Daily Sunshine

রঙের সুতায় রঙিন স্বপ্ন

Share

রোজিনা সুলতানা রোজি : ‘পরিশ্রম সৌভাগ্যের প্রসূতি’। সৌভাগ্য ফেরাতে কঠোর পরিশ্রমের বিকল্প নেই। জীবন যুদ্ধে জয়ী হওয়ার জন্য একটাই অস্ত্র যার নাম কঠোর পরিশ্রম। বিনা পরিশ্রমে কেউ লক্ষ্যে পৌছাতে পারে না। এর জন্য বিভিন্ন জন বেছে নেন হরেক রকম পেশা। আর হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রম তখনই স্বার্থক হয় যখন তার স্বপ্নগুলো বাস্তবে রূপ নেয়। পুরুষের পাশাপাশি সফলতার লড়াইয়ে নারীরাও আর পিছিয়ে নেই। কঠোর পরিশ্রম আর মেধা কাজে লাগিয়ে ঘুরে দাড়িয়েছে তারাও। পাথর সমতুল্য অনেক কষ্টসাধ্য কাজও সাধন করছে তাদের কোমল হাতের ছোঁয়ায়। এমনই এক কঠোর পরিশ্রমী নারী শারমিন ফেরদৌসী লীনা (৪৩)। যিনি নারীদের পোশাকে বুটিকের বিভিন্ন রকম নকশা করে তার রঙিন স্বপ্নকে রাঙিয়ে তুলেছেন। কোমল হাতে সুঁই-সুতার কারসাজিতেই ঘুরে দাড়িয়েছেন লীনা। সফল নারীদের নামের খাতায় লীনাও তার নাম লিখিয়েছেন।
রাজশাহী নগরীর কালেক্টরেট মাঠে এসএমই মেলাই ব্যাস্ততার মাঝেও কথা হয় লীনার সাথে। ৪৭ নং স্টলে ‘সুরমা হস্ত শিল্প’ নামে তার শখের বুটিক হাইজ। সেখানে বুটিকের হরেক রকম শাড়ি, ওয়ান পিচ, থ্রি-পিচ, বিছানার চাদর, কুশন-কভার, ওড়নাসহ থরে থরে সাজানো। প্রধান ফটক থেকে ভেতরে ঢুকতেই হাতের ডান দিকে সরাসরি ক্রেতাদের দৃষ্টি কাড়ছে তার স্টলটি। প্রায় ক্রেতারাই তার স্টলে থমকে দাড়িয়ে সেগুলো কিনছেন। আবার কেউ কেউ ভালো লাগা থেকেই ছুঁইয়ে দেখছেন। লীনার বুটিকের কদরও বেশ লক্ষণীয়।
লীনা জানান, তার স্বামীর নাম সাইদুল আলম খাঁন। তিনি পেশায় একজন কলেজ শিক্ষক। নাইলা ও ইথিকা নামে দুই মেয়ে তার। নাইলা এইচএসসি পাশ করে এডমিশনের প্রস্তুতি নিচ্ছে এবং ইথিকা ৩য় শ্রেণীতে পড়াশোনা করে। তাদেরকে নিয়ে নগরীর নিউ মার্কেট এলাকায় তার বাস। তার বাসায়ই মূলত বুটিকের সব কাজ করেন তিনি।
লীনা শিক্ষিত নারী। তাই তিনি শুধুমাত্র চাকরীর উপর নির্ভরশীল না হয়ে আগে থেকেই স্বপ্ন দেখতেন সফল নারীদের মতো ভালো কিছু করার। তাইতো তিনি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এবং সংস্থা থেকে ফ্যাশন ডিজাইনের উপর নানা ধরনের প্রশিক্ষন গ্রহন করেন। শুধুমাত্র স্বামীর আয়ের উপর নির্ভরশীল না হয়ে নিজেই উদ্যোগী হয়ে প্রথম অবস্থায় মাত্র ২৫ হাজার টাকায় শুরু করেন বুটিক রাজ্যের যাত্রা। প্রথম অবস্থায় যাত্রা পথ তেমন সুখের ছিলো না। তার পরেও হাল ছাড়েন নি তিনি। তাই তো ধীরে ধীরে একজন সফল উদ্যোক্তা হয়ে ওঠেন লীনা।
লীনা আরো জানান, তিনি আরো অনেক মানুষের কর্ম সংস্থান সৃষ্টি করেছেন। তার স্থায়ী আটজন সুপার ভাইজার এবং আটজন অন্যান্য কর্মচারী রয়েছে। যারা তার বেতনভুক্ত কর্মচারী হিসেবে বুটিকের কাজেই নিয়োজিতো। কাজের পাশা-পাশি তারাও নির্ভরযোগ্য কর্মসংস্থান খুজে পেয়েছে লীনার ‘সুরমা হস্ত শিল্পে’।
লীনা বলেন, তিনি আর আগের মতো নেই। আগের সোচনীয় অবস্থার পরিবর্তন হয়েছে এই ‘সুরমা হস্ত শিল্প’ থেকে। এখন নিজের সিদ্ধান্ত নিজেই নিতে পারেন। এখন পরিবারের বড় ধরনের সিদ্ধান্তেও তিনি অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন। প্রায় ১২ বছরের বুটিক যাত্রায় তার এবং পরিবারের অর্থনৈতিক দিকের আমূল পরিবর্তন হয়েছে। এখন তার লক্ষ্য দুই মেয়েকে পড়াশোনা করিয়ে সমাজে ভালো মানুষ হিসেবে তৈরী করে তাদেরকেও অর্থনৈতিক ভাবে স্বাবলম্বী করে গড়ে তোলা।

মার্চ ০১
০৪:২৩ ২০২০

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

ডাবেই সচল বাচ্চুর জীবিকার চাকা

ডাবেই সচল বাচ্চুর জীবিকার চাকা

রোজিনা সুলতানা রোজি : সকাল থেকে রাত অবধি ডাবের সঙ্গেই সচল তার জীবিকার চাকা। প্রায় গত ৮ বছরের বেশী সময় ধরে সড়কের পাশে ফুটপাতে ডাব বিক্রি করে এক সন্তান ও স্ত্রীকে নিয়ে তার সংসার ভালোই চলছে। ক’দিন আগেও প্রতিদিন ডাব বিক্রি করে প্রতিদিন ৬ থেকে সাতশ টাকা আয় হয়েছে তার।

বিস্তারিত




এক নজরে

চাকরি

প্রিমিয়ার ব্যাংকের সেই ফয়সালকে রিমান্ডে চায় দুদক

প্রিমিয়ার ব্যাংকের সেই ফয়সালকে রিমান্ডে চায় দুদক

স্টাফ রিপোর্টার : তিন কোটি ৪৫ লাখ টাকা আত্মসাতের ঘটনায় প্রিমিয়ার ব্যাংক লিমিটেডের রাজশাহী শাখার কর্মকর্তা এফএম শামসুল ইসলাম ফয়সালকে সাত দিনের রিমান্ডে চায় দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। আদালতে তার এই রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে। আগামী ১ মার্চ রিমান্ড আবেদনের শুনানি হবে। এর আগে গত ১২ ফেব্রুয়ারি এফএম শামসুল ইসলাম

বিস্তারিত