Daily Sunshine

শখের বাগানে সবুজ সবজি

Share

মেহেদি হাসান, চাঁপাইনবাবগঞ্জ: ইট-কাঠের নাগরিক সভ্যতায় শহর থেকে হারিয়ে যাচ্ছে সবুজ। কিন্তু মানুষ তার শিকড়কে সহজে ভুলতে পারে না। তাই সৌখিন মানুষমাত্রই তাদের ঘরবাড়িতে সবুজ ধরে রাখতে নিজ নিজ বাড়ির ছাদে বা উঠানে তৈরি করছেন বাগান। এমনই একজন প্রকৃতিপ্রেমিক বাগানপ্রিয় মানুষ চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) আলমগীর হোসেন।
উপজেলা প্রশাসন চত্বরের ফাঁকা জায়গায় বিভিন্ন ফুলের বাগান তৈরি করে একদিকে সৌন্দর্য বৃদ্ধি করেছেন, অন্যদিকে বসবাসের কোয়ার্টার এলাকাতেও নির্ভেজাল সবজি বাগান গড়ে তুলেছেন তিনি। বলা যায়, পুরো ক্যাম্পাস এখন সবুজ অরণ্য, প্রকৃতির বনাঞ্চল।
একদিকে ফুলের সুবাতাস, অন্যদিকে কেমিকেলবিহীন টাটকা ও সতেজ সবজির সমারোহ। আর এর কারিগরই হচ্ছেন ইউএনও আলমগীর হোসেন দম্পতি। সহধর্মিণী নার্গিস আক্তারকে সঙ্গে নিয়ে অবসর সময়টুকু কাজে লাগিয়ে গড়ে তুলেছেন সবজি বাগান।
কী নেই সবজি বাগানে? টমেটো, ফুলকপি, বাঁধাকপি, শিম, আলু, লাউ, স্কোয়াস, বেগুন, ঢ়েড়স, ব্রকলি, বিভিন্ন ধরনের শাক, কাঁচামরিচ, পেঁয়াজসহ প্রায় সব ধরনের সবজি রয়েছে বাগানে। রয়েছে বিভিন্ন প্রজাতির গাছও। তাদের দেখে উদ্বুদ্ব হয়েছেন প্রতিবেশী দেলোয়ারা পারভীন রীমা। তিনিও তার ছাদে বাগান গড়ে তুলেছেন।
সরকারের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে থেকেও অবসর সময়ে এ সবজি বাগান গড়ে তুলেছেন তারা। সকাল কিংবা বিকাল বাগানের জন্য কাজের ফাঁকে ঠিকই সময় বের করে নেন প্রতিদিন। যত্ন নেন নিজেদের হাতে। বাইরে কোথাও গেলে ভালো কোনো গাছ পেলে সঙ্গে নিয়ে আসেন বাগানে লাগানোর জন্য।
ক্যাম্পাসের পুকুরটি সংস্কার করে শুরু হয়েছে মাছ চাষ। পুকুরপাড়ইবা বাদ যাবে কেন! সেখানেও মাচা করে লাউ, সিম চাষ করা শুরু করেছেন বাগানপ্রেমিক আলমগীর হোসেন। তবে বাগানের জন্য বেশি সময় দেন নার্গিস আক্তারই।
জানা যায়, ছাত্রজীবন থেকেই কৃষির প্রতি ভালোবাসার টান এ বাগান করতে তাকে সাহস জুগিয়েছে। মনকে প্রফুল্ল¬ রাখতে থাকতে চান মাটির সান্নিধ্যে। আর তাই সস্ত্রীক নিজ হাতে বাগান গড়ে তুলেছেন।
ইউএনও দম্পতির বাগান করতে দেখে ছাদে বাগান তৈরিতে উদ্বুদ্ধ হয়েছেন, এমনই একজন দেলোয়ারা পারভীন রীমা। তার ছাদে এখন বিভিন্ন রকমের ফুল, ফল, সবজি এমনকি মসলা-জাতীয় গাছের সমারোহ।
তিনি বলেন, আমাকে গাছ লাগাতে উৎসাহ দেন আমাদের উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সহধর্মিণী নার্গিস ভাবী। প্রথম প্রথম তাদের চাষ করা সবজি এনে আমাদের খেতে দিতেন। হঠাৎ তিনি একদিন বলেন এত বড় ছাদে ফুল বা সবজি বাগান করছেন না কেন। সেই থেকে শুরু গাছ লাগানো। ‘ছাদে ফুল ছাড়াও সবজি এবং মসলার গাছ রয়েছে। এগুলোকে যত্ন করেই সময়টা ভালোই কাটে’, বলেন তিনি।
বাগান বিষয়ে কথা হয় ইউএনও’র সহধর্মিণী নার্গিস আক্তারের সঙ্গে। সংসারের কাজ সামলিয়ে সবজি বাগান দেখাশোনা করছেন। পাশাপাশি অন্যকেও বীজ-চারা দিয়ে বাগান করতে উদ্বুদ্ধ করছেন। তিনি বলেন, এখানে বিভিন্ন সবজির গাছ লাগানো হয়েছে। টাঙ্গাইল থেকে বীজ নিয়ে এসে সবজি চাষ করা হচ্ছে। নিজেদের তৈরি জৈব সার দিয়ে বাগান পরিচর্যা করা হয়। তিনি আরো বলেন, শীতকালে সবজি খুব কমই কিনে খাওয়া হয়েছে। শুধু আমরাই নয়, এখানে কোয়ার্টারে যারা থাকেন তাদেরকেও এ বাগান থেকে সবজি দেয়া হয়।
নার্গিস আক্তার বলেন, যাদের বাড়িতে উঠান বা ছাদ আছে তারাও যেন শাকসবজি চাষ করেন, সেটাই আমরা চাই। শখের বশে হলেও এ ধরনের বাগান করা হলে বিষমুক্ত খাবার আমরা গ্রহণ করতে পারব।
ছোটবেলা থেকে গাছের প্রতি নেশা নার্গিস আক্তারের। সেই নেসা থেকেই এ দম্পতি তৈরি করেছেন বাগান। সংসারের পাশাপাশি যতটুকু সময় পান গাছগুলোকেই সময় দেয়ার চেষ্টা করেন। বলেন, ‘এরাই এখন আমার সন্তানের মতো হয়ে গেছে। দিনে একবার হলেও আমি এ গাছগুলোকে দেখতে আসি।’
উপজেলা নির্বাহী অফিসার আলমগীর হোসেন বলেন, আমরা টেবিল- চেয়ারমুখী হয়ে গেছি। সেই জায়গা থেকে বেরিয়ে এসে আমাদের কাজ করতে হবে। প্রত্যেকের মনের মধ্যে সুপ্ত বাসনা থাকে, সেগুলো পূরণ করার জন্য কেউ কেউ উদ্যোগী হন।
তিনি বলেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জে অনেক ফাঁকা জায়গা আছে, যেখানে নিজ উদ্যোগে নিজের পরিবারের জন্য হলেও সবজি চাষ করতে পারেন। এতে তার আত্মার খোরাক মিটিয়ে সোনার বাংলা গড়ার যে প্রত্যয় তা আমরা বাস্তবায়ন করতে পারব। তিনি সকলকে সৃষ্টিশীল ও নান্দনিকতার চর্চার আহ্বান জানান।

ফেব্রুয়ারি ১৯
০৫:২২ ২০২০

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

ডাবেই সচল বাচ্চুর জীবিকার চাকা

ডাবেই সচল বাচ্চুর জীবিকার চাকা

রোজিনা সুলতানা রোজি : সকাল থেকে রাত অবধি ডাবের সঙ্গেই সচল তার জীবিকার চাকা। প্রায় গত ৮ বছরের বেশী সময় ধরে সড়কের পাশে ফুটপাতে ডাব বিক্রি করে এক সন্তান ও স্ত্রীকে নিয়ে তার সংসার ভালোই চলছে। ক’দিন আগেও প্রতিদিন ডাব বিক্রি করে প্রতিদিন ৬ থেকে সাতশ টাকা আয় হয়েছে তার।

বিস্তারিত




এক নজরে

চাকরি

প্রিমিয়ার ব্যাংকের সেই ফয়সালকে রিমান্ডে চায় দুদক

প্রিমিয়ার ব্যাংকের সেই ফয়সালকে রিমান্ডে চায় দুদক

স্টাফ রিপোর্টার : তিন কোটি ৪৫ লাখ টাকা আত্মসাতের ঘটনায় প্রিমিয়ার ব্যাংক লিমিটেডের রাজশাহী শাখার কর্মকর্তা এফএম শামসুল ইসলাম ফয়সালকে সাত দিনের রিমান্ডে চায় দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। আদালতে তার এই রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে। আগামী ১ মার্চ রিমান্ড আবেদনের শুনানি হবে। এর আগে গত ১২ ফেব্রুয়ারি এফএম শামসুল ইসলাম

বিস্তারিত