Daily Sunshine

ছাত্র মৃত্যুর ঘটনায় আবারও উত্তাল হংকং

Share

সানশাইন ডেস্ক: হংকংয়ে বিক্ষোভ চলাকালে পুলিশের ধাওয়ায় একটি পার্কিং লটের তৃতীয়তলা থেকে পড়ে যাওয়া এক ছাত্রের মৃত্যুর পর সেখানে সরকার বিরোধী বিক্ষোভ আরো জোরদার হওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।
শুক্রবার সকালে ২২ বছরের চাউ টিএসজেড-লক নামের ওই ছাত্রের মৃত্যু হয়। তিনি হংকং ইউনিভার্সিটি অব সাইন্স অ্যান্ড টেকনোজলির (ইউএসটি) শিক্ষার্থী ছিলেন। গত সোমবার তিনি পার্কিং লটের ছাদ থেকে পড়ে গিয়ে গুরুতর আহত হয়েছিলেন। চাউয়ের মৃত্যু হংকংজুড়ে সরকার বিরোধী বিক্ষোভের ঢেউ আরো জোরদার করবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। বিশেষ করে বিক্ষোভ দমনে পুলিশের শক্তি প্রয়োগ নিয়ে যে ক্ষোভের আগুন জ্বলছে তাতে আরো তেল পড়বে।
‘পুলিশকে নিষ্ঠুরভাবে ঘৃণা করুন’, একটি রেস্তোরাঁর বাইরের কাঁচে এ কথা লিখে দিয়েছে বিক্ষোভকারীরা। আহত চাউকে যে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল সেখানে সপ্তাহজুড়েই বিক্ষোভকারীদের ভিড় দেখা গেছে। তারা চাউয়ের সুস্থাতার জন্য প্রার্থনা করেছে। কেউ কেউ হাসপাতাল গেটে ফুল রেখে গেছেন।
এক তোড়া ফুলের সঙ্গে লেখা ছিল, “শিগগির জেগে ওঠো। মনে রেখো আমাদের লেগকো’র নিচে আবারও দেখা করতে হবে।” লেগকো বলতে তিনি হংকংয়ের আইন পরিষদকে বুঝিয়েছেন। অন্য একটিতে লেখা ছিল, “জীবন থেকে তোমাকে আরো অনেক অভিজ্ঞতা নিতে হবে।” চীনের মূলভূখণ্ডে বন্দি প্রত্যর্পণ নিয়ে একটি প্রস্তাবিত বিল বাতিলের দাবিতে গত জুন মাসে হংকংয়ে আন্দোলন শুরু হয়েছিল। টানা আন্দোলনের মুখে ওই বিল প্রথমে ‘মৃত’ এবং পরে বাতিল ঘোষণা করা হলেও আন্দোলন থামেনি। বরং গণতন্ত্রপন্থি আন্দোলনকারীরা এখন হংকংয়ের চীনপন্থি সরকারের পদত্যাগ দাবি করছে।

নভেম্বর ০৯
০৩:৫৪ ২০১৯

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

শিল্পের নান্দনিকতায় মুগ্ধ দর্শনার্থী

শিল্পের নান্দনিকতায়  মুগ্ধ দর্শনার্থী

রোজিনা সুলতানা রোজি : এ যেন এক অন্য সবুজের সমারোহ এবং প্রকৃতিপ্রেমীদের মিলন মেলা। গাঢ় সবুজের ফাঁকে ফাঁকে শোভা পাচ্ছে লাল, সাদা, গোলাপী, হলুদসহ হরেক রকম ফুল। টবে বসানো আস্ত আস্ত সবুজ গাছের খর্বাকৃতি। বাংলাবট, লাইকড়, তেঁতুল, কামীনি প্রভৃতি সব গাছের সমারোহ। এ যেন শিল্পীর ছোয়ায় একেকটি নান্দনিক বৃক্ষের সমাহার।

বিস্তারিত




এক নজরে

চাকরি

সরকারি চাকরি আইনের সাতটি ধারা বাতিল চেয়ে উকিল নোটিস

সরকারি চাকরি আইনের সাতটি ধারা বাতিল চেয়ে উকিল নোটিস

সানশাইন ডেস্ক: সদ্য কার্যকর হওয়া সরকারি চাকরি আইনের সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক সাতটি ধারা বাতিল বা প্রত্যাহার করতে স্পিকার ও ছয় সচিবকে আইনি নোটিস পাঠানো হয়েছে। হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের (এইচআরপিবি) পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মনজিল মোরসেদ রোববার রেজিস্ট্রি ডাকযোগে নোটিসটি পাঠিয়েছেন। স্পিকার, মন্ত্রিপরিষদ সচিব, রাষ্ট্রপতি সচিবালয়ের সচিব, প্রধানমন্ত্রী

বিস্তারিত