Daily Sunshine

বাঙালির হৃদয়ে থাকবেন তিনি আজীবন

Share

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ
১৭ই মার্চ আজ, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালির বঙ্গবন্ধুর শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন। ১৯২০ সালের আজকের দিনে ফরিদপুরের গোপালগঞ্জ অজুকুমার টুঙ্গিপাড়া গ্রামে এক মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন তিনি। বাবা মা’র স্নেহের খোকা শৈশবকাল থেকে ছিলেন মানবিক। অন্যের দুঃখ কষ্টে ব্যথিত হতেন এবং তা নিরসনে সাধ্যমত চেষ্টা করতেন। শিক্ষা জীবনে তিনি এই মানবিক বোধ থেকেই রাজনীতিতে যুক্ত হন এবং বৃটিশ ভারতে মুসলিম লীগের হয়ে পাকিস্তান আন্দোলনে জড়িয়ে পড়েন। রাজনীতিতে তাঁর দিক্ষা দিয়েছিলেন হোসেন শহীদ সোহরওয়ার্দী। শহীদ সাহেব তাঁকে যথেষ্ট স্নেহ করতেন এবং তাঁর নির্দেশে শেখ মুজিব গোপালগঞ্জে মুসলিম লীগ গঠন করেন ও এর ছাত্র শাখার নেতৃত্ব নেন।
লেখাপড়ার প্রয়োজনে শেখ মুজিব কোলকাতায় যান। ইসলামীয়া কলেজে পড়ার সময় বৃটিশ খেদাও আন্দোলন ও পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার আন্দোলন আরো জোরদার হয়। তিনি সে সময় তাঁর উপর অর্পিত দায়িত্ব নিষ্ঠার সাথে পালন করেন। এর এক পর্যায়ে কোলকাতায় হিন্দু মুসলিম দাঙ্গা লাগলে তিনি উভয় সম্প্রদায়ের সদস্যদের রক্ষায় উদ্যোগ নেন এবং দাঙ্গা বন্ধে কার্যকর ভূমিকা রাখেন।
১৯৪৭ সালে দেশ ভাগের পর পাকিস্তানের রাজনীতিতে ভিন্নতা দেখতে পান শেখ মুজিব। ৪৮ সালে দেশটির প্রতিষ্ঠাতা মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ পাকিস্তানের রাষ্ট্র ভাষা হিসেবে উর্দ্দুর ঘোষণা দেন। এতে বাংলাসহ দেশের অন্যান্য সব ভাষাভাষিকে বঞ্চিত করা হয়। আর সংখ্যাগরিষ্ঠ বাঙালির বুঝে নেয় এটা পূর্ব বাংলার উপর ভিন্ন আচরনের পূর্বাভাস মাত্র। কালক্রমে তাই দেখা গেলো। শেখ মুজিব পাকিস্তান শাসক গোষ্ঠীর এমন আচরণে ক্ষুদ্ধ হন এবং মুসিলম লীগের রাজনীতি ছেড়ে মজলুম জননেতা মাওলানা আব্দুল হামিদ খাঁন ভাসানীর সাথে গঠন করেন আওয়ামী মুসলিম অসাম্প্রদায়িক চেতনা থেকে পরবর্তীতে দলটি মুসলিম নেতৃত্ব বাদ দিতে আওয়ামী লীগ হিসেবে গড়ে ওঠে এবং পূর্ব বাংলার মানুষের ভাষা সংস্কৃতি ও অধিকার আদায়ের একমাত্র দল স্বীকৃতি পায় দল হিসেবে। আর ততদিনে শেখ মুজিব হয়ে ওঠেন দলটির কান্ডারী ১৯৬৬ সালে তিনি বাংলার মানুষের অধিকার আদায়ের জন্যে ঘোষণা করেন ছয় দফা। আর তাঁর নেতৃত্বে এই ছয় দফায় আন্দোলন চলতে থাকে। বেগবান হয় সে আন্দোলন ১৯৬৯ সালে এই পর্যায়ে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ ১১ দফার ঘোষণা দেয়। এতে আন্দোলন আরো জোরদার হয়। ইতোমধ্যে শেখ মুজিব বাংলার অবিসংবাদিত নেতা হয়ে ওঠেন। ছাত্র সমাজ সে সময় তাঁকে বঙ্গবন্ধু হিসেবে উপাধি দেন। কার্যত: তিনি এখন থেকে বঙ্গবন্ধু হিসেবে বাংলার মানুষের মনি কোঠায় ঠাঁই করে নেন শেখ মুজিব।
১৯৭০ সালের নির্বাচনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ নিরঙ্কুশ জয়লাভ করেন কিন্তু পাকিস্তান প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খান তাঁকে সরকার গঠনের সুযোগ দেননি বরং ভিন্ন পথ বেছে নেন এবং বাংলার মানুষের উপর বর্বর নির্যাতন শুরু করেন। এ সময় ১৯৭১ সালের ৭ই মার্চ রেসকোর্স ময়দানে বঙ্গবন্ধু বাংলার মানুষকে সংগ্রামের জন্যে প্রস্তুত থাকার আহবান জানান আর ২৫শে মার্চ কালরাতের বর্বরতার সাথে সাথে তাঁকে গ্রেফতারের পূর্ব মহুর্তে ২৬শে মার্চ প্রথম প্রহরে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন।
তাঁর সে ঘোষণার পর স্বাধীনতা তথা পূর্ব বাংলা শত্রুমুক্ত করার সংগ্রাম শুরু হয়। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে শুরু হওয়া সেই মুক্তিযুদ্ধের চূড়ান্ত বিজয় আসে ১৯৭১ সালের ১৬ই ডিসেম্বর। বাংলার অবিসংবাদিত নেতা স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সেই দেশে ফিরে আসেন ৭২ সালের ১১ই জানুয়ারি। স্বাধীন দেশে ফিরে তিনি যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশের সরকারের দায়িত্ব নেন এবং পুনগঠনের জন্যে সকলকে সম্মিলিত ভাবে কাজ করার আহবান জানান। কিন্তু তাঁর সেই পুনর্গঠন তথা দ্বিতীয় বিপ্লব সম্পন্ন হয়নি। এর আগেই তাঁকে সপরিবারে ৭৫’র ১৫ ই আগস্ট হত্যা করে স্বাধীনতা বিরোধী চক্র। থমকে যায় দেশ, শুরু হয় পেছনে চলা।
২০২০ সালে আজ যখন এই বাংলার শ্রেষ্ঠ সন্তানের জন্মশত বার্ষিকী উদযাপিত হচ্ছে তখন কিন্তু বাংলাদেশ আবার সামনে এগিয়ে যাচ্ছে। ১৯৯৬ সালে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এই চলা শুরু হয়েছে যদিও মাঝে কিছুটা সময় তাতে বিঘ্ন হয়েছে। তবে তা থেমে যায়নি। সে চলা এখন আরো বেগবান হয়েছে। এমন এক সময় আজ রাষ্ট্রীয় ভাবে বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী দেশব্যাপী উদযাপিত হচ্ছে। তাই তো বঙ্গবন্ধু বেঁচে আছেন বাংলার মানুষের মাঝে। আর বেঁচে থাকবেন যতদিন বাংলা ও বাঙালির থাকবে।

মার্চ ১৭
০৪:৩৪ ২০২০

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

ডাবেই সচল বাচ্চুর জীবিকার চাকা

ডাবেই সচল বাচ্চুর জীবিকার চাকা

রোজিনা সুলতানা রোজি : সকাল থেকে রাত অবধি ডাবের সঙ্গেই সচল তার জীবিকার চাকা। প্রায় গত ৮ বছরের বেশী সময় ধরে সড়কের পাশে ফুটপাতে ডাব বিক্রি করে এক সন্তান ও স্ত্রীকে নিয়ে তার সংসার ভালোই চলছে। ক’দিন আগেও প্রতিদিন ডাব বিক্রি করে প্রতিদিন ৬ থেকে সাতশ টাকা আয় হয়েছে তার।

বিস্তারিত




এক নজরে

চাকরি

প্রিমিয়ার ব্যাংকের সেই ফয়সালকে রিমান্ডে চায় দুদক

প্রিমিয়ার ব্যাংকের সেই ফয়সালকে রিমান্ডে চায় দুদক

স্টাফ রিপোর্টার : তিন কোটি ৪৫ লাখ টাকা আত্মসাতের ঘটনায় প্রিমিয়ার ব্যাংক লিমিটেডের রাজশাহী শাখার কর্মকর্তা এফএম শামসুল ইসলাম ফয়সালকে সাত দিনের রিমান্ডে চায় দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। আদালতে তার এই রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে। আগামী ১ মার্চ রিমান্ড আবেদনের শুনানি হবে। এর আগে গত ১২ ফেব্রুয়ারি এফএম শামসুল ইসলাম

বিস্তারিত