স্টেডিয়ামে পদ্মা সেতুর উদ্বোধনকে কেন্দ্র করে শনিবার রাজশাহী মহানগরের তিনটি স্থানে সমাবেশ করে পদ্মা সেতুর মূল উদ্বোধনী অনুষ্ঠান বড় পর্দায় দেখানো হয়। পরে অনুষ্ঠান শেষে সাধারণ মানুষের মাঝে মিষ্টি বিতরণ করা হয়েছে।

এর আগে স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে শনিবার সকালে নগরীর শহীদ এ.এইচ.এম কামারুজ্জামান চত্বর থেকে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা শহরের প্রধান-প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি স্টেডিয়ামে গিয়ে শেষ হয়। জেলা প্রশাসনের আয়োজিত দৃষ্টি নন্দন এই শোভাযাত্রাটি জেলার মধ্যে স্মরণকালের সবচেয়ে বড় শোভাযাত্রা বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। প্রায় দুই কিলোমিটার লম্বা এই শোভাযাত্রায় প্রায় দশ হাজার মানুষ উপস্থিত ছিলেন। শোভাযাত্রায় জেলা প্রশাসনের মহিলা কর্মকর্তাদের উপস্থিতি নতুন মাত্রা সৃষ্টি করেছে।

এরপর শোভাযাত্রা শেষে মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি স্টেডিয়ামে বড় পর্দায় পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপভোগ করেন বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ।বর্ণাঢ্য আনন্দ শোভাযাত্রায় জেলা প্রশাসক আব্দুল জলিল এঁর নেতৃত্বে উপস্থিত ছিলেন, বিভাগীয় কমিশনার জিএসএম জাফরউল্লাহ্, রাজশাহী রেঞ্জের ডিআইজি মো. আব্দুল বাতেন, অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (রাজস্ব) আবু তাহের মো মাসুদ রানা, অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) মো. জিয়াউল হক, আরএমপি’র কমিশনার মো. আবু কালাম সিদ্দিক, পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের (ভারপ্রাপ্ত) সভাপতি অনিল কুমার সরকার, বীর মুক্তিযোদ্ধা জিন্নাতুন নেসা তালুকদার, জেলা প্রশাসনের কার্যালয়ের স্থানীয় সরকার উপপরিচালক শাহানা আখতার জাহান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মুহাম্মদ শরিফুল হক,অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) জয়া মারীয়া পেরেরা, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) সাবিহা সুলতানা, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) কল্যাণ চৌধুরী, পবা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইউএনও লসমী চাকমা, চারঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার সৈয়দা সামিরা, পুঠিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার নূরুল হাই মোহাম্মদ আনাছ, মোহনপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. সানওয়ার হোসেন, গোদাগাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. জানে আলম।এছাড়াও জেলার বিভিন্ন সরকারি- বেসরকারি দফতরের কর্মকর্তা-কর্মচারী, মুক্তিযোদ্ধারা, আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ সহ আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা, সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ অংশ নেয়।

নগরীর সাহেববাজার বড় মসজিদের সামনে সমাবেশ করে মহানগর আওয়ামী লীগ। এ ছাড়া নগরীর অলোকার মোড়ে সমাবেত হন জেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধন করার পর রাজশাহীর এই তিন অনুষ্ঠানেই মিষ্টি বিতরণ করা হয়। সাহেববাজার জিরোপয়েন্টে মিষ্টি বিতরণ করেন নগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী কামাল, সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার ও জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি শাহীন আক্তার রেনী। এখানে পাঁচ মণ মিষ্টি বিতরণ করা হয়। এ অনুষ্ঠানে মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নিজেই নেচে নেচে অনুষ্ঠান মাতিয়ে তোলেন।

এদিকে সকালে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে একটি শোভাযাত্রা বের করেন। শোভাযাত্রা শেষে সবাই দলীয় কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেন। বড় পর্দায় সেখানে পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান দেখানো হয়। পরে মিষ্টি বিতরণ করা হয়। এ সময় জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অনিল কুমার সরকার, সাধারণ সম্পাদক আবদুল ওয়াদুদ দারাসহ অন্য নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

সানশাইন / শামি

 

 

 

 

 


প্রকাশিত: জুন ২৫, ২০২২ | সময়: ১১:০৫ অপরাহ্ণ | Daily Sunshine