Daily Sunshine

১০ মাসে একদিন স্কুলে উপস্থিত এমপির স্ত্রী!

Share

সানশাইন ডেস্ক: সুনামগঞ্জ-১ (তাহিরপুর, জামালগঞ্জ, ধর্মপাশা) আসনের সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের দ্বিতীয় স্ত্রী শিক্ষিকা তানভী ঝুমুরকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। গতকাল ৭ নভেম্বর বৃহস্পতিবার ঝুমুরকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করে প্রাথমিক শিক্ষা অফিস।
জানা যায়, ঝুমুর সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার তেঘরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা। কিন্তু গেল ১০ মাস ধরে বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত রয়েছেন তিনি। ঝুমুর তাহিরপুর উপজেলায় প্রথমে শিক্ষকতা করলেও ডেপুটেশনে এসে বর্তমানে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার তেঘরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা হিসেবে দায়িত্বপ্রাপ্ত হন। তার বিরুদ্ধে অভিযোগমাত্র একদিন বিদ্যালয়ে এসে বাকি ১০ মাস বিদ্যালয়ে আসেননি। এছাড়া তার সঙ্গে কর্তৃপক্ষ যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও ব্যর্থ হয়।
এদিকে বিদ্যালয়ে উপস্থিত না থাকলেও বেতন ঠিকই তুলে নিচ্ছিলেন এ শিক্ষিকা। এ ব্যাপারে তেঘরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফেরদৌস আরা ইয়াসমিন বলেন, ২০১৯ সালের ৭ জানুয়ারি তিনি শেষ বিদ্যালয়ে আসেন। এরপর থেকে তিনি আর বিদ্যালয়ে আসেননি। কোথায় আছেন তিনি আমরা জানি না এবং ফোন দেয়া হলেও তিনি রিসিভ করেন না।
জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো. জিল্লুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, বিনা কারণে বিদ্যালয়ে দীর্ঘ সময় অনুপস্থিত থাকায় সহকারী শিক্ষক তানভী ঝুমুকে বরখাস্ত করা হয়েছে। একই সঙ্গে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমার স্ত্রী মাতৃকালীন ছুটিতে রয়েছে এবং এর আগে সে অসুস্থ ছিল তার আবেদন প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে দেয়া আছে।

নভেম্বর ০৯
০৩:৫৫ ২০১৯

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

জীবিকা যখন কান পরিস্কার

জীবিকা যখন কান পরিস্কার

স্টাফ রিপোর্টার: নগরীতে প্রায় ৪০ বছর ধরে কান পরিস্কার করে যাচ্ছেন চারঘাটের রতন আলী। তার বয়স এখন ৫৬ বছর চলছে। সেই ১৯৮০ সাল থেকে এ পেশায় জীবিকা নির্বাহ করছেন। রতন আলী চারঘাট উপজেলার খোর্দ্দগোবিন্দপুর চকরপাড়া থেকে প্রায় প্রতিদিনই রাজশাহী নগরীতে আসেন। নগরীর বিভিন্ন পাড়া মহল্লা অফিস ঘুরে ঘুরে কান পরিস্কার

বিস্তারিত




চাকরি

সরকারি চাকরি আইনের সাতটি ধারা বাতিল চেয়ে উকিল নোটিস

সরকারি চাকরি আইনের সাতটি ধারা বাতিল চেয়ে উকিল নোটিস

সানশাইন ডেস্ক: সদ্য কার্যকর হওয়া সরকারি চাকরি আইনের সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক সাতটি ধারা বাতিল বা প্রত্যাহার করতে স্পিকার ও ছয় সচিবকে আইনি নোটিস পাঠানো হয়েছে। হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের (এইচআরপিবি) পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মনজিল মোরসেদ রোববার রেজিস্ট্রি ডাকযোগে নোটিসটি পাঠিয়েছেন। স্পিকার, মন্ত্রিপরিষদ সচিব, রাষ্ট্রপতি সচিবালয়ের সচিব, প্রধানমন্ত্রী

বিস্তারিত