Daily Sunshine

রাবিতে বুথ থেকে ভর্তিচ্ছুদের মোবাইল নিয়ে লাপাত্তা

Share

রাবি প্রতিনিধি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) ভর্তি পরীক্ষার্থীদের ব্যাগ-ফোন জমা রাখার সুবিধাদাতা ফোন নিয়ে ডেস্কসহ লাপাত্তা হয়ে গেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সত্যেন্দ্রনাথ বসু একাডেমিক ভবনের পশ্চিম পাশে এ ঘটনা ঘটে। তবে কারা এবং কতটি ফোন নিয়ে গেছে তার সত্যতা এখনও পাওয়া যায় নি। কোনো ভুক্তভোগীর সঙ্গেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয় নি।
সত্যেন্দ্রনাথ বসু একাডেমিক ভবনের পশ্চিম পাশে থাকা কয়েকজন স্বেচ্ছাসেবক জানান, সোমবার (২১ অক্টোবর) বেলা ১১ টা ৪৫ এ অনুষ্ঠিত পরীক্ষা শেষে ১৮-২০ জন পরীক্ষার্থী ফোন হারিয়ে গেছে বলে তাদের কাছে অভিযোগ করেন। পরীক্ষার্থীরা তাদের কাছে অভিযোগ করেন, ভবনের সামনে একটি ডেস্কে ফোন জমা রেখে তারা পরীক্ষা দিতে যায়। ওই ডেস্কে ১০ টাকার বিনিময়ে প্রত্যেক পরীক্ষার্থীকে ফোন ও ব্যাগ রাখতে দেয়া হয়েছিল। পরীক্ষা শেষে তাদেরকে ফেরত দেয়া হবে এই শর্তে পরীক্ষার্থীরা ফোন জমা দেন। তবে পরীক্ষা শেষে তারা দেখেন আগের জায়গায় কোন ডেস্ক নেই। আশেপাশে কোথাও ডেস্ক দেখতে না পেয়ে তারা স্বেচ্ছাসেবকদের কাছে অভিযোগ করেন। এসময় স্বেচ্ছাসেবকরা পরীক্ষার্থীদেরকে ওই ভবনের পাশে প্রশাসনের বসানো ৭ নম্বর হেল্প ডেস্কে তা জানাতে বলেন।
এ বিষয়ে ৭ নাম্বার হেল্প ডেস্কে থাকা ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের ৩য় বর্ষের শিক্ষার্থী জিল্লুর রহমান জানান এবং গ্রাফিক ডিজাইন বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী নূর জানান, সোমবার (২১ অক্টোবর) বেলা ১১ টা ৪৫ এ অনুষ্ঠিত পরীক্ষা শেষে ১৮-২০ জন পরীক্ষার্থী ফোন হারিয়ে গেছে বলে তাদের কাছে অভিযোগ করেন। ভর্তিচ্ছুরা তাদের কাছে অভিযোগ করে বলেন, ভবনের সামনে একটি ডেস্কে ব্যাগ ও ফোন জমা রেখে তারা পরীক্ষা দিতে যাই। ওই ডেস্কে ১০ টাকার বিনিময়ে প্রত্যেক পরীক্ষার্থীকে ফোন ও ব্যাগ রাখতে দেয়া হয়েছিল। পরীক্ষা শেষে তাদেরকে ফেরত দেয়া হবে এই শর্তে পরীক্ষার্থীরা ফোন জমা দেন।
এ বিষয়ে জিল্লুর রহমান বলেন, ‘আমি তখন দুপুরের খাবার খেতে যাচ্ছিলাম। বের হয়ে মোবাইল জমা রাখা বুথের খোঁজ না পেয়ে কান্না করতে থাকে। এসময় ১৭-১৮ জন ভর্তিচ্ছু আমার কাছে মোবাইল জমা রাখা বুথের খোঁজ নিতে আসেন। কিন্তু ততক্ষণে লাপাত্তা হয়ে যান তারা। আমি খেতে যাওয়ায় গ্রাফিক্স ডিজাইন বিভাগের শিক্ষার্থী ও বিএনসিসির সদস্য নূরকে বিষয়টি দেখতে বলি।’
এদিকে একই সময় মেহেদী হাসান চঞ্চল নামের এক শিক্ষার্থীও হেল্প ডেস্ক নিয়ে শিক্ষার্থীদের জন্য ব্যাগ রাখার ব্যবস্থা করেছিলো বলে জানা গেছে। পরে গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সাংবাদিকদের সঙ্গে সাক্ষাৎকালে চঞ্চল বলেন, গত সোমবার এ এবং বি দুইটা ইউনিটের পরীক্ষা সকাল ৯টা থেকে অনুষ্ঠিত হয়। আমরা যখন এই হেল্প ডেস্ক দিয়েছি তখন প্রক্টর স্যার এসে বার বার হুশিয়ারি দেয়েছেন এবং এখান থেকে চলে যেতে বলেছেন। তাই আমরা দ্বিতীয় সিফট শেষ হবার পরেই সবার ব্যাগ, ফোন জমা দিয়ে ডেস্ক বন্ধ করে চলে যাই। আরও কেউ সেখানে হেল্প ডেস্ক দিয়ে বসেছিলো। আমি তাদেরকে চিনি না। আমি এই ঘটনার সাথে কোন ভাবেই সম্পৃক্ত নই।
তবে এ বিষয়ে ৭ নম্বর হেল্প ডেস্কের দায়িত্বে থাকা সহকারী প্রক্টর সুমন হোসেন বলেন, আমি থাকাকালে এরকম কোন অভিযোগ পাইনি। আমার অনুপস্থিতিতে কেউ এমন অভিযোগ করেছে বলে আমার জানা নেই। কেউ অভিযোগ করে থাকলে আমি অবশ্যই জানতাম।
এদিকে বিশ^বিদ্যালয়ের গোয়েন্দা সংস্থার সঙ্গে এ বিষয়ে কথা বললে তারা বলেন, আমরা বিষয়টি শুনেছি। কিন্তু যাদের মোবাইল, ব্যাগ হারিয়ে তাদের কোনো সন্ধান কেউই দিতে পারিনি। ঘটনাটা আদৌও সত্য কিনা তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। আমাদের কারোর কাছে এ ধরনের কোনো অভিযোগ আসেনি।
বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, বুথ থেকে ২০-৩০ জন পরীক্ষার্থীদের মোবাইল, ব্যাগ হারিয়ে যাবে তাদের মধ্যে একজন তো অভিযোগ দিবে। কিন্তু কেউই কারোর কাছে কোন অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ না দিলে আমরা কিভাবে জানব। তাছাড়া বিশ^বিদ্যালয়ে এত আইনশৃঙ্খলাবাহিনী রয়েছে তাদের কাউকে কোনো অভিযোগ দেয় নি। তারপরেও মতিহার থানা পুলিশ ও ডিসি ডিবি বিষয়গুলো তদন্ত করে দেখছে। যদি কোন তথ্য প্রমাণ পাওয়া যায় তাহলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাফিজুর রহমান বলেন, আমাদের কাছে এ ধরনের কোনো অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ আসলে আমরা আইনগত ব্যবস্থা নিবো।
রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) গোয়েন্দা শাখার ডিবি উপ-কমিশনার (ডিসি) আবু আহম্মদ আল-মামুন বলেন, আমরা এধরনের কোন ঘটনার বিষয়ে কোনো অভিযোগ আসেনি। তবে বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসনের মাধ্যমে জানতে পেরেছি। ‘বিষয়টি সম্পর্কে আমি জানার পর আমরা সক্রিয়ভাবে কাজ করে যাচ্ছি। ঘটনার সত্যতা মিললে আমরা অভিযুক্তদের বিচারের আওতায় নিয়ে আসার চেষ্টা করব।
তিনি আরো বলেন, পরীক্ষার আগের দিন রাবি ও এর পাশর্^বর্তী এলাকা থেকে ২২ টা মোবাইল উদ্ধার করেছি। এই মোবাইলের মালিক সনাক্ত করতে পারিনি। যদি নাম্বারসহ যোগাযোগ করে আমরা মোবাইলগুলো ফেরত দিবো।

অক্টোবর ২৪
০৩:৫৫ ২০১৯

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

হেমন্তেই শীতের পদধ্বনি

ফয়সাল আলম: কুয়াশার চাদরে মুড়ে শীত আসছে। এখন যদিও হেমন্তকাল তবুও শীতের আগমনী বার্তা শুরু হয়েছে রাজশাহী অঞ্চলে। কমতে শুরু করেছে তাপমাত্রা, অনুভূত হচ্ছে শীতের পদধ্বনি। সন্ধ্যার পর থেকেই শীত অনুভূত হচ্ছে। রাতে ও মধ্যরাতে অনুভূত হচ্ছে আরও বেশী। জেলা শহর ও সীমান্তবর্তী উপশহরসহ গ্রামাঞ্চলে শীত পড়তে শুরু করেছে। সন্ধ্যালগ্নে

বিস্তারিত




এক নজরে

চাকরি

সরকারি চাকরি আইনের সাতটি ধারা বাতিল চেয়ে উকিল নোটিস

সরকারি চাকরি আইনের সাতটি ধারা বাতিল চেয়ে উকিল নোটিস

সানশাইন ডেস্ক: সদ্য কার্যকর হওয়া সরকারি চাকরি আইনের সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক সাতটি ধারা বাতিল বা প্রত্যাহার করতে স্পিকার ও ছয় সচিবকে আইনি নোটিস পাঠানো হয়েছে। হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের (এইচআরপিবি) পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মনজিল মোরসেদ রোববার রেজিস্ট্রি ডাকযোগে নোটিসটি পাঠিয়েছেন। স্পিকার, মন্ত্রিপরিষদ সচিব, রাষ্ট্রপতি সচিবালয়ের সচিব, প্রধানমন্ত্রী

বিস্তারিত