Daily Sunshine

ডোম নির্মাণের দরপত্রই হয়নি

Share

বঙ্গবন্ধু নভোথিয়েটার নির্মাণে বিলম্বের আশঙ্কা
আসাদুজ্জামান নূর : রাজধানী ঢাকার বাইরে দ্বিতীয় বঙ্গবন্ধু নভোথিয়েটার নির্মিত হচ্ছে রাজশাহীতে। ২০২০ সালের মাঝামাঝিতে এর বাস্তবায়ন শেষ হওয়ার কথা থাকলেও এখন পর্যন্ত কাজ সম্পন্ন হয়েছে মাত্র ৩০ ভাগ। এছাড়াও অবকাঠামো নির্মাণের মূল কাজ ডোম নির্মাণের দরপত্রই হয়নি। কেবল প্রস্তাবনা দেয়া হয়েছে। প্রস্তাবনা পাস হলেই দরপত্র আহ্বান করা হবে। এসব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই অবকাঠামো নির্মাণের কাজ শেষ হবে বলে আশাবাদী সংশ্লিষ্টরা। তবে নির্মাণকাল কিছুটা বিলম্বিত হতে পারে- এমন আশঙ্কার কথা জানিয়েছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান।
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি শিক্ষা, বিশেষত মহাকাশ সম্পর্কে জনসাধারণ ও শিক্ষার্থীদের ধারণা দিতেই নগরীর শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যান ও চিড়িয়াখানায় নির্মিত হচ্ছে এটি। ২ দশমিক ৩ একর জায়গাজুড়ে নির্মিতব্য এই থিয়েটারের ব্যয় ধরা হয়েছে ২২২ কোটি ৩ লাখ টাকা।
নানা জটিলতা শেষে নভোথিয়েটারের নির্মাণকাজ শুরু হয় ২০১৮ সালের শেষ দিকে। এটির বাস্তবায়নে ১৮ মাস সময় বেঁধে দেয়া হয় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে। সে হিসেবে কাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে ২০২০ সালের মাঝামাঝিতে। কিন্তু এ পর্যন্ত ৩০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে।
অবকাঠামো নির্মাণ শেষে নভোথিয়েটারের অন্যান্য প্রাযুক্তিক যন্ত্রপাতি বসানো হবে। তবেই চালু হবে নভোথিয়েটারটি। সব কাজ শেষে কখন চালু হবে এটি তা নিয়ে এখন ধোঁয়াশা বিরাজ করছে।
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের এ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে গণপূর্ত অধিদফতর। প্রকল্পের তদারকি কর্মকর্তা রাজশাহী গণপূর্ত অধিদফতরের উপ-বিভাগীয় নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মাসুদ রানা জানান, অবকাঠামো নির্মাণে বেঁধে দেয়া সময় অনুসারে কাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে ২০২০ সালের মাঝামাঝি। কিন্তু এ পর্যন্ত ৩০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। বাঁকি কাজ শেষ হতে আগামী বছর পুরোটা লাগবে বলে জানান তিনি।
এদিকে, অবকাঠামোর মূল কাজ ডোম নির্মাণের দরপত্রই হয়নি এখনো। কেবল প্রস্তাবনা দেয়া হয়েছে। প্রস্তাবনা পাস হলে তবেই দরপত্র আহ্বান করা হবে। তারপরও এসব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে ২০২০ সালের মধ্যেই অবকাঠামো নির্মাণের কাজ শেষ হবে বলে দাবি করেন গণপূর্ত অধিদফতরের এই কর্মকর্তা।
একই দাবি করেছেন প্রকল্পের অবকাঠামো নির্মাণের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট ইঞ্জিনিয়ার্স। তবে সময়ের মধ্যে কাজ শেষ করার বিষয়ে কিছুটা সন্দিহান তারা। প্রকল্পের ব্যবস্থাপক (পিএম) মোশারফ হোসেন বলেন, আমরা একবছর থেকে প্লান বসিয়ে অপেক্ষা করছি। এদিকে ডোম নির্মাণের টেন্ডারই হয়নি এখনো। আমরা লোকসান গুনছি। টেন্ডার পাসে দেরি হলে আগামী বছরেও কাজ শেষ করা যাবে কি না তা নিয়ে সন্দেহ আছে।
সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, প্রকল্পের চারতলা বিশিষ্ট অফিস ব্লকের অবকাঠামো গড়ে উঠেছে। কিন্তু ডোম বসানোর জন্য ভেতরের কাজ কেবল শেষ হয়েছে। ডোম বসানোর জন্য শতাধিক নাট-বোল্ট বসবে; সেই কাজটিই শেষ হয়নি।
জানা গেছে, এ নভোথিয়েটারে আধুনিক প্রযুক্তির ডিজিটাল প্রজেক্টর সিস্টেমযুক্ত প্লানেটরিয়াম, সায়েন্টিফিক অ্যান্ড ডিজিটাল এক্সিবিটস, ফাইভ-ডি সিমিউলেটর থিয়েটার, টেলিস্কোপ, কম্পিউটারাইজড টিকেটিং অ্যান্ড ডেকোরেটিং সিস্টেমসহ নানা সুবিধা থাকবে। ভবন নির্মাণ শেষ হলে অন্যান্য যন্ত্রাংশ সংযোজন হবে। এতে করে সব প্রক্রিয়া শেষে নভোথিয়েটারটি কবে নাগাদ চালু হবে তা নিয়ে যথেষ্ঠ ধোঁয়াশা রয়েছে।
এর আগে, ২০১২ সালে থিয়েটারটি স্থাপনের উদ্যোগ নেয় রাসিকের তৎকালীন মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। নানা প্রক্রিয়া শেষে ২০১৬ সালের শুরুতে প্রকল্পটি জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটিতে (একনেক) পাশ হয়।
প্রথমে এর নির্মাণকাল ধরা হয়েছিল ২০১৫ সালের মাঝামাঝি থেকে ২০১৮ সালের জুন পর্যন্ত। পরে ৬ মাস সময় বাড়িয়ে করা হয় ২০১৮ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত। কিন্তু বিভিন্ন জটিলতা কাটিয়ে নির্মাণকাজই শুরু হয় প্রকল্পে বেঁধে দেয়া মেয়াদের একেবারে শেষ দিকে। সে অনুযায়ী আগামী বছরের মাঝামাঝিতে কাজ শেষ হওয়ার কথা। তবে টেন্ডার জটিলতায় আটকে থাকা কাজটি কবে শেষ হবে তা সময়ই বলে দেবে।

ডিসেম্বর ১৪
০৪:২৭ ২০১৯

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

পুষ্পমেলায় ২৬৫ প্রজাতির গোলাপ!

পুষ্পমেলায় ২৬৫ প্রজাতির গোলাপ!

আসাদুজ্জামান নূর : ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ ঘটাতে হয়তো গোলাপ ফুলের জুড়ি নেই, তাই হয়তো অন্য কোন ফুলের নামে দিবস পালিত হয় না। কিন্তু ৭ ফেব্রুয়ারি পালিত হয় রোজ ডে। এদিন ভালোবাসার মানুষকে গোলাপ ফুল উপহার দেন অনেকেই। এছাড়াও গোলাপের বিশেষত্ব এটা সব ঋতুতেই পাওয়া যায়। সবার পছন্দের তালিকার শীর্ষে গোলাপ না

বিস্তারিত




এক নজরে

চাকরি

অনশনে অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে রাজশাহী পাটকলের আট শ্রমিক

অনশনে অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে রাজশাহী পাটকলের আট শ্রমিক

স্টাফ রিপোর্টার : অবসরপ্রাপ্ত শ্রমিক-কর্মচারীদের পিএফ গ্রাচ্যুইটির টাকাসহ ১১ দফা দাবি বাস্তবায়নের দাবিতে আমরণ অনশনের মধ্যে রাজশাহী পাটকলের আটজন শ্রমিক অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। বৃহস্পতিবার সকালে তাদের রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এরা হলেন, আব্দুল গফুর, জয়নাল আবেদিন, আলতাফুন বেগম, মহসীন কবীর, আসলাম আলী, মোশাররফ হোসেন, মোজাম্মেল হক ও

বিস্তারিত