সর্বশেষ সংবাদ :

সব পণ্যের দাম বাড়তি

সানশাইন ডেস্ক: চাল ব্যবসায়ীরা বলছেন, গত সপ্তাহের তুলনায় এই সপ্তাহে চালের কেজিতে দাম বেড়েছে ৮ টাকা পর্যন্ত। অবশ্য সরকারি বিপণন সংস্থা টিসিবির তথ্য অনুযায়ী গত এক সপ্তাহে চালের দাম বেড়েছে কেজিতে সর্বোচ্চ ৬ টাকা। কিছুদিন আগেও যে চাল (চিকন) ৭০ টাকায় পাওয়া যেত, এখন সেই চাল বিক্রি হচ্ছে ৭৬ টাকায়। তবে বাজারে ৫০ টাকার নিচে মোটা চাল পাওয়া যাচ্ছে না। যদিও গত সপ্তাহে এই চালের দাম ছিল ৪৫ টাকা কেজি। সরকারি বিবরণ সংস্থা টিসিবির তথ্য অনুযায়ী গত এক সপ্তাহে এই চালের দাম বেড়েছে কেজিতে ৭ শতাংশের বেশি।
রাজধানীর গোপীবাগ বাজারের চাল ব্যবসায়ীরা জানান, সব চালের দাম কেজিতে বেড়েছে ৪ থেকে ৮ টাকা পর্যন্ত। বিসমিল্লাহ ট্রেডার্স এর কর্মকর্তা রুহুল জানান, গত সপ্তাহে যে চাল ৬৮ টাকা কেজি দরে বিক্রি করা গেছে, এই সপ্তাহের সেই চাল বিক্রি হচ্ছে ৭২ থেকে ৭৫ টাকা। এছাড়া গরিবের মোটা চালের দাম ৪৬ টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ৫২ টাকা। রাজধানীর বাজারগুলোতে দেখা যায়, শুধু চাল নয়, আটা-ময়দা, মসুর ডাল, পিঁয়াজ, রসুন, হলুদ, খাসির মাংস এবং মুরগি ডিমের দাম বেড়েছে।
এর মধ্যে দেশি হলুদের দাম বেড়েছে সবচেয়ে বেশি। কেজিতে বেড়েছে ২০ থেকে ৩০ টাকা। ব্যবসায়ীরা বলছেন, গত সপ্তাহে যে হলুদ ২২০ টাকায় বিক্রি হয়েছে, এই সপ্তাহে সেই হলুদ বিক্রি হচ্ছে ২৫০ টাকা কেজি দরে। এছাড়া গত সপ্তাহে যে হলুদ ২০০ টাকায় বিক্রি হয়েছে, এই সপ্তাহে সেই হলুদ বিক্রি হচ্ছে ২২০ টাকা কেজি দরে। সরকারি বিপণন সংস্থা টিসিবির তথ্য অনুযায়ী গত এক সপ্তাহে এই হলুদের দাম বেড়েছে কেজিতে ১১ শতাংশ।
শুকনা মরিচ: এদিকে কেজিতে ২০ টাকা বেড়েছে আমদানি করা শুকনা মরিচের দাম। যে শুকনা মরিচ গত সপ্তাহে বিক্রি হয়েছে ৩০০ টাকা কেজি দরে, এই সপ্তাহে বিক্রি হচ্ছে ৩২০ কেজি দরে। তবে ভালো শুকনা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ৩৫০ টাকা কেজি দরে।
আটা ময়দা: এদিকে গত কয়েক সপ্তাহ ধরে আটা-ময়দার দাম বেড়েই চলেছে। এই সপ্তাহে নতুন করে বেড়েছে কেজিতে তিন থেকে চার টাকা। ব্যবসায়ীরা বলছেন, গত সপ্তাহে খোলা আটা ৪৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। এখন বিক্রি করতে হচ্ছে ৫০ টাকা কেজি দরে। অর্থাৎ এই সপ্তাহের খোলা আটার দাম বেড়েছে কেজিতে ৫ টাকা।
তবে টিসিবির তথ্য বলছে, গত এক সপ্তাহে খোলা আটার দাম কেজিতে বেড়েছে ১০ শতাংশ। এছাড়া প্যাকেট আটার দাম বেড়েছে কেজিতে চার টাকা। গত সপ্তাহে যে আটা ৫৯ টাকা কেজি দরে পাওয়া যেত ,এই সপ্তাহে সেই আটা বিক্রি হচ্ছে ৫৪ টাকা কেজি দরে। একইভাবে কত সপ্তাহে যে ময়দার দাম ছিল ৬২ টাকা কেজি, সেই ময়দা আজ বিক্রি হচ্ছে ৬৫ থেকে ৭০ টাকা কেজি।
মসুর ডাল: এদিকে সব ধরণের মসুর ডালের কেজিতে দাম বেড়েছে ৫ টাকা। গত সপ্তাহে ছোট দানার মসুর ডাল ১৩০ টাকায় পাওয়া গেলেও আজ ক্রেতাদের কিনতে হচ্ছে ১৩৫ টাকা কেজি দরে।
রসুন: এদিকে রাজধানীর বাজারগুলোতে দফায় দফায় বাড়ছে রসুনের দাম। তিন সপ্তাহের ব্যবধানে রসুনের দাম বেড়ে দ্বিগুণ হয়ে গেছে। আমদানি করা এক কেজি রসুন কিনতে এখন ক্রেতাদের দুইশ টাকা পর্যন্ত গুণতে হচ্ছে। টিসিবির তথ্য অনুযায়ী, গত ৪ সপ্তাহ ধরে টানা বাড়ছে রসুনের দাম। নতুন করে এই সপ্তাহে আমদানি করা রসুনের দাম বেড়েছে কেজিতে ১০ টাকা।
শুক্রবার ব্যবসায়ীরা আমদানি করা রসুনের কেজি বিক্রি করছেন ১৯০ থেকে ২০০ টাকা, যা তিন সপ্তাহ আগে ছিল ৮০ থেকে ১০০ টাকার মধ্যে। আর দেশি রসুনের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ১০০ টাকা, যা তিন সপ্তাহ আগে ছিল ৩০ থেকে ৪০ টাকা। শুক্রাবাদ বাজারের রসুন বিক্রেতা সালাউদ্দিন বলেন, বাজারে এখন দেশি ও আমদানি করা উভয় ধরনের রসুনের সরবরাহ কম। এছাড়া আমদানি ব্যয় বেড়েছে। এ কারণেই রসুনের এমন দাম চড়া।
পেঁয়াজ: এদিকে গত সপ্তাহের তুলনায় দেশি পেঁয়াজের দাম কিছুটা কমেছে। ব্যবসায়ীরা পেঁয়াজের কেজি বিক্রি করছেন ৩৫ থেকে ৪০ টাকা। যা এক সপ্তাহে আগে ছিল ৪০ থেকে ৪৫ টাকা। তবে আমদানি করা পেঁয়াজের দাম বেড়েছে কেজিতে ৫ টাকার মতো। গত সপ্তাহে যে পেঁয়াজ ৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করেছেন, এই সপ্তাহের সেই পেঁয়াজ তারা বিক্রি করছেন ৫৫ টাকা দরে। টিসিবির তথ্য অনুযায়ী, গত এক সপ্তাহে আমদানি করা পেঁয়াজের দাম বেড়েছে ১০ শতাংশের বেশি।
সবজি: এদিকে ব্যবসায়ীরা এক কেজি গাজর বিক্রি করছেন ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা। গাজরের পাশাপাশি সপ্তাহের ব্যবধানে বেড়েছে পাকা টমেটোর দাম। এক কেজি পাকা টমেটো বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ৮০ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ৫০ থেকে ৬০ টাকা। এছাড়া গত সপ্তাহে ৬০ থেকে ৮০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া বরবটির দাম কমে এখন ৬০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। বেগুনের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ৬০ থেকে ৮০ টাকা। এদিকে কাঁচা পেঁপের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩৫ থেকে ৪০ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ৬০ থেকে ৭০ টাকা। পটল, ঢেঁড়স, ঝিঙে, চিচিঙ্গার কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা। কাঁচ কলার হালি বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৪০ টাকা।
মাংস: এদিকে ব্যবসায়ীরা ব্রয়লার মুরগির কেজি বিক্রি করছেন ১৫০ থেকে ১৫৫ টাকা। আর সোনালী মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৯০ থেকে ৩১০ টাকা। বেশিরভাগ মাংসের দোকানে গরুর মাংসের কেজি ৭০০ টাকা বিক্রি করছেন। গত সপ্তাহের তুলনায় খাসির মাংসের দাম কেজিতে ৫০ টাকা পর্যন্ত বেড়ে গেছে। টিসিবির তথ্য অনুযায়ী, গত সপ্তাহের তুলনায় এই সপ্তাহে প্রতি কেজি খাসির মাংসের দাম বেড়েছে ৮ শতাংশের বেশি।
ডিম: ব্যবসায়ীরা বলছেন, ফার্মের মুরগির ডিমের দাম বেশ কিছুদিন ধরেই বাড়ছে। বাড়তে বাড়তে প্রতিহালি দাম ৪২ টাকায় গিয়ে ঠেকেছে। নতুন করে ডিমের হালিতে দুই টাকা করে বেড়েছে। অর্থাৎ গত সপ্তাহে যে ডিমের দাম ছিল ৩৮ টাকা হালি, এখন সেই ডিমের দাম ৪০ থেকে ৪২ টাকা হালি।
মাছ: বাজারে রুই মাছের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩০০ থেকে ৪৫০ টাকা। শোল মাছের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০০ থেকে ৬০০ টাকা। কৈ মাছের কেজি বিক্রি হচ্ছে ২০০ থেকে ২৩০ টাকা। পাবদা মাছের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩০০ থেকে ৪৫০ টাকা। তেলাপিয়া, পাঙাস মাছের কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৬০ থেকে ১৮০ টাকা। শিং মাছের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩০০ থেকে ৪৬০ টাকা। তবে ইলিশ মাছের দাম কিছুটা বেড়েছে। এক কেজি ওজনের ইলিশ মাছ বিক্রি হচ্ছে ১৪০০ থেকে ১৭০০ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ১৩০০ থেকে ১৬০০ টাকা। ৬০০-৭০০ গ্রামের ইলিশের কেজি ১০০০ থেকে ১২০০ টাকার মধ্যে বিক্রি হচ্ছে, যা গত সপ্তাহে ছিল ৬০০ থেকে ৮০০ টাকা।


প্রকাশিত: জুন ৪, ২০২২ | সময়: ৬:২৩ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ