Daily Sunshine

রাবি শিক্ষার্থীকে মারধর বিক্ষোভে উত্তাল ক্যাম্পাস

Share

রাবি প্রতিনিধি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী ফিরোজ আনামের উপর দুর্বৃত্তদের হামলার প্রতিবাদে আন্দোলন করেছেন শিক্ষার্থীরা। শনিবার সকাল ১০টা থেকেই ক্যাম্পাসে মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল ও পুনরায় মহাসড়ক অবরোধ করে অবস্থান নেয় শিক্ষার্থীরা। পরে দুপুর আড়াইটার দিকে আগামী ২৪ অক্টোবরের মধ্যে ক্যাম্পাসের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার, বহিরাগতদের প্রবেশ নিষেধ, ছিনতাইকারীদের শাস্তিসহ আরো বেশ কয়েকটি দাবি বাস্তবায়নের আল্টিমেটাম দিয়ে আন্দোলন স্থগিত করেন শিক্ষার্থীরা।
এদিকে ফিরোজ আনামকে মারধরের ঘটনায় তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। তাদেরকে বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন মেহেরচণ্ডী এলাকা থেকে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।নগরীর মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাফিজুর রহমান বলেন, ‘আমরা তিনজনকে আটক করেছি। দুপুরে তাদেরকে প্রাথমিকভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।’
আটককৃতরা হলেন, রিফাত হোসেন নগরীর তালাইমারী এলাকার জাহিদ হোসেনের ছেলে রুবেল হোসেন, শিরোইল এলাকার রাকিব আলীর ছেলে রিফাত হোসেন রাকেশ এবং মীর্জাপুর এলাকার খোরশেদের ছেলে পারভেজ।
ক্যাম্পাস সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার সন্ধ্যায় ক্লাসের নোটপত্র ফটোকপি করতে গিয়ে ছিনতাইকারীদের কবলে পড়ে ফিরোজ। এ সময় ছিনতাইকারীরা ফিরোজকে হাতুড়ি দিয়ে আঘাত করে। এতে ফিরোজের মাথা ফেটে যায়। ফিরোজ বর্তমানে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ৮ নম্বর ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন। তার অবস্থা আশঙ্কামুক্ত।
এ ঘটনার প্রেক্ষিতে রাত ১০টার দিকে শিক্ষার্থীরা মহাসড়কে অবস্থান নেন। প্রক্টর আন্দোলনকারীদের সঙ্গে কথা বলতে গেলে তারা উত্তেজিত হয়ে পড়ে। একপর্যায়ে সহকারী প্রক্টর হুমায়ন কবীর আন্দোলনকারীদের সঙ্গে উচ্চ বাক্যে কথা বললে শিক্ষার্থীরা তার উপর চড়াও হয়। এ সময় এসআরকে রাজ নামের এক ছাত্রলীগ কর্মী ও কিশোর কুমার নামের আরেক শিক্ষার্থী হুমায়ন কবীরের গায়ে হাত তোলেন। রাজ রাবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনুর অনুসারী। রাজ দাবি করেন, সে সহকারী প্রক্টরকে বাঁচাতে গিয়ে হোঁচট খেয়েছেন, গায়ে হাত তোলেননি। কিশোর ইতিহাস বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী।
এদিকে, সহকারী প্রক্টরের গায়ে হাত তোলায় কিশোর কুমারকে ডিবি তুলে নিয়ে যায়। পরে শিক্ষার্থীরা কিশোরকে না পেলে রাতভর আন্দোলন করার ঘোষণা দেন। প্রায় আধা ঘণ্টা পর কিশোরকে ছেড়ে দেওয়া হয়। পরে রাত চারটায় আন্দোলন স্থগিত করেন শিক্ষার্থীরা।
শনিবার সকাল ১০টা থেকে ছিনতাইকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি, ফিরোজের চিকিৎসাভার বহন ও ক্যাম্পাসের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিতের দাবিতে মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল ও সড়ক অবরোধ কর্মসূচি পালিত হয়। রাবি ছাত্রলীগ, বদরগঞ্জ উপজেলা ছাত্র সমিতি ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা পৃথকভাবে এসব কর্মসূচি পালন করেন। সাধারণ শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধ কর্মসূচিতে ছাত্রলীগও সমর্থন দিয়ে অংশ নেন। পরে দুপুর আড়াইটার দিকে আগামী ২৪ অক্টোবরের মধ্যে তাদের দাবি বাস্তবায়নের আল্টিমেটাম দিয়ে আন্দোলন স্থগিত করেন শিক্ষার্থীরা।
জানতে চাইলে প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, ‘পুলিশ তিনজনকে আটক করেছেন। দ্রুতই বাকিদের আটক করে তাদের শাস্তির আওতায় আনা হবে বলে আশা করছি। তিনি বলেন, শিক্ষার্থীরা যেসব দাবি জানিয়েছে সেগুলো অবশ্যই আমরা দ্রুততম সময়ের মধ্যে বাস্তবায়নের চেষ্টা করব।

অক্টোবর ২০
০৪:১৩ ২০১৯

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

তবুও স্বপ্ন দেখেন আকবর

তবুও স্বপ্ন দেখেন আকবর

মাহবুব মোরসেদ : আকবর আলী। বয়স ৪৮ বছর। চার ভাই ও এক বোন। পিতা আব্দুল্লাহ। বাড়ী নওগাঁ জেলার সাপাহার উপজেলার আই-হাই গ্রামে। বাবা-মা মারা গেছে অনেক আগে। সীমান্তবর্তী এই উপজেলার সীমান্ত ঘেঁষা গ্রাম এটি। কাজের সন্ধানে অনেক বছর আগে অন্য দেশে পাড়ি জমায় অন্য তিন ভাই, মোনতাজ, লতিফ ও বাবু।

বিস্তারিত




এক নজরে

চাকরি

অনশনে অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে রাজশাহী পাটকলের আট শ্রমিক

অনশনে অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে রাজশাহী পাটকলের আট শ্রমিক

স্টাফ রিপোর্টার : অবসরপ্রাপ্ত শ্রমিক-কর্মচারীদের পিএফ গ্রাচ্যুইটির টাকাসহ ১১ দফা দাবি বাস্তবায়নের দাবিতে আমরণ অনশনের মধ্যে রাজশাহী পাটকলের আটজন শ্রমিক অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। বৃহস্পতিবার সকালে তাদের রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এরা হলেন, আব্দুল গফুর, জয়নাল আবেদিন, আলতাফুন বেগম, মহসীন কবীর, আসলাম আলী, মোশাররফ হোসেন, মোজাম্মেল হক ও

বিস্তারিত