Daily Sunshine

Share

স্টাফ রিপোর্টার, চারঘাট: রাজাহীর চারঘাটের একটি পুকুর থেকে জীবন্ত কুমির উদ্ধার করা হয়েছে। বন্য ও প্রাণী সংরক্ষন অধিদফতর ও চারঘাট ফায়ার সার্ভিসের পৃথক দুটি দল সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত চেষ্টা চালিয়ে রবিবার বিকাল সাড়ে পাচঁটার দিকে কুমিরটি উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছে।
এদিকে নদীতে থাকা কুমির পুকুরে আসার খবরে আশের পাশের বিভিন্ন এলাকা থেকে শত শত নারী পুরুষ কুমির দেখতে ভিড় জমাতে থাকেন পুকুরপাড়ে। স্থানীয় প্রশাসনকে জনতার ভিড় সামাল দিতে হিমশিম খেতে হয়েছে। তবে কুমিরটি কোন ধরনের ক্ষতি করতে পারেনি।
পুকুরপাড়ের বাসিন্দা গিয়াস উদ্দিনের ছেলে প্রত্যক্ষদর্শী মনিমুল ইসলাম জানান, রবিবার সকাল ৭ টার দিকে ঘুম থেকে উঠে বাইরে এসে পুকুরে দিকে তাকাতেই দেখেন একটি কুমির মাঝে মাঝে মাথা উচু করে পাড়ের দিকে আসছে। এসময় চিৎকার দিলে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে তারাও দেখতে পায় কুমিরটিকে।
এরপর সংবাদ দেয়া হয় ফায়ার সার্ভিসসহ স্থানীয় প্রশাসনকে। পরে বেলা সাড়ে ১২ টার দিকে সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে রাজশাহীর বন্য ও প্রাণী সংরক্ষন অধিদফতরের সদস্যরা। এরপর দীর্ঘক্ষন চেষ্টা চালিয়ে জীবন্ত কুমিরটিকে উদ্ধার করেন তারা।
বন্য ও প্রাণী সংরক্ষন অধিদফতর রাজশাহী অঞ্চলের পরিদর্শক জাহাঙ্গীর কবীর জানান, এক ধরণের কুমির থাকার কথা লোনা পানিতে অর্থাৎ সাগরে। আর আরেক ধরণের কুমির থাকার কথা মিঠা পানি অর্থাৎ নদীতে। তবে উদ্ধার হওয়া কুমিরটি মিঠা পানি অর্থাৎ পদ্মায় থাকার কথা। হয়তো পথভ্রষ্ট হয়ে পদ্মা নদীর সঙ্গে সংযুক্ত ক্যানেল দিয়ে পুকুরে চলে এসেছিলো। রাতের আধারে এসে ক্যানেল থেকে পুকুরের পানিতে নেমে পড়ে। সৌভাগ্যক্রমে কুমিরটি কারো কোন ধরণের ক্ষতি করতে পারেনি। তবে যে কোন সময় ক্ষতি করতে পারতো।
চারঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ নাজমুল হক বলেন, কুমির পুকুরে চলে আসার খবর শুনে তাৎক্ষনিক বন্য ও প্রাণী সংরক্ষন অধিদফতরে সংবাদ দিয়ে তাদের চেষ্টায় অক্ষত অবস্থায় কুমিরটি উদ্ধার করা হয়েছে। কুমিরটি বন্য ও প্রানী সংরক্ষন অধিদফতরের হেফাজতে রাখা হয়েছে।
উপজেলা চেয়ারম্যান ফকরুল ইসলাম বলেন, পানিতে থাকা কুমির ডাঙ্গায় এসে কোন মানুষের ক্ষতি করেনি। যেভাবে কুমিরের সংবাদ শুনে জনতা ভিড় করছিল তাতে বড় ধরণের ক্ষতির আশঙ্কা ছিল।

সেপ্টেম্বর ২৩
০৪:০০ ২০১৯

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

সাইকেলে স্কুলযাত্রায় ওরা

সাইকেলে স্কুলযাত্রায় ওরা

রোজিনা সুলতানা রোজি : এমন এক সময় ছিল যখন মেয়েদের সাইকেল চালানোকে সমাজ নেতিবাচক দিক হিসেবেই দেখতো। মেয়েদের অল্প বয়সে বিয়ে দেয়া হত যখন তারা বুঝতোই না যে বিয়ে কি? সাইকেল চালানো তো দূরের কথা মেয়েদের পড়ালেখারও তেমন সুযোগ দেয়া হত না। কিন্তু সমাজ আজ আধুনিকতার ছোঁয়ায় সচেতন হয়েছে। সমাজের

বিস্তারিত




এক নজরে

চাকরি

সরকারি চাকরি আইনের সাতটি ধারা বাতিল চেয়ে উকিল নোটিস

সরকারি চাকরি আইনের সাতটি ধারা বাতিল চেয়ে উকিল নোটিস

সানশাইন ডেস্ক: সদ্য কার্যকর হওয়া সরকারি চাকরি আইনের সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক সাতটি ধারা বাতিল বা প্রত্যাহার করতে স্পিকার ও ছয় সচিবকে আইনি নোটিস পাঠানো হয়েছে। হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের (এইচআরপিবি) পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মনজিল মোরসেদ রোববার রেজিস্ট্রি ডাকযোগে নোটিসটি পাঠিয়েছেন। স্পিকার, মন্ত্রিপরিষদ সচিব, রাষ্ট্রপতি সচিবালয়ের সচিব, প্রধানমন্ত্রী

বিস্তারিত