আদমদীঘিতে স্বর্ণালংকার ও পাঁচ লক্ষ টাকা নিয়ে গৃহবধূ উধাও

আদমদীঘি (বগুড়া) প্রতিনিধি: বগুড়ার আদমদীঘিতে মেরিনা আক্তার নামে এক গৃহবধূর বিরুদ্ধে স্বর্ণালংকার ও নগদ পাঁচ লক্ষ টাকা নিয়ে বাড়ি থেকে পালানোর অভিযোগ উঠেছে। মেরিনা উপজেলার সান্তাহার পৌর শহরের কাজিপুর এলাকার মশিউর রহমান রানার স্ত্রী। এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে ভুক্তভোগী স্বামী থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন।

লিখিত অভিযোগ ও রানা জানায়, ২০০৫ সালে ইসলামী শরিয়ত মোতাবেক মেরিনা আক্তারকে বিয়ে করেন মশিউর রহমান রানা। দীর্ঘ ১৫ সংসারের পর ২০২১ সালের ২৯ আগষ্ট মেরিনা তার স্বামী রানাকে তালাক দিয়ে অন্যত্রে বিয়ে করেন। চলতি বছরে ১২ জানুয়ারি হঠাৎ মেরিনা তালাকপ্রাপ্ত স্বামী রানার বাড়িতে দুই ছেলেকে দেখতে এসে বলেন পূর্বের স্বামীকে তালাক করেছি এখন তোমার কাছে ফিরতে চাই? কিছুক্ষণ পরেই আমার বাড়িতে পুলিশ এসে সান্তাহার ফাঁড়িতে নিয়ে যায়। শুরু হয় এক বৈঠক সেখানে ফাঁড়ির ইনচার্জসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিদের অনুরোধে আমার দুই ছেলের ভবিষ্যতের কথা ভেবে মেরিনা আক্তারকে পুনরায় ধর্মীয়ভাবে বিবাহ করে সান্তাহার পোস্ট অফিস পাড়া বাড়িতে নিয়ে আসি। ৫ দিন পর ১৭ জানুয়ারি সোমবার সন্ধ্যায় আলমারি থেকে দেরভরি স্বর্ণালংকার ও নগদ ৫ লক্ষ টাকা নিয়ে বাড়ি থেকে সে পালিয়ে যায়। আমার ছোট ছেলে আমাকে মুঠোফোনে অবগত করলে বাড়িতে এসে আমার স্ত্রীকে না পেয়ে বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুজি করি। পরে আমার বাড়ির মুঠোফোনে এক অজ্ঞাত নাম্বারে ফোন আসে। সেই ফোন কলের সূত্র ধরে সন্দেহ সৃষ্টি হলে থানা পুলিশকে বিষয়টি অবগত করি। এরপর মঙ্গলবার সন্ধ্যায় থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করি।

আদমদীঘি থানার অফিসার ইনচার্জ জালাল উদ্দীন বলেন, এ ঘটনায় একটি লিখিত অভিযোগ হয়েছে। ওই নাম্বারে তদন্তে দায়িত্ব প্রাপ্ত যুবলীগ নেতার নাম উঠে এসেছে। বিষয়টি আরও তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত
পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

 


প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৯, ২০২২ | সময়: ৫:০৫ অপরাহ্ণ | সুমন শেখ