পত্নীতলায় এনজিওর কিস্তির জন্য ঋণগ্রহীতাকে মারধর

পত্নীতলা প্রতিনিধি: যতটা বলা হয় ততটা না হলেও উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে, বিশেষ করে নারীর উন্নয়নে ক্ষুদ্রঋণের ইতিবাচক ভূমিকা রয়েছে। বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থার (এনজিও) ক্ষুদ্রঋণ কর্মসূচি অনেক নারীকে স্বাবলম্বী হতে সহায়তা করেছে। তবে এর কিছু নেতিবাচক দিকও রয়েছে।
সম্প্রতি পত্নীতলা উপজেলার মাহমুদপুর এলাকার এক ঋণগ্রহীতা ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের ওপর নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে। কিস্তির টাকা না পেয়ে এনজিওকর্মীরা বাড়িতে গিয়ে বেধড়ক মারধর করেছেন ঋণগ্রহীতা ও তার সন্তানদের। এই ঘটনায় ভুক্তভোগী ঋণগ্রহীতা বিধাব হোসনে আরা খাতুন পত্নীতলা থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।
অভিযোগে জানা গেছে, পারিবারিক সচ্ছলতা ফেরানোর আশায় দুই বছর আগে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা জাকস (এনজিও) থেকে ঋণ নিয়েছিলেন উপজেলার মাহমুদপুর এলাকার আব্দুর রহমানের স্ত্রী হোসনে আরা খাতুন (৫৮)। করোনা-সঙ্কটে সম্পূর্ণ ঋণের কিস্তির টাকা পরিশোধ করতে না পারায়। বেশ কিছুদিন থেকে টাকার জন্য চাপ দিয়ে আসছিল এনজিওটির মাঠ কর্মীরা।
এর মধ্যে গত শনিবার সকালে হোসনে আরার বাড়িতে জাকস এর ব্যবস্থাপক মাসুম করিম (৫৫), মাঠকর্মী আনিছুর রহমান (৪০) সহ আরো ৫-৬ জন গিয়ে হোসনে আরাকে তাৎক্ষণিক কিস্তির টাকা পরিশোধ করতে বলেন। করোনায় আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় হোসনে আরা ঋণের কিস্তির টাকা পরিশোধ জন্য কিছুদিন সময় চান।
কিন্তু তারা সেটি না মেনে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করেন এবং এক পর্যায়ে বাড়িতে থাকা একটি গাভি জোর পূর্বক নিয়ে যাওয়ার সময় বাধা দিলে তাঁরা তাঁকে মারধর করে। এসময বাঁচাতে গেলে হোসনে আরার দু’ছেলে ও দু’মেয়েকেও মারধর করে এবং বাড়ির টিনশেডের দরজা ভাংচুর করে। এসময় হোসনে আরা ও ছেলে-মেয়ের চিৎকারে আশেপাশের লোকজন আগাইয়া আসলে এনজিওটির কর্মীরা দ্রুত বাড়ি থেকে একটি গাভি ও হোসনে আরার দুই মেয়ের গলায় ও কানে থাকা র্স্বনালঙ্কার যার আনুমানিক মূল্য লক্ষাধিক টাকা ছিনিয়ে নিয়ে যায়।
এ ঘটনায় আহত হোসনে আরা ও তার দু’মেয়ে পত্নীতলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়। উক্ত বিষয়ে উপজেলা চেযারম্যান সহ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে অবহিত করে আহত হোসনে আরা পত্নীতলা থানায় একটি অভিযোগ দিয়েছে বলে হোসনে আরার ছেলে সুমন জানায়।
অভিযোগের বিষয়ে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা জাকস এর ব্যবস্থাপক মাসুম করিম এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘আমরা টাকা চাইতে গেছি, কিন্তু তারা আমাদের উপর চড়াও হলে কিছু অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটেছে।
পত্নীতলা থানার অফিসার ইনচার্জ শামসুল আলম শাহ্ জানান, এ ঘটনায় হোসনে আরা একটি অভিযোগ দিয়েছে। তদন্তসাপেক্ষে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লিটন সরকারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন হোসনে আরার অভিযোগটি আমি পেয়েছি তদন্তসাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
অপরদিকে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল গাফ্ফার জানান, তিনি ঘটনার কথা শুনেছেন, ঘটনাটি দুঃখজনক। তিনি আরো বলেন এনজিওর ক্ষুদ্রঋণ কর্মসূচি দারিদ্র্য বিমোচনের জন্য, প্রান্তিক নারীর উন্নয়নের জন্য। কিস্তি আদায় করতে গিয়ে নির্যাতন করা হলে সেসব উদ্দেশ্য ব্যাহত হয়। উন্নয়ন সংস্থাগুলোকে সতর্ক ও যৌক্তিক আচরণ করতে হবে।


প্রকাশিত: ডিসেম্বর ১৪, ২০২১ | সময়: ৫:৫৩ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ