Daily Sunshine

বাজার স্থিতিশীল রাখতে চাই নিয়মিত নজরদারি

Share

ফের বেড়েছে পেঁয়াজের দাম
পেঁয়াজের বাজারে এখনো স্থিরতা আসেনি। আমদানীকৃত ভারতীয় ও মিয়ানমারের পেঁয়াজ আসলেও তার প্রভাব দেখা যাচ্ছে না দেশের খুচরা ও পাইকারি বাজারে। মাঝে সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগের কিছু তৎপরতায় বাজারে পেঁয়াজের মূল্য সামান্য কিছু কমলেও ফের দাম বাড়তে শুরু করেছে। বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে বলা হয়েছে ইতোমধ্যে শতক ছুয়েছে পেঁয়াজের দাম। ফলে সপ্তাহের ব্যবধানে দ্বিতীয় দফায় দেশী পেঁয়াজের দাম শতকে উঠলো। আর আমদানী করা ভারতীয় ও মিয়ানমারের পেঁয়াজ ৮০ থেকে ৯০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।
বাজারে আবারো পেঁয়াজের দাম বেড়েছে সরবরাহের স্বল্পতার কারণে। বলা হচ্ছে দেশী পেঁয়াজের মজুদ শেষ হয়ে আসছে। ভারতীয় পেঁয়াজের সরবরাহও কম। আর মিয়ানমার থেকে আমদানী করা পেঁয়াজের মান খারাপ থাকায় নতুন করে কেউ সেখান থেকে পেঁয়াজ আমদানীর সাহস করছেন না। এই অবস্থায় বাজারে সরবরাহ কমে আসায় বেড়েই চলেছে আবারো পেঁয়াজের দাম। তবে ব্যবসায়ীদের বরাত দিয়ে খবরে বলা হয়েছে মিশর থেকে পেঁয়াজের বড় চালান এলে মূল্য কমে আসতে পারে। এখন তারই অপেক্ষা।
পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধিতে এবার রেকর্ড ছুয়েছে। এতে করে সাধারণ ক্রেতাদের অতিরিক্ত মূল্য দিয়ে নিত্য ব্যবহার্য এই মসলা পণ্য কিনতে হচ্ছে। রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ টিসিবি এক্ষেত্রে কার্যকর উদ্যোগ নিয়ে মাঠে না থাকায় পেঁয়াজের বাজারে স্থিতিশীলতা আসেনি। এ কারণে আবারো বাড়তে শুরু করেছে দাম। এই পরিস্থিতিতে বাজারে সরকারের নজরদারি যেমন বাড়তে হবে তেমনি দ্রুত মিশরসহ অন্যান্য পেঁয়াজ রপ্তানীকারী দেশ থেকে আমদানী করতে হবে যাতে বাজারের এই উর্ধ্বগতি রোধ করা যায়। আশা করি সরকার বিষয়টি আমলে নিয়ে দ্রুত কার্যকর ব্যবস্থা করবে।

অক্টোবর ১৫
০৩:৫০ ২০১৯

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

বাবুর্চি থেকে হোটেল মালিক আফজাল

বাবুর্চি থেকে হোটেল  মালিক আফজাল

মাহফুজুর রহমান প্রিন্স, বাগমারা: ছিলেন বাবুর্চি এখন হোটেল মালিক। ৯০’ এর দশকে হোটেলের বয় হিসাবে যাত্রা শুরু এই যুবকের। আজ তিনি নিজেই একটি হোটেল পরিচালনা করছে। সুদীর্ঘ এই পেশাদার জীবনে অনেক পেয়েছেন। পেয়েছেন অর্থ, খ্যাতি, সম্মান ও সর্বোপরি সবার ভালোবাসা। এ ছাড়া বাগমারার সকল হোটেল কর্মচারিরা তাকে নেতাও বানিয়েছে। তিনি

বিস্তারিত




এক নজরে

চাকরি

সরকারি চাকরি আইনের সাতটি ধারা বাতিল চেয়ে উকিল নোটিস

সরকারি চাকরি আইনের সাতটি ধারা বাতিল চেয়ে উকিল নোটিস

সানশাইন ডেস্ক: সদ্য কার্যকর হওয়া সরকারি চাকরি আইনের সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক সাতটি ধারা বাতিল বা প্রত্যাহার করতে স্পিকার ও ছয় সচিবকে আইনি নোটিস পাঠানো হয়েছে। হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের (এইচআরপিবি) পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মনজিল মোরসেদ রোববার রেজিস্ট্রি ডাকযোগে নোটিসটি পাঠিয়েছেন। স্পিকার, মন্ত্রিপরিষদ সচিব, রাষ্ট্রপতি সচিবালয়ের সচিব, প্রধানমন্ত্রী

বিস্তারিত