Daily Sunshine

স্থায়ী জামিন পেলেন অভিনেত্রী নওশাবা

ফেসবুকে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে করা মামলায় অভিনেত্রী কাজী নওশাবা আহমেদের স্থায়ী জামিন আবেদন মঞ্জুর করেছেন আদালত। মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর হাকিম দিদার হোসাইন তার স্থায়ী জামিনের আবেদন মঞ্জুর করেন।

এদিন স্থায়ী জামিন নিতে আদালতে উপস্থিত হন কাজী নওশাবা। পরে তার আইনজীবী এএইচ ইমরুল হোসেন স্থায়ী জামিনের আবেদন করেন।

শুনানিতে তিনি বলেন, কাজী নওশাবা আজ পর্যন্ত এ মামলায় জামিনে আছেন। এর আগেও তিনি এ মামলায় দুবার অস্থায়ী জামিন নিয়েছেন। তিনি জামিনের কোনো শর্ত ভঙ্গ করেননি। অভিনয়ের কাজে তাকে ব্যস্ত থাকতে হয়। তাই তার স্থায়ী জামিনের আবেদন করছি।

এর পর বিচারক নওশাবাকে জিজ্ঞাসা করেন, ‘আপনার বিরুদ্ধে কি আর কোনো মামলা আছে?’ উত্তরে নওশাবা বলেন, ‘এ মামলা ছাড়া আর কোনো মামলা নেই।’ পরে বিচারক স্থায়ী জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন।

অন্যদিকে মঙ্গলবার মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের দিন ধার্য ছিল। তবে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা (আইও) প্রতিবেদন দাখিল না করায় আদালত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আগামী ৩ মার্চ দিন ধার্য করেন।

নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মধ্যে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে গতবছর ৪ আগস্ট গ্রেপ্তার হন অভিনেত্রী নওশাবা।

ওইদিন আন্দোলনের মধ্যে ঢাকার জিগাতলায় সংঘর্ষ বাঁধলে ফেসবুকে লাইভে এসে অত্যন্ত আবেগি কণ্ঠে দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যু এবং একজনের চোখ তুলে ফেলার ‘খবর’ দেন নওশাবা, যা পরে গুজব প্রমাণিত হয়।

র‌্যাব ওই দিনই নওশাবাকে আটক করে তার বিরুদ্ধে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে মামলা করে। ওই মামলায় দুই দফায় মোট ৬ দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় তাকে। এর মধ্যে অসুস্থ হয়ে পড়ায় তাকে হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসাও দেওয়া হয়।

পরে কোরবানির ঈদের আগে জামিনে মুক্তি পান নওশাবা।

সানশাইন অনলাইন/এন এ

জানুয়ারি ১৫
১৬:০৪ ২০১৯

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

বাবুর্চি থেকে হোটেল মালিক আফজাল

বাবুর্চি থেকে হোটেল  মালিক আফজাল

মাহফুজুর রহমান প্রিন্স, বাগমারা: ছিলেন বাবুর্চি এখন হোটেল মালিক। ৯০’ এর দশকে হোটেলের বয় হিসাবে যাত্রা শুরু এই যুবকের। আজ তিনি নিজেই একটি হোটেল পরিচালনা করছে। সুদীর্ঘ এই পেশাদার জীবনে অনেক পেয়েছেন। পেয়েছেন অর্থ, খ্যাতি, সম্মান ও সর্বোপরি সবার ভালোবাসা। এ ছাড়া বাগমারার সকল হোটেল কর্মচারিরা তাকে নেতাও বানিয়েছে। তিনি

বিস্তারিত




এক নজরে

চাকরি

সরকারি চাকরি আইনের সাতটি ধারা বাতিল চেয়ে উকিল নোটিস

সরকারি চাকরি আইনের সাতটি ধারা বাতিল চেয়ে উকিল নোটিস

সানশাইন ডেস্ক: সদ্য কার্যকর হওয়া সরকারি চাকরি আইনের সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক সাতটি ধারা বাতিল বা প্রত্যাহার করতে স্পিকার ও ছয় সচিবকে আইনি নোটিস পাঠানো হয়েছে। হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের (এইচআরপিবি) পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মনজিল মোরসেদ রোববার রেজিস্ট্রি ডাকযোগে নোটিসটি পাঠিয়েছেন। স্পিকার, মন্ত্রিপরিষদ সচিব, রাষ্ট্রপতি সচিবালয়ের সচিব, প্রধানমন্ত্রী

বিস্তারিত