Daily Sunshine

বাঘায় দলছুট হনুমান দেখতে ছুটছে জনতা

Share

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহীর বাঘা উপজেলার বিভিন্ন এলাকার লোকালয়ে দলছুট একটি মুখপোড়া হনুমান গাছে গাছে ঘুড়ে বেড়াচ্ছে। হনুমানটি দেখার জন্য কৌতূহলী মানুষ ভিড় করছে।

বাউসা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শফিকুর রহমান জানান, উপজেলার বাউসা ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র এলাকায় মুখপোড়া একটি হনুমানটি দেখা যায়। তারপর থেকে হনুমানটি এলাকার বিভিন্ন স্থানে ঘুরে বেড়াচ্ছে। তবে এ হনুমানটি কীভাবে এবং কোথায় থেকে এ এলাকায় এসেছে, তা কেউ জানাতে পারছে না।

হনুমানটি দেখার পর থেকে কৌতূহলী লোকজনের উৎপাত থেকে বাঁচতে হনুমানটি উঁচু গাছে আশ্রয় নিয়েছে। হনুমানটিকে খাওয়ানোর জন্য তবে কেউ কেউ কলা, বিস্কুট, পাউরুটি দিচ্ছে।

এ বিষয়ে উপজেলা প্রাণী সম্পদক কর্মকর্তা ডা. আমিনুল ইসলাম বলেন, কোন প্রাণী অসুস্থ হয়ে গেলে তাদের চিকিৎসা দেয়া হয়। তবে উপজেলা কোন প্রাণী সংরক্ষণ করার বিধান ও ব্যবস্থা নেই। ফলে এ বিষয়ে আমাদের কিছুই করার নেই।

বাঘা পৌরসভার প্যানেল মেয়র শাহিনুর রহমান পিন্টু বলেন, গাওপাড়া এলাকায় গত কয়েক দিন থেকে একটি মুখপোড়া হুনুমান দেখা যাচ্ছে। এ হুনুমানকে দেখতে আসা মানুষ বিভিন্ন ধরনের খাবার দিচ্ছে। এ খাবার খাচ্ছে। তবে দেখার জন্য মানুষ ভিড় করছে। এ হনুমানটির বিষয়ে বিভিন্নস্থানে অবগত করা হলেও কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা শাহিন রেজা জানান, মুখপোড়া হনুমান বৃক্ষচারী শান্তি প্রিয় প্রাণী। চলাফেরা, ঘুম, খাবার সংগ্রহ, খেলাধুলা ও বিশ্রামসহ সবকিছু এরা গাছে সম্পন্ন করে। মূলত গাছের পাতা খেয়ে জীবনধারণ করে। তবে বিভিন্নস্থানে এ বিষয়ে কথা হয়েছে, তারা এ প্রাণীর কেউ দায়িত্ব নিতে চাচ্ছেনা। এ প্রাণী নিজে নিজে আসে, আবার নিজে নিজে চলে যায়। তবে এ প্রাণীকে কেউ যেন অত্যাচার না করে, সে বিষয়ে এলাকার মানুষকে সচেতন করা হয়েছে।

সানশাইন/০২ ডিসেম্বর/ রোজি

ডিসেম্বর ০২
২০:৫৯ ২০১৯

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

বাবুর্চি থেকে হোটেল মালিক আফজাল

বাবুর্চি থেকে হোটেল  মালিক আফজাল

মাহফুজুর রহমান প্রিন্স, বাগমারা: ছিলেন বাবুর্চি এখন হোটেল মালিক। ৯০’ এর দশকে হোটেলের বয় হিসাবে যাত্রা শুরু এই যুবকের। আজ তিনি নিজেই একটি হোটেল পরিচালনা করছে। সুদীর্ঘ এই পেশাদার জীবনে অনেক পেয়েছেন। পেয়েছেন অর্থ, খ্যাতি, সম্মান ও সর্বোপরি সবার ভালোবাসা। এ ছাড়া বাগমারার সকল হোটেল কর্মচারিরা তাকে নেতাও বানিয়েছে। তিনি

বিস্তারিত




চাকরি

সরকারি চাকরি আইনের সাতটি ধারা বাতিল চেয়ে উকিল নোটিস

সরকারি চাকরি আইনের সাতটি ধারা বাতিল চেয়ে উকিল নোটিস

সানশাইন ডেস্ক: সদ্য কার্যকর হওয়া সরকারি চাকরি আইনের সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক সাতটি ধারা বাতিল বা প্রত্যাহার করতে স্পিকার ও ছয় সচিবকে আইনি নোটিস পাঠানো হয়েছে। হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের (এইচআরপিবি) পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মনজিল মোরসেদ রোববার রেজিস্ট্রি ডাকযোগে নোটিসটি পাঠিয়েছেন। স্পিকার, মন্ত্রিপরিষদ সচিব, রাষ্ট্রপতি সচিবালয়ের সচিব, প্রধানমন্ত্রী

বিস্তারিত