সর্বশেষ সংবাদ :

বাগমারায় প্রধানমন্ত্রীর নির্বাচনী ইশতেহার বাস্তবায়নের পথে

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহী-৪ (বাগমারা) আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক বুধবার দুপুরে একাদশ জাতীয় সংসদের ১৬তম অধিবেশনে মহামান্য রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ এর ১৬৯ পৃষ্ঠার ঐতিহাসিক ভাষণের উপর ধন্যবাদ প্রস্তাবের আলোচনায় বক্তৃতাকালে বলেন, জাতির জনকের কন্যার নেতৃত্বে বাংলাদেশের উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরা হয়েছে। বাংলাদেশকে বিশ্বে উচ্চ আসরে পরিচিতি করার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী । রাষ্ট্রপতির ভাষণে দেশের উন্নয়নের চিত্র ফুটে উঠেছে। এনামুল হক বর্তমান সরকারের সময়ে দেশের উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরে বলেছেন, দেশের অর্থনীতির উন্নয়ন হয়েছে। এছাড়াও এ সরকারের মেয়াদে দেশের সকল এলাকায় বিদুৎ পৌঁছেছে।
এনামুল হক আরো বলেন, বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর বাংলাদেশ ডিজিটাল বাংলাদেশে রূপান্তর হয়েছে। তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভূয়সী প্রশংসা করে বলেছেন, আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়নের ছোঁয়া বাড়িতে বাড়িতে পৌঁছে যাচ্ছে। তিনি বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশ গড়ার জন্য নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। দারিদ্র বিমোচনে সরকার গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেক নিয়েছেন। বর্তমানে দারিদ্রের হার ৪২-২০ ভাগে নামিয়ে এনেছেন। দেশে চালু করেছেন মেট্রোরেল।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্বাচনী ইশতেহার ছিল আমার গ্রাম, আমার শহর। সেই বক্তব্য আজ বাস্তবায়নের পথে। সারা দেশের ১৬ উপজেলার মধ্যে বাগমারাকে সেই তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। বাগমারায় হবে আমার গ্রাম, আমার শহরের একটি গ্রাম। যেখানে সকল প্রকার সুযোগ সুবিধা থাকবে। সে জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন তিনি।
সাংসদ বিগত চারদলীয় জোট সরকারের সমালোচনা করে বলেন, তারা বাংলা ভাই নামক দানব তৈরি করে আওয়ামী লীগ ও মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের লোকজনকে উল্টো করে ঝুলিয়ে মেরেছে। তবে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর আর কোনো হত্যাযজ্ঞ নেই। কোনো রাজনীতিক হত্যাকা-ও সংঘটিত হয়নি। আওয়ামী লীগ সরকার বাগমারাকে শান্তির জনপদে পরিণত করেছে।
এনামুল হক বলেছেন, বর্তমান সরকারের সময়ে এলাকার বিভিন্ন ক্ষেত্রের উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরেছেন। তিনি এলাকার বিদ্যুৎ ব্যবস্থার উন্নয়নের দিক তুলে ধরেছেন। শেখ হাসিনার সরকারের জন্যই এই উন্নয়ন সম্ভব হয়েছে। বাগমারা আজ শতভাগ বিদ্যুতায়িত উপজেলা। তিনি শিক্ষা, চিকিৎসা ও বাণিজ্যিক ক্ষেত্রের ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে।
তিনি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জাতীয় চারনেতা ও মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের স্মরণ করে তিনি বক্তব্য শুরু করেন। সাংসদ রাষ্ট্রপতির ১ ঘন্টা ৭ মিনিটের দীর্ঘ ভাষণকে মাইল ফলক হিসাবে উল্লেখ করে বলেন, তাঁর ভাষণের মধ্য দিয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনার দেশের সার্বিক উন্নয়নের চিত্র ফুটে উঠেছে। অপরদিকে এনামুল হক এমপি নিজ এলাকাসহ রাজশাহীর বিভিন্ন উন্নয়নসহ দাবীও জনানা মহান সংসদে। রাজশাহীতে একটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করা প্রয়োজন। পদ্মানদীতে পানির নব্যতা দূর করতে হলে ড্রেজিং করা প্রয়োজন। অন্যদিকে উত্তরবঙ্গের উন্নয়নের জন্য গ্যাস সরবরাহ করেছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী। এরফলে তৈরি হচ্ছে নতুন নতুন শিল্প কারখানা। রাজশাহী তথা উত্তরবঙ্গের জন্য পৃথক শিল্পনীতি করা দরকার। বক্তৃতায় তিনি হযরত শাহমখমুদ বিমান বন্দরকে আন্তর্জাতিক মানের বিমান বন্দরে উন্নীত এবং কার্গো সার্ভিস চালুর দাবি জানান। তিনি বলেছেন, বঙ্গবন্ধু সেতু স্থাপনের ফলে উত্তরাঞ্চলের ব্যবসা বাণিজ্যের প্রসার ঘটেছে। স্বতন্ত্র রেল সেতুুর কাজও শুরু হয়েছে। এটির নির্মাণ কাজ শেষ হলে ব্যবসা বাণিজে আরও প্রসার এবং সুবিধা হবে।


প্রকাশিত: জানুয়ারি ২৭, ২০২২ | সময়: ৭:০৩ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ