Daily Sunshine

কুষ্টিয়ায় দুই ভাই হত্যায় ৪ জনের প্রাণদণ্ড

Share

সানশাইন ডেস্ক: নাতনিকে উত্ত্যক্ত করার প্রতিবাদ করায় কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় এক স্কুলশিক্ষক এবং তার ভাইকে হত্যার ঘটনায় চারজনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত। এ মামলার অপর সাত আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং একজনবে ১০ বছরের সাজা দেওয়া হয়েছে। রোববার জেলার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মুন্সী মো. মশিয়ার রহমান তিন বছর আগের এ মামলার রায় ঘোষণা করেন।
সর্বোচ্চ সাজার আদেশ পাওয়া চার আসামি হলেন- ভেড়ামারা উপজেলার গোলাপনগর গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে কমল হোসেন মালিথা, ফকিরাবাদ গ্রামের কাবুল প্রামাণিকের ছেলে কামরুল প্রামাণিক ও সুমন প্রামাণিক এবং একই গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে নয়ন শেখ। যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আসামিরা হলেন- উপজেলার ফকিরাবাদ গ্রামের ছের আলী শেখের ছেলে নজরুল শেখ ও আব্দুর রহিম ওরফে লালিম শেখ, একই গ্রামের আকুল মণ্ডলের ছেলে মাহফুজুর রহমান ওরফে কবি, বেনজীর প্রামাণিকের ছেলে হৃদয় আলী, নাজির প্রামাণিকের ছেলে সম্রাট আলী প্রামাণিক, গোলাপনগর গ্রামের নুরুল হক মালিথার ছেলে জিয়ারুল ইসলাম ও আশরাফ মালিথা।
এছাড়া উত্ত্যক্তকারী আরিফ মালিথা ঘটনার সময় অপ্রাপ্তবয়স্ক ছিলেন (বর্তমানে বয়স ১৯ বছর) বলে তাকে ১০ বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।
দণ্ডিত আসামিদের সবাইকে ৫০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড দিয়েছে আদালত। ১২ আসামির মধ্যে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত নয়ন শেখ এবং যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত হৃদয় আলী ও সম্রাট আলী পলাতক। মামলার বিবরণে জানা যায়, ভেড়ামারার ফকিরাবাদ সদরপাড়ার আশরাফুজ্জামান রতনের সপ্তম শ্রেণি পড়ুয়া মেয়েকে স্কুলে যাওয়া আসার পথে প্রায়ই উত্ত্যক্ত করত ওই এলাকার আইয়ুব আলীর ছেলে আরিফ মালিথা। মেয়েটির পরিবারের সদস্যরা এর প্রতিবাদ করলে দুই পরিবারের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টি হয়।
এর জের ধরে ২০১৬ সালের ২৫ এপ্রিল রাতে রতনের বাবা এবং দুই চাচার ওপর পরানখালী রাস্তার ওপর হামলা করে আসামিরা। তাদের ধারালো অস্ত্রের কোপে রতনের বাবা মুজিবর রহমান মাস্টার ঘটনাস্থলেই মারা যান। হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যান চাচা মিজানুর রহমান। ওই ঘটনায় রতনের ভাই জাহারুল ইসলাম বাদী হয়ে ভেড়ামারা থানায় এই হত্যা মামলা করেন। তদন্ত শেষে পুলিশ ১২ আসামির বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেয়।
নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আব্দুল হালিম এই রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন। আর মামলার বাদী জাহারুল ইসলাম আদালত প্রাঙ্গণে সাংবাদিকদের বলেন, “এই রায়ে ন্যায়বিচার পেয়েছি, অপরাধীরা যতই প্রভাবশালী হোক, তারা কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়, আদালতে তা প্রমাণ হয়েছে।”

ডিসেম্বর ০২
০৩:২৭ ২০১৯

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

বাবুর্চি থেকে হোটেল মালিক আফজাল

বাবুর্চি থেকে হোটেল  মালিক আফজাল

মাহফুজুর রহমান প্রিন্স, বাগমারা: ছিলেন বাবুর্চি এখন হোটেল মালিক। ৯০’ এর দশকে হোটেলের বয় হিসাবে যাত্রা শুরু এই যুবকের। আজ তিনি নিজেই একটি হোটেল পরিচালনা করছে। সুদীর্ঘ এই পেশাদার জীবনে অনেক পেয়েছেন। পেয়েছেন অর্থ, খ্যাতি, সম্মান ও সর্বোপরি সবার ভালোবাসা। এ ছাড়া বাগমারার সকল হোটেল কর্মচারিরা তাকে নেতাও বানিয়েছে। তিনি

বিস্তারিত




চাকরি

সরকারি চাকরি আইনের সাতটি ধারা বাতিল চেয়ে উকিল নোটিস

সরকারি চাকরি আইনের সাতটি ধারা বাতিল চেয়ে উকিল নোটিস

সানশাইন ডেস্ক: সদ্য কার্যকর হওয়া সরকারি চাকরি আইনের সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক সাতটি ধারা বাতিল বা প্রত্যাহার করতে স্পিকার ও ছয় সচিবকে আইনি নোটিস পাঠানো হয়েছে। হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের (এইচআরপিবি) পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মনজিল মোরসেদ রোববার রেজিস্ট্রি ডাকযোগে নোটিসটি পাঠিয়েছেন। স্পিকার, মন্ত্রিপরিষদ সচিব, রাষ্ট্রপতি সচিবালয়ের সচিব, প্রধানমন্ত্রী

বিস্তারিত